ক্যাটেগরিঃ ক্যাম্পাস, ফিচার পোস্ট আর্কাইভ

 

সুন্দরবন রক্ষার আন্দোলন জনগণের অংশগ্রহণ ও পৃষ্ঠপোষকতায় চলছে বলে মন্তব্য করেছেন করেছেন তেল-গ্যাস-খনিজ সম্পদ ও বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটির সদস্য সচিব অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ।

শনিবার সংবাদ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার তোলা এক প্রশ্নের জবাবে রোববার জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে এক আলোচনা সভায় তিনি এ উত্তর দেন। সমাজবিজ্ঞান অনুষদের গ্যালারিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের একমাত্র সাহিত্য বিষয়ক সংগঠন চিরকুট এ আলোচনা সভার আয়োজন করে।

এ সময় তিনি আরও বলেন- “আমাদের আন্দোলনের টাকা কোথা থেকে আসে তা নিয়ে প্রশ্ন তোলা হয়েছে। সরকারী দল ও বিএনপি দল চালানোর জন্য কোথা থেকে এত কোটি কোটি টাকা পায় সেটাও আমার প্রশ্ন।”

anu mm

বিএনপির রামপাল বিরোধী আন্দোলনে সমর্থনের ব্যাপারে তিনি বলেন, ‘আমরা যখন ফুলবাড়ী আন্দোলন করলাম তখন জামায়াত-বিএনপি সরকার, আর আওয়ামীলীগ আমাদের সমর্থন জানিয়েছিল। এখন বিএনপি সমর্থন জানাচ্ছে। জনগনের আন্দোলন যখন বড় আকার ধারণ করে তখন বিরোধী দল আসে সমর্থন নিয়ে।’

অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ বলেন, ‘রামপালের পক্ষে প্রচারণা চালানোর জন্য বিজ্ঞাপনী সংস্থার নিয়োগ করা হয়েছে। যারা বিভিন্ন বিভ্রান্তিমূলক তথ্য দিয়ে  এ বিদ্যুতকেন্দ্রের প্রচারণা চালাচ্ছে।’ কয়লা আমদানী সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘আপনারা কয়লা আমদানী করছেন, এর বদলে গ্যাস আমদানী করুন। বঙ্গোপসাগরে আমাদের যে গ্যাস আছে সেটা নিয়ে যদি বিদেশিদের সাথে দূর্নীতিমূলক চুক্তি না করা হয় তাহলে তা দিয়েই আগামী কয়েক দশক বিদ্যুৎ উৎপাদন করা যাবে।’

কয়লা বিদ্যুৎ না করে সৌর শক্তি, বায়ু শক্তি, ও বর্জ্য থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদনেরও প্রস্তাব করেন তিনি। তিনি বলেন, ‘বলা হয় আমরা উন্নয়নের বিরোধিতা করছি। আমাদের আন্দোলন বাংলাদেশের সম্পদ যেন শতভাগ দেশের কাজে ব্যবহার হয় সে জন্যে। আমরা সেটাকেই উন্নয়ন বলি যেটা মানুষ ও পরিবেশকে বিকশিত করে। যেটা মানুষ ও পরিবেশের জন্য বিপর্যয় নিয়ে আসে সেটা উন্নয়ন হতে পাওে না।’

সুন্দরবন সম্পর্কে বলেন, ‘সুন্দরবন আমাদের গৌরব কিংবা ঐতিহ্যের বিষয় নয়। এটা আমাদের অস্তিত্বের বিষয়। এটা প্রাকৃতিক সুরক্ষা বাঁধ। সুন্দরবন যেহেতু মানুষকে রক্ষা করছে তাই  সুন্দরবনকে রক্ষা করা আমাদের জাতীয় দায়িত্ব।’

আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন সরকার ও রাজনীতি বিভাগের শিক্ষক অধ্যাপক নাসিম আখতার হোসাইন। সভাপতিত্ব করেন চিরকুটের সম্পাদক আনজুম সানি। এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন চিরকুটের প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক মাসুম মুনাওয়ার, প্রতিষ্ঠাতা নির্বাহী সম্পাদক সুদীপ্ত শাহাদাত, বর্তমান নির্বাহী সম্পাদক জুলফিকার রবিন প্রমুখ।