ক্যাটেগরিঃ ধর্ম বিষয়ক

 

সাম্প্রতিক ঈশ্বরদীতে ব্যাপটিস্ট চার্চের প্যাস্টর লুক সরকারকে হত্যার চেষ্টা নিঃসন্দেহে ভয়ংকর ঘৃনিত এবং একটি গনতান্ত্রিক বিপর্যয়ের ঘটনা, যা গ্রহন করা যায় না। আরো মানা যায়না কিছু ভুল পদবি লিখে সংবাদ মাধ্যমগুলোতে সংবাদ প্রচার এবং তা  মানা আমার জন্য বা আমার মত কিছু খৃষ্টানদের জন্য  অনেক কঠিন। অনেক সংবাদ মাধ্যমগুলোতেই উনাকে চার্চ বা গির্জার ফাদার নামে অভিহিত করা হয়েছে।

images (5)
আমি শুধু খৃষ্টানদের বিশেষ করে ফাদার, ব্রাদার, সিস্টার আর মাদার ব্রতধারী আর ব্রতধারিনীদের নিয়ে কিছু সাধারন তথ্য তুলে ধরতে চাই। সারা পৃথিবীর মত বাংলাদেশের খৃষ্টানদের মধ্যেও কয়েকটি বিভাজন রয়েছে যেমনঃ ব্যপ্টিস্ট বা প্রটেষ্টান, চার্চ অব বাংলাদেশ সেভেন এডভান্টেজ, ক্যাথলিক বা রোমান ক্যাথলিক ইত্যাদি। অনেক খৃষ্টান বিশেষ করে প্রটেষ্টান বা ব্যাপটিস্ট তারা আমার সাথে ভিন্ন মত পোষন করতে পারেন, তবে সারা পৃথিবীতে যেটা প্রচলিত সেটাই আমি খুব অল্প কথায় তুলে ধরছি। আমি শুধু রোমান ক্যাথলিকদের ফাদার, ব্রাদার, সিস্টার, মাদার কাদেরকে বলে সেটাই বলছি।

যারা সন্যাসব্রত গ্রহণ করে সংসারি হয়না, বিয়ে করেনা, নিজের জীবনকে অন্যদের সেবার জন্য উৎসর্গ করেন তারাই এ উপাধিতে ভূষিত হন। খুব সহজ বিষয় না, মুখে বললেই তা হয় না। আমি একজন ফাদার কিভাবে হয় তা সংক্ষেপে বর্ননা করছি। রোমান ক্যাথলিক অনুসারে কেউ যদি ফাদার হতে মনস্থ করেন বা ফাদার হিসাবে সন্যাস ব্রত গ্রহন করতে মনোনিবেশ করেন তাহলে সপ্তম শ্রেনী বা মেট্রিক পরীক্ষা দেয়ার পর শুরু করতে হয় অর্থাৎ সেমিনারিয়ান হতে হয় একটি নির্দিষ্ট সেমিনারিতে।

আমি ময়মনসিংহের কথা লিখছি। ময়মনসিংহের মানে শেরপুর জামালপুর নেত্রকোনা টাংগাইল ময়মনসিংহ এ এলাকার কোন খৃষ্টান যদি ফাদার হতে চান,  প্রথমে তাকে মধুপুর টাংগাইলে অবস্থিত মিশনে কমপক্ষে এক বছর মেট্রিক পাশের পর থাকতে হবে আর যদি সপ্তম শ্রেনী থেকে শুরু করেন তাহলে মেট্রিক পাশ না করা পর্যন্ত সেখানকার সেমিনারিতে থাকতে হয়। বলে রাখি যে ডিগ্রী পাশ ছাড়া ক্যাথলিকদের কোন ফাদার হতে পারেনা। সে অন্যদের নিঃস্বার্থভাবে সেবা করবে সুতরাং সব দিক দিয়েই তাকে পটু হতে হয়।
images (1)
তারপর ময়মনসিংহে ক্যাথিড্রাল এ অর্থাৎ ময়মনসিংহ সেমিনারিতে তাকে একটি নির্দিষ্ট কলেজে র্অথাৎ ময়মনসিংহ নটরডেম কলেজে এইচএসসি সম্পন্ন করতে হয়। সেমিনারিতে থাকাকালে সব কাজ নিজের করতে হয় আর প্রতিদিন সকাল সন্ধা ৬টায় প্রার্থনা করতে হয় আর অনেক নিয়ম থাকে। সামান্যতম নিয়মের বিচ্যুতি ঘটলে অবহেলা করলে সে আউট হয় অর্থ্যাৎ আর ফাদার হতে পারবে না।

তারপর ঢাকার রমনার নটরডেম কলেজে ডিগ্রী সম্পন্ন করতে হয় রমনা সেমিনারিতে থেকে। সম্প্রদায় ভেদে অন্য মিশন যেমন আসাদগেইট ব্রাদার হাউজ বা অন্যখানেও থাকে। এরপর বনানি মেজর সেমিনারিতে কমপক্ষে ৩ বছরের থিওলজি ও দর্শন শাস্ত্র ফলপ্রসূভাবে সম্পন্ন করতে হয়। তা না হলে সে ফাদার হওয়ার যোগ্যতা অর্জন করতে পারে না।
images (2)
তারপর আরো কিছু নিয়ম থাকে, সেগুলো শেষ করতে হয় তারপর তারা সাদা পোষাক পাওয়ার যো্গ্যতা অর্জন করেন। পোষাকের মধ্যেও ভিন্নতা বা ধাপ রয়েছে। তখন তাদেরকে ব্রাদার বলা হয়ে থাকে। এরপর কিছু ধাপ পেরিয়ে ডিকন লাভ করে। তারপর আরেক ধরনের কাঁধে ঝুলানোর জন্র্য ফিতার মত বেল্ট এর অধিকারি হন। তারপরও উনারা উপাসনা পরিচালনার যোগ্যতা অর্জন করতে পারেন না। তারপর আবার কিছু ধাপ, বছরখানেক পার করে ফাদার পদে অভিষিক্ত হতে হয় বিশপ এর মাধ্যমে। তখন মহা সমারোহে যার যার মিশনে তা গ্রহন করা হয় । বিশপ হলো ফাদারদের চেয়ে বড়। তারপর আর্চ বিশপ যিনি রমনাতে থাকেন, একজনই বাংলাদেশে।

সিস্টারদেরও একই প্রক্রিয়া এবং সিস্টারদের বড় হলো মাদার। উনারা পরিবার আত্মীয় সংসার সবকিছু ত্যাগ করে নিজের জীবনকে নিবেদিত করে। বিয়ে করেন না উনারা। এটি একটি পবিত্র ব্রত। অনেক ত্যাগ তিতিক্ষার পর অনেক সাধনার পর অর্জন করতে হয়।

download
সুতরাং, যাকে-তাকে ফাদার বলাটাকে গ্রহন করা কঠিন বিষয়।  আমার জানা মতে চার্চ অব বাংলাদেশের ফাদার, সিস্টার থাকে, কিন্তু তারা বিয়ে করে । বাংলাদেশে যে ভাল ভাল নামি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো খৃষ্টানদের রয়েছে তার প্রায় সবগুলোই রোমান ক্যাথলিকদের ফাদার, ব্রাদার আর সিস্টারদের দ্বারা পরিচালিত। যেমনঃ নটরডেম কলেজ হলিক্রস কলেজ, সেন্ট গ্রেগরি, সেন্ট যোসেফ, গ্রীন হেরাল্ড, সেন্ট প্লাসিড বটমূলি আরো অনেক। ফাদার বা সিস্টার বললেই সাধারনত যারা সন্যাসব্রতধারী বা ব্রতধারিনী সংসার ধর্ম পালন করে না, বিয়ে করেনা মানুষের সেবার জন্য নিজের জীবনকে উৎসর্গ করে তারদেরকেই বলে। অন্য খৃষ্টান সম্প্রদায় কিভাবে ফাদার উপাধি গ্রহন করে আমার জানা নেই।

images (4)

ভুল করে ফাদার বলে কাউকে উপাধি দিলে তা গ্রহন করতে কষ্ট হয়। ফাদারদের অসম্মান করা হয় বলে আমি মনে করি। ফাদার, বিশপ, সিস্টার আর মাদারদের কিছু ছবি দিচ্ছি যা সব রোমান ক্যাথলিকদের। মাননীয় পোপের ছবিও সংযুক্ত করছি।