ক্যাটেগরিঃ ব্লগালোচনা

 

বিডিনিউজ২৪ ব্লগ -এর আনুষ্ঠানিক পথচলার দু’মাস অতিক্রান্ত হতে চলেছে। ইতোমধ্যে ব্লগারদের সরব উপস্থিতিতে গত ১১ই ফ্রেব্রুয়ারি ২০১১ তারিখে একুশে বইমেলার লিটিল ম্যাগ চত্বরে অনাড়ম্বর ভাবে ব্লগের উদ্বোধনী আয়োজন অনুষ্ঠিত হয়েছিল। জানুয়ারি ২০১১ থেকে বেটা ভার্সনে উন্মুক্ত বিডিনিউজ২৪ ব্লগে শুভানুধ্যায়ী ব্লগারদের পদচারণা ঘটেছিল। সেই ধারা অব্যাহত আছে আজ অব্দি। ব্লগ টিম প্রতিদিন নতুন নতুন ব্লগারদের নিবন্ধিত হতে দেখে যারপর নাই উৎসাহিত। আমরা বাংলা ব্লগস্পিয়ারের পুরনো, অভিজ্ঞ ব্লগারদের যেমন সাথে পেয়েছি, তেমনি পূর্বে ব্লগিং করেননি এমন অনেকেরও এই ব্লগের প্লাটফর্মে ব্লগার হিসেবে অভিষেক ঘটছে।

এখন বাংলা ব্লগের সংখ্যা গুণতে হাতের কড়ে শেষ হয়ে আসে। এর মাঝেও সিটিজেন জার্নালিজম বা নাগরিক সাংবাদিকতা নির্ভর এই ব্লগটি সকলের দৃষ্টি আকর্ষণে সক্ষম হয়েছে। ব্লগারদের মাঝে গড়ে উঠেছে প্রত্যাশা, দাবি, আগ্রহ, সমর্থন এমনকি ভিন্ন-অভিন্ন মতামতও। সেই থেকে এই ব্লগের ভিন্নধর্মী ফোকাস- নাগরিক সাংবাদিকতা, নতুন-পুরনো সব ব্লগারদের মধ্যেই কিছু অনুসন্ধিৎসারও জন্ম দিয়েছে। পুরনো ব্লগাররা যেখানে একটি ব্লগ প্লাটফর্মে বিবিধ বিষয়ে ব্লগিং করে অভ্যস্ত, সেখানে তাদের সেই নিয়মিত অভ্যস্ততা থেকে বিষয় ভিত্তিক ব্লগিংয়ে তারা অনেক ক্ষেত্রে দ্বিধান্বিত হয়ে উঠছেন। যেমন, অনেক অভিজ্ঞ ব্লগাররা তাদের কোন একটি লেখা বিডিনিউজ২৪ ব্লগে প্রকাশ করার আগে ব্লগ টিমের কাছে ব্যক্তিগত ভাবে জানতে চেয়েছেন, এই পোস্টটি ব্লগে দেয়া যাবে কি না? ব্লগ টিম লক্ষ্য করেছে, কেউ কেউ পোস্টের শেষে কখনো কখনো নোট যুক্ত করেছেন যে, পোস্টটি এই ব্লগের সাথে মানানসই কি না তা তারা নিশ্চিত নন। অপরদিকে ব্লগিং বিষয়ে অনভিজ্ঞ অথবা নাগরিক সাংবাদিকতা নিয়ে ইতিপূর্বে কোন বাংলা ব্লগ না থাকায় ,দ্বিধান্বিত হয়ে অনেকে ব্লগে নিবন্ধন না করে ব্লগ টিমকে ই-মেইল মারফত লেখা পাঠাচ্ছেন। এই সব প্রশ্ন-দ্বিধা-অনুসন্ধিৎসাগুলোকে নজরে এনে প্রিয় ব্লগারদের জন্য ব্লগ টিম সহজবোধ্য ভাষায় কিছু সহায়ক নির্দেশিকা সাজিয়েছে।

ব্লগে কীভাবে লিখতে হয়?

১. প্রথমেই আপনাকে ব্লগে নিবন্ধন সম্পন্ন করতে হবে। ব্লগের ‍মূল পাতার উপরে থাকা নিবন্ধন লিংকের ফর্মটিতে প্রয়োজনীয় তথ্য পূরণ করে সাবমিট করুন। আপনার প্রদত্ত ই-মেইল আইডিতে তাৎক্ষণিকভাবে একটি সয়ংক্রিয় ই-মেইল পৌঁছে যাবে (ইয়াহু ই-মেইল ব্যবহারকারীরা ইনবক্সে নতুন ই-মেইল না পেলে স্প্যামবক্সটিও দেখে নিতে ভুলবেন না)। ইমেইলে প্রদত্ত লিংকে ক্লিক করে ব্লগে আপনার এ্যাকাউন্টটিকে এ্যাকটিভেট/ভ্যারিফাই করে নিতে হবে। এটুকুতে আপনার নিবন্ধন ধাপ সম্পন্ন হয়ে যাবে। এরপর লগ-ইন করলেই আপনি ব্লগে লেখা/ছবি/ভিডিও/অডিও পোস্ট দিতে, মন্তব্য করতে, মন্তব্যের জবাব দিতে সমর্থ হবেন।

২. লগ-ইন করলে নতুন পোস্ট লিখুন অপশনটি সহজেই চোখে পড়বে একজন ব্লগারের। এছাড়া ব্লগারের নিজ নামে ক্লিক করলে ব্লগার নিজ ব্লগ অর্থ্যাৎ তার প্রোফাইল পাতায় যেতে পারবেন। প্রোফাইল পাতাতেও নতুন পোস্ট লেখার অপশন রয়েছে। একই সাথে রয়েছে ফটো/ভিডিও/অডিও যোগ করার অপশনটিও।

৩. নতুন পোস্ট সাবমিট করার পর অপেক্ষা করুন। একই পোস্ট বারবার সাবমিট করা থেকে বিরত থাকুন। ব্লগ এডিটর আপনার পোস্টটি নজরে আসা মাত্রই প্রকাশ করবেন। একই পোস্ট পর পর একের অধিক সংখ্যক বার সাবমিট হলে ব্লগ এডিটরকে পোস্টগুলোর সামঞ্জস্যতা মিলিয়ে নিতে হয় বলে আপনার পোস্ট প্রকাশে সামান্য বিলম্ব হতে পারে।

৪. বিশেষত শিরোনাম ও মূল পোস্টের বাংলা বানানের প্রতি যত্নবান থাকুন। সেক্ষেত্রে ব্লগ এডিটরের পক্ষে পোস্টটিকে দ্রুত প্রকাশ করা সম্ভব হবে।

ব্লগ নিক কি ইংরেজীতে দেয়া যাবে?

বাংলা ব্লগে আমরা অবশ্যই বাংলা বানানে ব্লগার নিকটিকে প্রদর্শিত হতে দেখতে চাইবো। আপনার নিক কি হবে তা নিশ্চিতভাবেই আপনার পছন্দ। সেটা অর্থবহ কোন বিদেশী শব্দও হতে পারে। কিন্তু ব্লগে তা আমরা বাংলা বানানে প্রদর্শিত হতে দেখতে আগ্রহী।আপনার ইউজার নেম অবশ্যই ইংরেজি বানানে হবে, কিন্তু আপনার ব্লগ নিকটিকে বাংলা বানানে প্রদর্শন করুন। যদি নিবন্ধন ফর্মের যথাযথ ঘরটিতে বাংলা টাইপে কোন সমস্যার কারণে ইংরেজি বানানে ব্লগ নিক নিবন্ধন করতে হয়, তাহলে পরবর্তীতে ব্লগ টিমকে ই-মেইলে বিষয়টি অবহিত করুন। ই-মেইলে অবশ্যই আপনার নিকটির বাংলা বানান জানাতে হবে।

ব্লগে কি ইংরেজীতে পোস্ট দেয়া যাবে?

এখন বাংলা টাইপিং বেশ সহজসাধ্য। তাছাড়া বাংলা ব্লগে ইংরেজিতে একটি সম্পূর্ণ পোস্টকে আমরা অবশ্যই নিরুৎসাহিত করবো। তবে পোস্টের ভেতরে প্রয়োজনে ইংরেজিতে কোন উক্তি/ভাষ্য/তথ্য/নাম/বর্ননা যুক্ত হতে পারে। এক্ষেত্রে ব্লগ টিম ব্লগারদের অনুরোধ করছে, যদি তারা ইংরেজির একটি অনুবাদও সাথে জুড়ে দেন তো পোস্টটি অবশ্যই বিশেষ গ্রহণযোগ্যতা সৃষ্টি করবে ব্লগারদের মাঝে।

ব্লগে কি ইংরেজিতে মন্তব্য করা যাবে?

পুরনো ব্লগারদের বাংলাতেই মন্তব্য করতে দেখা যায়। নতুন ব্লগাররা বাংলা টাইপিংয়ে অনভ্যস্তার কারণে অনেক সময় ইংরেজিতে মন্তব্য করে থাকেন। যেহেতু বাংলায় ব্লগিং সহজসাধ্য, বাংলা ব্লগে সম্পূর্ণ ইংরেজিতে পোস্টকেও বিভিন্ন ব্লগে ব্লগারদের তরফ থেকে নিরুৎসাহিত হতে দেখা যায়, সেক্ষেত্রে ইংরেজিতে মন্তব্যও নিশ্চয়ই আলোচনার স্বতঃস্ফূর্ততায় বাধার সৃষ্টি করবে। তাই বাংলায় মন্তব্য প্রদানে অভ্যস্ত হয়ে উঠতে সকলকে অনুরোধ করা যাচ্ছে। অব্শ্য যারা কখনো কখনো মোবাইল থেকে মন্তব্য করেন, তাদের জন্য বাংলায় মন্তব্য করা সম্ভব হয়ে ওঠে না। একারণেই ব্লগ টিম ইংরেজিতে মন্তব্যকে নিরুৎসাহিত করলেও ইংরেজি মন্তব্য অপ্রকাশিত রাখেনি এখন পর্যন্ত।

ফটো পোস্টের শিরোনাম কি ইংরেজিতে দেয়া যাবে?

যারা মোবাইল থেকে ফটো আপলোড করেন, তাদের পক্ষে বাংলায় ফটো পোস্টের শিরোনাম প্রদান করা সম্ভব হয় না। কিন্তু যারা ডেস্কটপ, ল্যাপটপ ব্যবহার করেন, তাঁদের অবশ্যই বাংলাতে শিরোনাম দিতে অনুরোধ করা যাচ্ছে। শিরোনামে ইংরেজি শব্দকে বাংলা বানানে লিখুন। যদিও ক্ষেত্র বিশেষে ইংরেজি শব্দ আসতেই পারে।

ব্লগে কী লিখবেন?

আগেই বলা হয়েছে এই নিয়ে অনেক নতুন-পুরনো ব্লগারদের মধ্যে সামান্য দ্বিধা কাজ করছে। পুরনো ব্লগাররা তাদের এতোদিনের ব্লগিং অভ্যস্ততার কারণেই এই ব্লগে যৎসামান্য দ্বিধার মুখে পড়ছেন। সে তুলনায় নতুন ব্লগাররা অ-নে-ক দ্রুত বিডিনিউজ২৪ ব্লগে তাদের সাবলীলতা দেখিয়েছেন। বিভিন্ন প্রশ্নের প্রেক্ষিতে এটুকু বলা যায়, নাগরিক সাংবাদিকতা নির্ভর ব্লগে আপনি যে কোন বিষয়ে লিখতে পারেন অনায়াসে। এর কারণ, নাগরিক সাংবাদিকতার পরিসর যথেষ্ট বিস্তৃত এবং সূক্ষ্ণ। তাই নাগরিক সাংবাদিকতার বৈচিত্র্যতা থেকে লেখার বিষয় নির্বাচনের দ্বায়িত্ব আপনার। ব্লগ টিম অবশ্যই ক্ষেত্র বিশেষে বা প্রয়োজনে কোন নির্দিষ্ট বিষয়ে পক্ষে-বিপক্ষে মতামত বিশ্লেষণে আপনার দৃষ্টি আকর্ষন করবে। ব্লগ টিম তাই নিয়মিত পোস্টগুলো ছাড়াও ফিচার পোস্ট, টপ পোস্ট, বিভিন্ন বাংলা ব্লগগুলোর সাম্প্রতিক পোস্টগুলো নিয়ে কমিউনিটি পোস্ট, সাম্প্রতিক খবর নিয়ে বিডিনিউজ২৪ নিউজ পোস্ট ও গ্লোবাল ভয়েসেস ক্যাটাগরিগুলোর প্রতি ব্লগারদের দৃষ্টি আকর্ষণ করছে।

ব্লগে লেখার সময় কী কী বিষয়ে খেয়াল রাখতে হবে?

আসলে ব্লগে এসে বিশেষ কোন বিষয় খেয়াল রাখতে হবে না, বরং আপনার আশেপাশে চোখকান খোলা রাখলে ব্লগে লেখার নানা বিষয় আপনার খেয়ালে ঘুরপাক খাবে নিশ্চিত। ব্লগে এসে আপনাকে কেবল সেগুলো গুছিয়ে লিখে ফেলতে হবে। আপনার এলাকায় ঘটে যাওয়া ঘটনা, আপনার শিক্ষাঙ্গন-অফিসের কোন অনিয়ম অথবা সাফল্য, চলতি পথে কোন দূর্ঘটনা, ট্যাফিক জ্যাম, দৈনন্দিন বাস যাত্রায় ঘটে যাওয়া সকালের অনভিপ্রেত অভিজ্ঞতাকে বলতে পারেন ব্লগে। আপনার মোবাইল ফোনটিকে ব্যবহার করতে পারেন ছবি তুলতে বা ঘটনার ভিডিওচিত্র ধারনে। ব্লগে শেয়ার করুন এসব ’এক্সক্লুসিভ’, এই সূক্ষ্ণ বিষয়গুলোও কিন্তু নাগরিক সাংবাদিকতার অন্তর্গত। এছাড়া বিভিন্ন পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদের কপি-পেস্ট পোস্ট নয়, বরং আপনার প্রতিক্রিয়ামূলক পোস্ট অবশ্যই কাম্য।

ব্লগে কি গল্প-কবিতা-ছড়া লেখা যাবে?

এই ব্লগের শুরুর দিকে আমরা পরীক্ষামূলক ভাবে গল্প-কবিতা-ছড়া প্রকাশ করলেও অত্যন্ত দুঃখের সাথে জানাতে হচ্ছে যে, পরবর্তী পর্যায় থেকে আমরা গল্প-ছড়া-কবিতা প্রকাশে বিরত থেকেছি। কিন্তু আমরা গল্পকার-কবি-ছড়াকারদের কোনভাবেই হারাতে চাইনা। আমরা চাইনা এই ব্লগ সাহিত্যের মত একটি গুরুত্বপূর্ণ দিক থেকে বঞ্চিত থাকুক।তাই সরাসরি একটি পূর্ণাঙ্গ গল্প-কবিতা-ছড়া প্রকাশ না করলেও আমরা চাই এই তিনটি ক্ষেত্র নিয়ে আলোচনামূলক পোস্ট আসুক ব্লগারদের কাছ থেকে। ব্লগাররা যেমন উপন্যাস/কাব্যগ্রন্থ নিয়ে রিভিউ লিখতে পারেন, তেমনি একটি বিশেষ উপন্যাস/কবিতা নিয়েও রিভিউ লিখতে পারেন। বিস্তারিত লিখতে পারেন প্রিয় লেখক/কবিকে নিয়েও। গল্প-কবিতা-ছড়া নিয়ে আলোচনার ক্ষেত্রে আপনি যেমন বিখ্যাত লেখকদের লেখাকে বেছে নিতে পারেন, তেমনি বেছে নিতে পারেন, সূত্র উল্লেখপূর্বক, আপনার সতীর্থ ব্লগারের (ব্লগার যে কোন ব্লগেরই হোক না কেন, কবিতা যে কোন ব্লগেই পোস্ট আকারে আসুক না কেন) লেখাকেও। এমনকি আপনার রচিত গল্প-কবিতা-ছড়ার প্রেক্ষাপট নিয়ে আলোচনা/রিভিউমূলক পোস্ট দিতে পারেন। ব্লগ টিম চেষ্টা করবে, সাহিত্যপ্রেমীদের জন্য ভবিষ্যতে সাহিত্য পাতা বলে একটি আলাদা পাতা প্রকাশ করার।

ব্লগে আমার লেখা প্রকাশ পাচ্ছে না কেন?

১. ব্লগ টিম অত্যন্ত বিনয়ের সাথে জানাচ্ছে যে, আমরা আপাতত গল্প-কবিতা-ছড়া প্রকাশ করছি না।

২. এক লাইনের পোস্ট, যা কোন আলোচনার সূত্রপাত ঘটাবে না বলে ব্লগ টিম মনে করে, সেগুলো প্রকাশ করা হয় না কোন কোন ক্ষেত্রে। অবশ্য পরিস্থিতি বিবেচনা করে, এক লাইনের পোস্ট প্রকাশ করেছে ব্লগ টিম। যেমন কিছুদিন পূর্বে ঘটে যাওয়া, ভূমিকম্পের সময় এক লাইনের একটি পোস্ট প্রকাশিত হয়েছিল। ক্রিকেট বিশ্বকাপ ২০১১ -এ চলতি খেলার স্কোর নিয়েও এক লাইনের পোস্ট প্রকাশ করেছে ব্লগ টিম।

ব্লগে আমার লেখা দেরীতে প্রকাশ পাচ্ছে কেন?

১. পোস্ট প্রকাশের পূর্বে ব্লগ এডিটর পোস্টের বিষয়বস্তু দেখে নিয়ে পোস্ট প্রকাশ করেন। এক্ষেত্রে শিরোনাম ও মূল পোস্টে বানান দেখে নেয়ার কাজটিও ব্লগ এডিটর সথাসম্ভব করে থাকেন। তাই ক্ষেত্র বিশেষে, যেমন একটি দীর্ঘ পোস্টের ক্ষেত্রে, পোস্ট দেয়ার পর তা সামান্য সময় নেয় প্রকাশিত হতে।

২. একই লেখক একই অথবা বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কিছুক্ষণ পর পর পোস্ট সাবমিট করলে, ব্লগের মূল পাতার বৈচিত্র্য রক্ষার্থে তার সব পোস্টকে তাৎক্ষণিকভাবে প্রকাশ করা হয় না। সামান্য সময় নিয়ে পরবর্তীতে একে একে তা প্রকাশ করা হয়।

৩. কখনও কখনও গুরুত্বপূর্ণ কিছু পোস্টকে দৃষ্টি আকর্ষণে ফিচার পোস্ট করার অভিপ্রায়ে তা প্রকাশে সামান্য দেরী করতে পারে ব্লগ টিম।

৪. বিশেষ পরিস্থিতি বিবেচনা করে কোন বিশেষ বিষয়ে ব্লগারদের বিভিন্ন পোস্টকে স্বাগত জানিয়ে চলমান আলোচনাকে ধরে রাখতে অন্য কোন ব্লগারের সম্পূর্ণ ভিন্ন বিষয়ের পোস্টকে তাৎক্ষণিকভাবে অপ্রকাশিত রাখতে পারে ব্লগ টিম। এতে যেমন বিশেষ সময়ে একটি চলমান আলোচনার স্রোত বজায় রাখা সম্ভব, একই সাথে ওই পোস্টটির সম্ভাব্য আবেদন হারানো এড়ানো সম্ভব বলে ব্লগ টিম মনে করে। কারণ ব্লগ টিম চায় না ব্লগারদের কোন পোস্টই সম্পূর্ণভাবে আলোচনা বাইরে থেকে যাক।

৫. কিছু কিছু পোস্টের ক্ষেত্রে ব্লগ টিম যথাসম্ভব চেষ্টা করে, লেখাটির সূত্র/মৌলিকতা যাচাই করে নিতে। সেক্ষেত্রেও লেখা প্রকাশে সামান্য দেরী হতে পারে।

ব্লগিং করতে গেলে টুকিটাকি আরো কিছু কি খেয়াল রাখতে হবে?

হ্যা। এই যেমন,

১. অ-তি দী-র্ঘ শিরোনামের পোস্ট প্রদান থেকে বিরত থাকুন।

২. শুধুই শিরোনাম, মূল পোস্টে কিছু লেখা নেই, এমন পোস্ট প্রদানে বিরত থাকুন। অবশ্য জরুরী কোন পরিস্থিতিতে এমন পোস্ট গ্রহণযোগ্য হতে পারে।

৩. বানানের প্রতি যত্নশীল থাকুন।

৪. ব্লগ সামাজিক যোগাযোগের অন্যতম প্লাটফর্ম। ব্লগ টিম কেবল মাত্র সহযোগী, ব্লগের মূল প্রাণ আসলে ব্লগাররাই। ব্লগিংকে প্রাণবন্ত করতে পোস্ট দেয়ার পাশাপাশি সহ-ব্লগারদের পোস্টে মন্তব্য প্রদান করুন, মন্তব্যের জবাব দিন। নাগরিক সাংবাদিকতা কেবল পোস্ট দিয়েই সম্পন্ন হয় না। আলোচনা বা নাগরিক প্রতিক্রিয়াও সফল নাগরিক সাংবাদিকতার অন্তর্গত। তাই পোস্ট অথবা মন্তব্যে সহ-ব্লগারদের প্রতিক্রিয়া-যুক্তি-তথ্য নিয়ে আলোচনায় নিজেকে সম্পৃক্ত করুন।

৫. কোন প্রকাশিত সংবাদের প্রেক্ষিতে আপনার মতামত-প্রতিক্রিয়া জানানোর সময় পোস্টের মাঝে বা শেষে অবশ্যই সেই সংবাদের সূত্র উল্লেখ করবেন, । এমনকি কারো কোন উদ্ধৃতি , ছবি ব্যবহারেরও সূত্র উল্লেখ করতে সচেতন থাকুন। আপনি অন্য কোন ব্লগ থেকে বা আপনার সহ-ব্লগারের কোন লেখা কপি-পেস্ট করলেও অবশ্য অবশ্যই সূত্র উল্লেখ করবেন।

৬. আপনার পোস্টটি প্রকাশের পর পোস্টের লিংক বন্ধু-বান্ধব-পাঠকের সাথে শেয়ার করুন।

৭. আপনার নিজের পোস্ট অথবা সহ-ব্লগারদের পোস্টকে বিডিনিউজ২৪ ফেসবুক গ্রুপে শেয়ার করতে পারেন।

এই ব্লগ সহায়িকাটি প্রাথমিক ভাবে ব্লগারদের অনেক বিষয় নিয়ে দ্বিধার নিরসন ঘটাবে বলে ব্লগ টিম আশা করছে। আমরা আগামীতে আরো বিস্তারিত ভাবে ব্লগ সহায়িকা প্রদান করার চেষ্টা করবো। ব্লগ সংক্রান্ত যে কোন বিষয়ে ইমেইল করুন- blog.bdnews24.com@gmail.com

শুভেচ্ছা।

বিডিনিউজ২৪ ব্লগ টিম