ক্যাটেগরিঃ অর্থনীতি-বাণিজ্য

 

খাদ্য হল মানুষের বেঁচে থাকার অপরিহার্য উপাদান। তাই খাদ্যে কোন প্রকার ক্ষতিকর উপাদান থাকলে তা মানুষের শরীরে রোগ ব্যধি সৃষ্টি করে। তাই আমাদের খাদ্য উৎপাদনের ক্ষেত্রে খাদ্যটি যাতে পুষ্টিগুন সম্পন্ন হয় এবং সম্পূর্ন জীবানুমুক্ত হয় সেদিকে নজর রাখতে হবে। বর্তমানে দৈনন্দিন বহু খাবার আমরা খাচ্ছি যেগুলো অস্বাস্থ্যকর এবং অপুষ্টিকর।

আমাদের বাজারে অতি চাহিদা সম্বলিত অনেক অস্বাস্থ্যকর খাবার রয়েছে। যেমন – ফুসকার পাপড়,  খোলা সেমাই, খোলা বনরুটি, খোলা টোস্ট, নন ব্র্যান্ড খোলা ও প্যাকেটজাত বিস্কুট, অস্বাস্থ্যকর নোংড়া পরিবেশে তৈরি মিষ্টি ও দই তেতুলের সস, ভেজাল তেল ইত্যদি।

এ সকল খাদ্য পণ্য যেহেতু বেশ কিছুদিন সংরক্ষণ করে খাওয়া হয়, তাই যদি এগুলো হাতের স্পর্শে তৈরি করা হয়, তবে তা জীবানুমুক্ত থাকেনা। আর খোলাভাবে বাজারজাতকরণের কারনে এই সকল খাদ্যদ্রব্যে সহজে ধুলিকনা ও রোগজীবানু মেশে। দীর্ঘদিন ব্যবহারে কোন খাদ্যের সেলফ লাইফ বা গুনগত মান নষ্ট না হয় সেজন্য সকল খাদ্য উৎপাদনে মান নিয়ন্ত্রন অত্যাবশ্যক।

বাংলাদেশের কোন কোন ছোট নিম্নমানের কারখানায় ফুসকা, পাউরুটি, সেমাই  ইত্যাদির ডো শ্রমিকেরা খোলা পা দ্বারা পাড়ায়ে তৈরি করে। এ সকল কারখানা বিএসটিআই এর চোখের অগোচরে এভাবে অস্বাস্থ্যকর খাদ্য তৈরি করছে। বাংলাদেশে যে সকল খাদ্যপণ্য বাজারজাতকরণ ও ক্রয়ের জন্য বাধত্যামূলক বিএসটিআই এর সার্টিফিকেশন মার্কস থাকতে হয় সেগুলি নিম্নরুপ:

 

Screenshot_2017-07-08-16-00-41

ছবি সূত্র: www.bsti.gov.bd

উপরোক্ত ছবির মধ্যে 29. ও 31 নং খাদ্যপণ্য নয়। বাংলাদেশে একটা বিষয় লক্ষ্যনীয় যে, আমরা বাজার থকে প্রাপ্ত যে বোতলজাত সরিষার তেলগুলো খেয়ে থাকি তার একটি কম্পানির সরিষার তেলের সাথে অন্য কোম্পানির সরিষার তেলের স্বাদের পার্থক্য রয়েছে। কোনটার ঝাঁঝ বেশি আবার কোনটার ঝাঁঝ কম। ঝাঁঝ বেশি হওয়ার কারন অসাধু ব্যবসায়ীরা কেমিক্যালের দ্বারা কৃত্রিমভাবে ঝাঁঝ তৈরি করেছে। আর ঝাঁঝ  স্বাভাবিকের চেয়ে কম হওয়ার কারণ অসাধু ব্যবসায়ীরা কমমূল্যে মেয়াদ উত্তির্ন সরিষা সংগ্রহ করে তা হতে তেল বের করছে। অসাধু ব্যবসায়ীরা এ সকল অস্বাস্থ্যকর ও নিম্নমানের পণ্য তৈরি করেও মোটা অংকের ঘুষের বিনিময়ে বিএসটিআই এর অসাধু কর্মকর্তাদের সহায়তায় বিএসটিআই অনোমোদন প্রাপ্ত হচ্ছে।

বাংলাদেশের বাজারে যত ধরনের চিপস পাওয়া যায় তার ৯৯% চিপসই শিশু ও কিশোর কিশোরীরা খায়। আর এই সকল চিপস এর স্বাদবর্ধক মূল উপাদান হল মনোসোডিয়াম গ্লুটামেট বা প্রচলিত নামে টেস্টি সল্ট   এর রাসায়নিক সংকেত C5H8No4Na। মনোসোডিয়াম গ্লোটামেট একটি নিরব ঘাতক। এটি খেলে মাথা ব্যাথা, অস্থিরথা, অতিরিক্ত ঘামা, অসাড় হয়ে পড়া, হৃদকম্পন, বুক ব্যাথা, বমি বমি ভাব ইত্যাদি উপসর্গ দেখা দেয়। এ সকল ক্ষতিকর দিক থাকা সত্ত্বেও এদেশের সকল কোম্পানির ব্যবসায়ীরা তাদের চিপস এ মনোসোডিয়াম  গ্লুটামেট (টেস্টি সল্ট) অধিক পরিমানে মিশিয়ে স্বাদ বৃদ্ধি করছে। এছাড়া বাজারে যে সকল ফ্রুট জুস বা স্কোয়াস পাওয়া যায় তার অধিকাংশই ফলের নির্যাসবিহীন কৃত্রিম রং, ফ্লেভার ও প্রিজারভেটিভ দ্বারা তৈরি। যা খেলে শিশুদের কিডনিতে ক্ষতিকর প্রভাব ফেলে।

বাংলাদেশে কোন উৎপাদিত পণ্যের জন্য বিএসটিআই এর ছাড়পত্র ও লাইসেন্স প্রাপ্তির প্রক্রিয়া:

  • কোন পন্য উৎপাদনকারী, প্যাকেটজাতকারীপ্যাকেটজাতকারী প্রতিষ্ঠানের  বিএসটিআই এর Certification Marks বা CM  লাইসেন্স প্রাপ্তির জন্য bsti কর্তৃক প্রদানকৃত নিধারিত আবেদন ফরম সঠিকভাবে পূরণ করে বিএসটিআই এর কার্যালয়ের নির্ধারিত ‘ওয়ান স্টপ সার্ভিস সেন্টার’ এ প্রয়োজনীয় সকল কাগজপত্রাদি ও আবেদন ফিসহ জমা দিতে হবে।
  • দরখাস্তের সাথে নিম্নে উল্লেখিত কাগজপত্র সংযুক্ত করতে হবে।
  • i). কারখানা বা উৎপাদনকেন্দ্রের নিজস্ব নাম ঠিকানা সম্বলিত বৈধ ট্রেড লাইসেন্স
  • ii). রেজিস্টার্ড ট্রেড মার্কস
  • iii).  আয়কর পরিশোধের অনুলিপি
  • iv). কারখানার স্পেশিফিকেশন ও লে-  আউট
  • v). কারখানায় ব্যবহৃত যন্ত্রপাতি এবং যানবহনের তালিকা
  • vi). কারখানায় নিযুক্ত সকল কর্মচারী এবং শ্রমিকের স্বাথ্যগত সনদপত্রের বিবরন
  • vii).  খাদ্যপণ্য উৎপাদনকারী কারখানার জন্য Premises লাইসেন্স।
  • viii). কারখানার ল্যাবের যন্ত্রপাতির তালিকা
  •  ix). ল্যাবে নিয়োজিত পরীক্ষকদের জীবজীবনবৃত্তান্ত
  • x).   খাদ্যপণ্যের ক্ষেত্রে উৎপাদন প্রক্রিয়ার ফ্লো-চার্ট।
  • xi).   “প্যাকেজ কমোডিটিজ রুলস্ ২০০৭” অনুসারেঅনুসারে উৎপাদিত পণ্যের বিবরন ও ফয়েল মোড়ক অথবা লেবেলের স্যাম্পল।

জমাকৃত আবেদনপত্র এবং সকল কাগজপত্রাদি পর্যবেক্ষনের পর সরকারি বিধি মোতাবেকমোতাবেক কারখানা পরিদর্শনে পরিদর্শক পাঠানো হয়। পরিদর্শক যে যে বিষয় পর্যবেক্ষন করে তা নিম্নরুপ:

১). পণ্য উৎপাদনের সকল কাচামালসমুহ
২). উৎপাদন প্রক্রিয়ার ধাপসমুহ
৩). পরীক্ষাগার ও পরীক্ষার প্রক্রিয়া
৪). স্বাথ্যগত দিক, পরিচ্ছন্নতা, হাইজিন ও স্যানিটেশন ব্যবস্থা।
৫). উৎপাদিত পণ্যের সংরক্ষন প্রক্রিয়া
৬). পরীক্ষাগারে নিয়োজিত সকল ব্যক্তিদের দক্ষতা ও যোগ্যতার তথ্য।

পরিদর্শক যদি কারখানার সমস্ত কার্যক্রম সন্তোষজনক দেখেন তখন তিনি কারখানার উৎপাদিত কয়েকটি ভিন্ন ব্যাচের পণ্যের নমুনা, মজুদকৃত পণ্য হতে সংগ্রহ করে কারখানার কর্তৃপক্ষ ও পরিদর্শকের যৌথ সাক্ষরে সীলগালা করেন।  এভাবে সীলগালাকৃত একাধিক নমুনা বিএসটিআই এর পরীক্ষাগারে পরীক্ষার জন্য ফিসহ একটি চিঠি লিখে বিএসটিআই -তে পাঠানো হয়।

কোন কারখানার উৎপাদিত পণ্যের নমুনা যদি বিএসটিআই এর পরীক্ষায় উত্তির্ন হয় তবেই বিধি মোতাবেক ঐ পণ্যটির অনুকূলে ৩ বছর মেয়াদী বিএসটিআই Certification Marks (CM) লাইসেন্স প্রদান করা হয়। কোন লাইসেন্স প্রদানকারী পন্যের গুনগতমান ধারাবাহিকভাবে বিএসটিআই এর স্ট্যান্ডার্ড অনুযায়ী সঠিক আছে কিনা তা জানার জন্য ১৫ দিন অন্তর কিছু নমুনা বিএসটিআই পরীক্ষাগারে প্রেরন করতে হয়।

এতক্ষন আমরা আলোচনা করলাম উৎপাদিত কোন পন্য কিভাবে বিএসটিআই এর সনদপ্রাপ্তি লাভ করে। কিন্তু আলোচিত বিষয় হলো উপরোক্ত যে সকল বিষয় বিএসটিআই পর্যবেক্ষন করেন তার সবকটি সঠিকভাবে বাংলাদেশের কোন কারখানায় থাকে না। অনুমোদন পাওয়ার সময় পণ্য উৎপাদনের কাঁচামালের যে নমুনা পরিদর্শকদের দেখানো হয় সেটি থাকে উচ্চমানের কাঁচামাল। পরবর্তীতে বিএসটিআই অনুমোদন প্রাপ্তীর পর অসাধু ব্যবসায়ীরা অধিক মুনাফা লাভের আশায় নিম্নমানের কাঁচামাল ব্যবহার শুরু করে। অন্যান্য যে সকল ত্রুটি যেমন, অপরিচ্ছন্ন পরিবেশ, অদক্ষ কর্মচারী, নিম্নমানের যন্ত্রপাতি ইত্যাদি ত্রুটি থাকা সত্ত্বেও অসাধু ব্যবসায়ীরা বিএসটিআই এর অসাধু কর্মকর্তাকে মোটা অংকের ঘুষ প্রদান করে বিএসটিআই এর সনদ এবং অনুমোদন লাভ করে।

উৎপাদিত পণ্যের গুণগতমান সঠিক রাখার জন্য বিএসটিআই কে যে সকল বিষয় নিয়ন্ত্রন করে হবে:

  • কারখানার সর্বস্থানের হাইজিন ও স্যানিটেশন নিশ্চিতকরণ
  • ফুড মাইক্রোবায়োলজী বিশেষজ্ঞ দ্বারা উৎপাদিত পণ্যের জীবানুর উপস্থিতি পরীক্ষাকরণ
  • ফুড পয়জনিং নিয়ন্ত্রন
  • ফুড কয়ান্টামিনেশন্ নিয়ন্ত্রন
  • ফুড ইনটক্সিকেশন নিয়ন্ত্রন
  • ফুড সেফটি নিশ্চিতকরণ
  • খাদ্যের গুণগত মান অপরিবর্তিত রেখে খাদ্য সরক্ষন
  • খাদ্যের পুষ্টিমান বিশ্লেষণ

খাদ্যপণ্যের পুষ্টিগুণ সঠিক না হলে এবং খাদ্য জীবানুমুক্ত না হলে তা অস্বাস্থ্যকর খাদ্য হয় এবং ঐ খাদ্য গ্রহন করলে রোগ ব্যাধির সৃষ্টি হয়। তাই খাদ্য উৎপদনকারী প্রতিষ্ঠান যদি অসাধু হয় এবং অস্বাস্থ্যকর খাদ্য যদি বাজারজাত করে তা একটি দেশের মানুষের জন্য ক্ষতিকর।