ক্যাটেগরিঃ জানা-অজানা

 
142887602

খুব সম্ভবত এতক্ষনে আপনার নতুন বছর উদযাপন প্রায় শেষ । এবং প্রায় প্রতি বছরের মতো আপনি আবিষ্কার করলেন নতুন বছরের প্রথম এই দিনটিও অত্যন্ত বাজে ভাবে কেটেছে । খুবই বাজে এবং হতাশ আপনি । এমনটি হবার সম্ভাবনা প্রায় ৮৫ ভাগ । আপনি যদি আগের বছর গুলোর দিকে তাকান তাহলে দেখবেন একই অবস্থা । প্রায় প্রতিটি বছরের প্রথম দিনটি আপনার জন্য খুবই বাজে একটা দিন ছিল । অথচ প্রায় প্রতি বছরই আপনি এই দিনটি ভালো ভাবে কাটাবার জন্য প্ল্যান করেন । তাহলে কেন এমনটি হয় আপনার সাথে ? আসলে আপনার সাথে না প্রায় সবার সাথেই এমনটি হয় । বিজ্ঞানীরা এই দিনটির সুখ বিশ্লেষণের একটা সূত্রও আবিষ্কার করেছে  । পুরো সূত্রটি আমি ব্যাখ্যা দিলাম না । আপনি চাইলে লিংক থেকে  পড়ে নিতে পারেন ।

article-2715853-204d238500000578-296_634x97

মনো বিজ্ঞানীরা এই দিনটি অসফল আবার পেছনে আপনার অধিক আশা বা প্লানকে দায়ী করে থাকে । ধরুন আপনি নতুন বছরের প্রথম দিনটি নিয়ে যে পরিমান প্ল্যান করেন দ্বিতীয় বা তৃতীয় দিন নিয়ে কিন্তু আপনার মাথায় কিছুই থাকে না । আপনার প্রায় সারা বছরের সব প্ল্যান এই একটা দিনকে ঘিরে । সুতরাং এই দিনটি স্বভাবতই অধিক এক্সপেক্টটেশন এর ভারে জর্জরিত থাকে । আরো একটি কারণ হচ্ছে পৃথিবীর প্রায় সব ধরণের মানুষ এই দিনটি নিয়ে প্রায় একই ধরণের প্ল্যান করে থাকে । এখন আপনিই বলুন সবাই যদি একই রকম জিনিস চায় বিধাতা কিভাবে সবার আশা এক সাথে পূরণ করবে ? নিতান্তই সাপ্লাই আর ডিমান্ড এর ব্যাপক পার্থক্যের কারণে বিধাতা চাইলেও বেশির ভাগ মানুষের আসা পূরণ করতে পারেন না এই দিনে ।

নতুন বছরের প্রথম দিনটিতে আপনার হতাশ হবার কারণ আপনার মস্তিষ্কের বাম পাশের অংশ । আপনার মস্তিষ্কের দুইটি অংশের মাজে বাম পাশের অংশের কাজ প্রচন্ড নেগেটিভ ধারণা দেয়া বা যেকোন কাজের যুক্তিতর্ক তৈরী করা । অর্থাৎ আপনি যখন খুব অর্গানাইজড ভাবে চিন্তা করেন তখন আপনার মস্তিষ্কের ডান পাশের অংশ আপনাকে সাহায্য করে থাকে । আর আপনার বাম পাশের মস্তিস্ক আপনাকে আপনার প্ল্যান সফল না হবার ধারণা দিয়ে থাকে । ধরুন আপনি আপনি যখন নতুন বছরের প্রথম দিনে সবাইকে নিয়ে বাইরে কোথায় ঘুরতে যাবার প্ল্যান করবেন তখন আপনার মস্তিষ্কের বাম পাশ আপনাকে বাইরে ঘুরতে যাবার খরচ বা যাতায়ত অসুবিধা এই সব নিয়ে ক্রস প্ল্যানিং দিবে । আপনি দোটানায় পরে যাবেন । মজার ব্যাপার হচ্ছে আপনার মস্তিষ্কের বাম পাশ যদি বেশি কার্যকর হয় তবে আপনি ডান হাতি আর নয়তো বাম হাতি / যেহেতু আমরা বেশির ভাগ মানুষ ডান হাতি তাই আমাদের মাঝে সিদ্ধান্তহীন মানুষের সংখ্যা বেশি ।

সুতরাং আপনি যদি ডানহাতি হয়ে থাকেন তবে আপনার আজকে হতাশ হবার চান্স প্রায় ১০০ ভাগ ।

1328730804_q0g6025

এবার আসুন জানার চেষ্টা করি আপনি কিভাবে একটা অর্থবহ প্লানিং করতে পারেন এই বছরের জন্য । আমরা প্রায় সবাই নতুন বছরের প্লানিং করে থাকি মনে মনে । খুব কম মানুষ পাবেন যারা আজকের দিনে লিখে রেখেছে তারা সারাটা বছর কিভাবে চলবে । যদি কেও লিখেও থাকে এবং আমার আপনার হাতে যদি তা পরে তবে নির্ঘাত ওই ব্যাক্তির কপালে শনি আছে । কারণ এই ব্যাপারটি আমার আর আপনার কাছে এক উন্মাদিও কান্ড । অথচ আশ্চর্যের ব্যাপার হচ্ছে এই প্লানিং টিই কিন্তু আপনার লিখে রাখার কথা । আপনি সেই মনে গেঁথে রাখছেন যেখানে আপনার মস্তিষ্কের দুইটা দিক দুই রকম করে ভাবে । এবার হয়তো বুজতে পারছেন কেন প্রতি বছর আপনি প্রথম দিনের সাথে বাকি দিন গুলোর কোন মিল খুঁজে পান না ।

বিজ্ঞানীদের মতে আপনি যদি আপনার প্লানিং কে এঁকে বা কার্টুন করে নিজের চোখের সামনে ঝুলিয়ে রাখতে পারেন তবে তা অনেক বেশি কার্যকর হবে । এর মানে আপনার ঘরের দেয়ালে যদি একটা রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ছবি টাঙানো থাকে তবে আপনার চাল চলন নিজের অজান্তেই শান্তি নিকেতনি হয়ে উঠবে । এর কারণ আপনার মস্তিস্ক যত বার এই ছবিটি দেখবে ততবার এর সাথে আপনার আনুষাঙ্গিক স্মৃতিকে জাগিয়ে তুলবে নিজের অজান্তেই । হয়তো ওই পরিমান চুল দাড়ি না গজালেও কবি গুরুর ধারা কিছুটা পেতে পারেন । এটা বিজ্ঞানীদের কথা । আমার তো মোটেই না ।

এবার আসুন দেখি কিভাবে আপনি আপনার এই বছরের প্লানিং কে কার্টুন করবেন বা ছবি আঁকবেন ? ব্যাপারটা নিজের মতো করেই করে ফেলুন । মানে একটা ডাইরি বা হোয়াইট বোর্ড নিন আর নিজের মতো করে কি কি করতে চাচ্ছেন এই বছর সেগুলো এঁকে ফেলুন । যা খুশি নিজের মতো করে আঁকুন । এরপর ডাইরি বা বোর্ডটি চোখের সামনে রেখে দিন । বা কিছু দিন পর পর ছবিটি একবার দেখুন । এতে করে মস্তিস্ক আপনি কিভাবে সফল হবেন তার একটা ধারণা আপনাকে দেবে । অর্থাৎ আপনি যদি এই বছর চাকরিতে একটা প্রমোশন চান আর তা যদি ছবিতে এঁকে রাখেন তবে আপনার মস্তিস্ক খুব সহজে আপনাকে সফল হবার পথ বাতলে দিতে পারে । এর কারণ আপনার মস্তিষ্কটা অনেকটা আপনার মেমরি সেল এর মতো কাজ করে । আপনার দেখা ভুবনের প্রায় সব কটা পথ এর মাঝে জমা হয়ে আছে । কিন্তু পথ খুঁজে পাচ্ছে না কিভাবে আপনাকে পথ বাতলে দেবে । আপনার চোখের সামনেই সমস্যার সমাধান ঘুর ঘুর করছে অথচ আপনি দেখছেন না । এমনটা হতেই পারে । শুধু দরকার আপনার মস্তিস্ককে সজাগ রাখা । আর এই কাজটা করবে আপনার আঁকা ছবিটা । এটাও আমার না বিজ্ঞানীদের কথা ।

সুতরাং চলুন এঁকে ফেলি এ বছরের পুরো ছবিটা । এর পর বাধাই করে চোখের সামনে রেখে দিলেই হবে । পরের বছর দেখবেন আপনি সফল একটা নতুন বছরের দিন পাবেন । এতটুকুন করার মতো সাহস না থাকলে অন্তত ডাইরি লেখে শুরু করুন । আর ডাইরিটা লুকিয়ে রাখুন যাতে কেও না দেখে । কিছু দিন পর পর আপনি নিজে দেখলেই হবে । আমাদের এই লেখা লিখির অভ্যেস না থাকার ফলে আমরা প্রতিনিয়ত ভুলে যাই আমাদের প্ল্যান কি ছিল । ব্যাপারটা সবাই মানে কিন্তু কেও লিখে রাখতে চায় না ।

http://https://www.youtube.com/watch?v=zESeeaFDVSw

 

এতো কিছুর পরও যদি কিছু আঁকতে ইচ্ছে না করে তবে গুগল থেকে আপনি যা করতে চান তার একটা ছবি বা কার্টুন লোড করে আপনার ফেইসবুক প্রোফাইল পিকচার করে রেখে দিন । দেখবেন অনেক কাজে দিবে । আপনি ধীরে ধীরে নিজের অজান্তেই এই ছবির মতো হয়ে উঠবেন ।তবে অবশ্যই প্রাসঙ্গিক । আপনি নিজের জীবনে যা দেখেন নি তার ছবি প্রোফাইল পিকচার করে রাখলে আপনার মস্তিস্ক হাজার খুঁজলেও এর সমাধান আপনাকে দিতে পারবে না ।  ।