চাঁদের আলোয় স্বাধীনতা স্তম্ভ

/

slide

"চাঁদের আলোয় স্বাধীনতা স্তম্ভ" "এবারের সংগ্রাম মুক্তির সংগ্রাম,এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম"--> ঐতিহাসিক রেসকোর্স ময়দান, ৭ই মার্চ, ১৯৭১ বঙ্গবন্ধুর দ্বীপ্ত উচ্চারণের মধ্যে দিয়ে বাংলার মানুষ একটি নতুন দেশের স্বপ্ন দেখতে থাকে। এর ঠিক ১৯ দিন পর ২৬শে মার্চ ঘোষিত হয় বাংলার স্বাধীনতা। তারপর দীর্ঘ ৯ মাসের রক্তক্ষয়ী যুদ্ধ, ৩০ লক্ষ শহিদের প্রাণ ও অনেক মা-বোনের ইজ্জতের বিনিময়ে ১৬ই ডিসেম্বর'১৯৭১ বাঙ্গালি পায় একটি স্বাধীন দেশ,নাম তার বাংলাদেশ। সেই হিসাবে অতীতের রেসকোর্স ময়দান বা বতর্মানের সোহরাওয়ার্দী উদ্যান একটি বিশেষ গুরুত্ব লাভ করে। সুতরাং ঐতিহাসিক ৭ই মার্চ ও ১৬ই ডিসেম্বর'১৯৭১কে স্মরণ রাখতে স্থপতি কাশেফ চৌধুরির নকশা নিয়ে ইস্পাতের কাঠামো ও কাঁচের উপর কাঁচ বসিয়ে তৈরি হয় ১৫০ফুট উচ্চতার এ স্বাধীনতা স্তম্ভটি। গত ১৪ই ফেব্রুয়ারি আমার প্রাইমারী স্কুল পড়ুয়া বাচ্চাদের কে বাংলাদেশের স্বাধীনতার ইতিহাস সম্পর্কে জানানো এবং ঐতিহাসিক গুরুত্বপূর্ণ স্থানটি স্ব-শরীরের দেখানোর জন্য নিয়ে যাই এই স্তম্ভের পাদদেশে। চাঁদনী রাতের আলোয় স্বাধীনতা স্তম্ভকে তখন অসাধারণ দেখাচ্ছিল। স্বাধীনতা স্তম্ভের পাদদেশে বিছানো লক্ষ লক্ষ পাথর গুলো যেন ৩০ লক্ষ শহিদের প্রতিনিধিত্ব করছিল। আহা! অসাধারণ সেই অনুভুতি।

ক্যাটেগরিঃ ফটো ২০৬

চাপালিশ গাছ

/

রাঙ্গামাটির ডি সি বাংলো পার্কে ৩০০ বছরের পুরানো চাপালিস গাস ।

ক্যাটেগরিঃ ফটো ৩৯৫