ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

 
Tarek-Zia-5

তারেক রহমান সুকৌশলে জেনেশুনে বিতর্কিত কথাবার্তা ছড়াচ্ছেন । তারেক কি বঙ্গবন্ধু সম্পর্কে জানে না? জেনেও বঙ্গবন্ধুকে অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করছে কারণ তার নাম নিলেই আন্দোলন জোড়দার হয় । তার নাম না নিলে বাঙালি জাগেনা । সেটা পক্ষেই হোক আর বিপক্ষে !

দেশকে অস্থিতিশীল করাই হল মূল উদ্দেশ্য । বঙ্গবন্ধুকে অপমান না করলে দেশে বিশৃঙ্খল পরিবেশ তৈরি হচ্ছেনা । মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তি যদি মাঠে নামে তার বিরুদ্ধে তবে হেফাজতি স্টাইলে জামায়াতি রাজাকারেরা মাঠে নামবে । তাতে সহিংসতা সৃষ্টি হবে আর সহিংসতা উস্কে দিতেই তার এই উদ্দেশ্য মূলক বক্তব্য ।

অবশ্য তারেকের উদ্দেশ্যের কিছু ঘটনা শুরু হয়ে গেছে।  ছাত্রলীগ খালেদার সমাবেশ বন্ধ করতে পাল্টা কর্মসূচি দেয়ার হুমকি দিয়েছে । দাবি তারেককে বিএনপি থেকে বহিস্কার করতে হবে । বিএনপিও চাইবে যে কোন মূল্যে খালেদার কর্মসূচি পালন করতে । আর খালেদার দু’একটি সমাবেশ ছাত্রলীগ বন্ধ করতে পারুক আর না পারুক, বিদেশের কাছে তুলে ধরবে বিরোধি পক্ষকে কোন সমাবেশ করতে দেয়া হচ্ছেনা । ঝামেলা বাড়বে । তারচেয়ে বরং ছাত্রলীগ তারেককে অবাঞ্চিত ঘোষণা করতে পারত । যে কোন মূল্যে তারেকের খবর বন্ধের জন্য কাজ করতে পারত । মিডিয়াকে তারেকের সংবাদ বন্ধের জন্য দাবি পেশ করতে পারত । জেলায় জেলায় তারেকের বিরুদ্ধে কর্মসূচি ও আদালতে মামলা করতে পারে । খালেদা জিয়ার সমাবেশ বন্ধ করার সিদ্ধান্ত দেশে তারেকের স্বপ্ন পরিপূরণ করে কিনা! মানে, দেশে অস্থিতিশীলতা সৃষ্টি হয় কিনা তা নিয়ে আমার চিন্তা হচ্ছে । যদি খালেদার সমাবেশ সত্যি সত্যি বন্ধ করতে পারে ছাত্রলীগ । তবে তা হবে বিএনপি’র জন্য বড় চাপের । তবে কাজটা সহজ নয় ।

অশুভ কোনো উদ্দেশ্য সাধনের তারেকের সুদূরপ্রসারি পরিকল্পনার একটা অংশ। কেননা ইতিহাস যাঁরা নির্মাণ করেন, তাঁরা কখনোই ইতিহাস নিয়ে বিতর্ক করেন না। করার প্রয়োজনও বোধ করেনা। ইতিহাস নিয়ে তাঁরাই অহেতুক বিতর্ক করেন, ইতিহাসে যাঁদের অবদান রাখার ন্যূনতম সামর্থ্য ও সাহস নেই। তাই সময় থাকতে তারেকের এই অশুভ উদ্দেশ্য সম্পর্কে এখনই ভেবে দেখা দরকার। মামলাও হতে হবে যাতে প্রতিবাদ করা যায়। কারণ আইনের প্রয়োগে আইন সুরক্ষা পায় । তারেকের বিরুদ্ধে মামলা না দিলে বলবে এতবড় কথা বলেও আওয়ামী লীগ একটা মামলা করার সাহস পেলনা । কিন্তু খালেদার সমাবেশ বন্ধের ঘোষণা দেয়া দেশকে অস্থিতিশীল করবে । তবে, পাকিস্তানে জন্ম নেয়া তারেক এদেশের ইতিহাস নিয়ে বিতর্কমূলক কথা বলছে । তারেকের এই বক্তব্য কেউ গ্রহণ করেনি । তারেকে নিয়ে যেসব বুদ্ধিবেশ্যারা আশাবাদী ছিল তারাও হতাশাগ্রস্থ হয়েছে । কারণ দেশে শিক্ষিতদের সংখ্যা অনেক।  কিন্তু সেই বক্তব্যকে কেন্দ্র করে খালেদা বিরোধি কর্মসূচি ছাত্রলীগের অজ্ঞতার বহি:প্রকাশ । সর্বোপরি ছাত্রলীগকে আরো ভেবে কাজ করার আহবান জানাই।

জয় বাংলা … ছাত্রলীগের জয় হোক … তারেক রহমান মূর্দাবাদ !!!