ক্যাটেগরিঃ গণমাধ্যম

 

দেশের গ্রামে কিংবা শহরে সবচেয়ে বেশি ভাইরাল হচ্ছে ইন্ডিয়ান সিরিয়াল। শতাংশর দিকে গেলে আমার মনে হয় ৭০ ভাগ ঘরে ঐ চ্যানেল দেখা হয়। এখন তো শুধু ঘরের মধ্যে আবদ্ধ নেই, স্টেশনের দোকানগুলোতেও চলতেছে। তার মানে শুধু মেয়েরা না, এখন ছেলেরাও পাগল ইন্ডিয়ান সিরিয়াল দেখার জন্য। ঐ সমস্ত সিরিয়াল দেখার ফলে কি হচ্ছে সেটা বলতে হচ্ছে না, কারণ বিষয়টা সবার জানা।

একটা চ্যানেলের কথা বলতে হচ্ছে- সনি আট। খুব চমৎকার প্রোগ্রাম রয়েছে ঐ চ্যানেলটিতে। সেরা সত্য ঘটনা অবলম্বনে সি আই ডি, আদালত, ক্রাইম পেট্রল, দস্তক আরো অনেক। তারা দেখায় অপরাধ কিভাবে হচ্ছে এবং তা কিভাবে সমাধান হচ্ছে, মানে অপরাধী ধরা পড়বেই।

আমারা যারা ১৮+ বছর বয়সী কি শিখতেছি? অপরাধ করতে কি প্রয়োজন, কোন পন্থা অবলম্বন করব? আমি ১০০ ভাগ গ্যারান্টি সহকারে বলতে পারবো ভালো কিছুই শিখতে পারছিনা বরং অপরাধের রাস্তা আমরা চিনে যাচ্ছি। সন্তানের বাবা যারা আছেন আপনি কি নিশ্চিত আপনার সন্তান বিষয়গুলো এড়িয়ে যাচ্ছে? আমি বলব- না। যদি হ্যাঁ হতো তাহলে অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনাগুলো দেখতে পেতাম না। তাহলে করবেনই বা কি আপনি একা, সরকার তো চ্যানেলগুলো বন্ধ করতে পারছে না।

আমার জানামতে দুইটি পন্থা এই সমস্যা কিছুটা সমাধানে আসতে পারে। এক. ইন্ডিয়ার কোন চ্যানেল বাড়িতে চলবেনা- কর্তা কথাটি বলতে পারে। দুই. ক্যাবল অপারেটররা যদি ঐ সমস্ত চ্যানেলগুলো একেবারে শেষের দিকে নিয়ে যায় তাহলে কিছুটা কাজে আসবে। ব্যবস্থাটি প্রয়োগ করলে হয়তো তাদের গ্রাহক সংখ্যা শুরুতে একটু কমতে পারে। ক্ষুদ্র অসুবিধা বৃহত্তর স্বার্থে ত্যাগ করতে হবে।

বাহার উদ্দিন রায়হান
ছাত্র- চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়