ক্যাটেগরিঃ আন্তর্জাতিক

 

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ নেওয়ার পর কার্যত প্রথম কর্মদিবসেই ডোনাল্ড ট্রাম্প সংবাদমাধ্যমের সাথে চরম বৈরীতা ও বিদ্বেষ সৃষ্টির পথ বেছে নিয়েছেন। ঢালাওভাবে তিনি সাংবাদিকদের পৃথিবীর সবচেয়ে ‘অসৎ মানুষদের’ শ্রেণিভুক্ত করার দৃষ্টতাও দেখিয়েছেন। ট্রাম্প প্রশাসনের যাত্রা শুরু হয়েছে প্রেসিডেন্ট ও তার দপ্তরের সাংবাদিকদের চরিত্রহরণের মাধ্যমে। বিশ্বের সংবাদমাধ্যমগুলো ট্রাম্প প্রশাসনের এ নেতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গিকে গুরুত্বের সাথে গ্রহণ করবে এতে সন্দেহের কোন অবকাশ নেই।

প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প যুক্তরাষ্ট্রের কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা (সিআইএ)এর কর্মকর্তাদের সঙ্গে সভা করেন যাদের নিয়ে তীব্র সমালোচনামূখর ছিলেন তিনি। বোদ্ধামহলের অতিরিক্ত নজর ছিল প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের এ সভা ও মিডিয়া সেলের ব্যাখ্যা বিশ্লেষণের উপর। প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প মার্কিন সংবাদমাধ্যমগুলোকে হাস্যস্পদ করে তুলেছেন। প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের দাবি এতটাই অসার ও পক্ষপাতদুষ্ট যে, সব সংবাদমাধ্যমই গত শুক্রবার তাঁর শপথ নেওয়ার দিন লোকসংখ্যা নিয়ে ভুল তথ্য দিয়েছে মর্মে অভিযোগ করতে ছাড়েননি তিনি।

অসততার জন্য সাংবাদিকদের মূল্য দিতে হবে বলেও তিনি হুশিয়ারী উচ্চারণ করেন। শপথ নেওয়ার দিন লোকের সমাবেশ নিয়ে মত পার্থক্য হলেও মূলত ডোনাল্ড ট্রাম্প সাংবাদিকদের উপর চরম ক্ষিপ্ত ছিলেন। সাংবাদিকদের ভুল ত্রুটি হতে পারে কিন্তু তাদের নীতি, নৈতিকতার বিরুদ্ধে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প যে ভাষায় তার প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছেন তা বিশ্বে নজিরবিহীন এবং অপেশাদারীত্বের উৎকৃষ্ট নমুনা।

বাংলাদেশ প্রেসক্লাব অব আলবার্টা মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এর বক্তব্যটি আশু প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছে।

লেখক: বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, কানাডা ইউনিট কমান্ডের অন্যতম নির্বাহী ও বাংলাদেশ প্রেসক্লাব অব আলবার্টার সভাপতি।