ক্যাটেগরিঃ আইন-শৃংখলা

 

প্রতিনিয়ত এবং অনবরত যেন নিয়মে পরিণত হয়েছে বা যেন চিরাচরিত ঘটনায় পরিনত হয়েছে । এত মানবতার বিপর্যয় প্রতিটি মানব হুদয়কে যেন ধিক্কার দিয়ে চলেছে । একটি মানবাধিকার লংঘনের ঘটনার রেশ শেষ হতে না হতেই আরেকটি বিভৎস ভয়াবহ আরো নতুন করে ঘটনার সূত্রপাত হয় । কে কার জন্য কোথায় কার কাছে বিচারের জন্য আর্তনাদ করবে মানুষগুলো । ঘটনা ঘটেই চলেছে কোনটার সুষ্ঠু এবং সিদ্ধান্তমূলক বিচার ও শাস্তি হয়েছে বলে মনে করতে পারিনা ।

অথচ রাজন হত্যা, ফারুক হত্যা, র্ধষণ, দম্পতিকে কুপিয়ে হত্যা, ছুরিকাঘাত করে ছিনতাই, জখম, প্রতিদিনকার ঘটনা, মিডিয়া নিউজ, পেপার অনলাইন পেপার, সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম, ব্লগ কোথায় নেই এমন ঘটনার খবর । তারপরও কারও কোন ভ্রুক্ষেপ নেই যেন এ ঘটনার কি সুরাহা হতে পারে । কে বিচার করবে কাউকে যেন খোঁজে পাওয়া বড় মুশকিল । যাদের এত বড় পবিত্র দায়িত্ব পালন করার কথা তাদের কথা শুনলে মনে হয় সব কিছুই সুন্দরভাবে চলছে, আশার বাণী শুনাতে , প্রক্রিয়াধীন, বিচারের কাজ দ্রুত এগিয়ে চলছে, নিরেপেক্ষ তদন্তের স্বার্থে প্রকাশ করা যাবেনা বা আপাতত গোপন রাখা হচ্ছে, তদন্তে অনেক অগ্রগতি হয়েছে এরকম আশার আলোর মন্তব্য ও বক্তব্যগুলো শোভা পায় প্রতি নিয়ত ।অথচ যারা দোষী তাদেরকে ধরে কিছুদিন আটকে রাখে তারপর শেষপর্যন্ত তাদের শাস্তি হয় কিনা তার খবর পরে আর কেউ রাখে না ।

বর্বরতা, পাশবিকতা, অমানবিকতা এ অমানবিক মূল্যবোধগুলোই মানুষ নামের নরপশুদের মানসিকতায় রাজত্ব করে চলেছে যার কারনে খুন, হত্যা, র্ধষণ, ছিনতাই, ডাকাতি, এগুলো দিনের পর দিন মহামারী আকারে বৃদ্ধি পাচ্ছে চক্রাকারে । খুব জানতে ইচ্ছে করে এমন পাশবিক অমানুষগুলোর কে বিচার করবে? কারা বিচার করবে? আদৌ কি কোন শাস্তি হবে তাদের? মানুষ হিসাবে প্রতিটি মানুষের চাওয়া হোক দোষী ব্যক্তিদের চিহ্নিত করে এবং তাদের শাস্তি নিশ্চিত করে যেন অন্তত কলুষিত মানবতার মনকে জাগ্রত করে এবং রক্ষা করে ।