ক্যাটেগরিঃ সুরের ভুবন

 

ভারত বিদ্বেষের ধোঁয়া তুলে ইন্ডিয়ান ব্যান্ড ফসিলস যে হ্যাশট্যাগ চালু করে, বিক্ষোভে প্রস্তুতি নিয়ে মাইলসের কলকাতায় ‘আজাদী ফেস্টিভ্যাল’-এ অংশগ্রহন থামিয়ে দিলো! এতে কি অর্জন হলো? কি অর্জন করলো ব্যান্ড ফসিলস?
কি অর্জন করলো আজাদীর ৬৯ বছর উৎযাপন করতে যাওয়া ইন্ডিয়া?

শুধু ঘৃনার বিষ ছড়ানো ছাড়া? সাধারন শ্রোতাদের বঞ্চিত করা ছাড়া? সাংস্কৃতির আবহে দুই দেশের সম্প্রিতি নষ্টের জ্বালানি দেয়া ছাড়া?

আজ সারা পৃথিবীর বড় সমস্যা হলো জঙ্গিবাদ। এটাও কি এক প্রকার জঙ্গিবাদ নয়?

খুবই অসাধারন ভাবেই শাফিন আহমেদ এটি দেখিয়ে দিয়েছেন। ভারত বিদ্বেষের অভিযোগে নার্ভাস না হয়ে দৃঢ়তার সাথে জানিয়ে দিয়েছেন- “এটা দেশপ্রেম, ভারত বিদ্বেষ নয়।”

এটি কিন্তু খুবই গুরুত্বপূর্ন পয়েন্ট যে- বাংলাদেশের নাগরিক হিসাবে শাফিন-হামিনের দেশপ্রেমকে, ভারত বিদ্বেষ নাম দিয়ে ভুল বা অপব্যাখ্যা করা হয়েছে।

ধর্মের অপব্যাখ্যা দিয়ে সমাজে ঘৃনার বিষ ছড়ালে যদি মৌলবাদী হয়, সাধারন মানুষকে আক্রান্ত করলে যদি জঙ্গি হয়, তবে ভারত বিদ্বেষের অপব্যাখ্যার ঘৃনার বিষ ছড়ানো কি মৌলবাদ নয়? সাধারন শ্রোতাদের বঞ্চিত করা কি জঙ্গিবাদ নয়?

আমাদের শুধু ধর্মীয় জঙ্গিদের বিরুদ্ধে লড়লেই চলবে না, আমাদের লড়তে হবে এ সকল সাংস্কৃতিক জঙ্গিদের বিরুদ্ধেও… যে জঙ্গিদের কর্মকান্ডে কলকাতার নজরুল মঞ্চে গান গাইতে পারলেন না নজরুল সংগিতের নতুন জীবনদানকারী ফিরোজা বেগমের সন্তান!

শুধুমাত্র এই কথাটির মূল্য বুঝতেই হবে দুই বাংলা তথা দুই দেশের বোধসম্পন্ন মানুষদের। নইলে দু’দেশের মানুষের মনে ছড়ানো ঘৃনার বিষ ডালপালা মেলবে! বাতাসে থাকবে অক্সিজেনের বদলে শুধুই বিষ!

তখন আপনারা শ্বাস নেবেন কিভাবে?