ক্যাটেগরিঃ স্বাধিকার চেতনা

 

সকল সত্য ও মহান বিষয়ের একটি গাণিতিক ব্যাখ্যা থাকে। আমাদের দেশের ইতিহাসও এর ব্যতিক্রম নয়। আমাদের মুক্তিযুদ্ধের একটি গাণিতিক ব্যাখ্যা হয়। দেশে মুক্তিযুদ্ধ শুরু হয় ২৫ মার্চ রাতে, এখানে ২৫ দুটি ডিজিট দ্বারা গঠিত, যা যোগ করলে হয় ৭, (২+৫=৭) এই ৭ দ্বারা ৭ই মার্চকে নির্দেশনা প্রদান করে।

আবার, আমাদের মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে বিজয় হয় ১৬ ডিসেম্বর, এখানে দুটি ডিজিট ১ ও ৬, যা যোগ করলে হয় ৭, (১+৬=৭) এই ৭ দ্বারা ৭ই মার্চকে নির্দেশনা প্রদান করে। অর্থাৎ যুদ্ধ শুরু হয়েছে ৭ই মার্চের ভাষণকে কেন্দ্র করে, বিজয় অর্জিত হয়েছে ৭ই মার্চকে কেন্দ্র করে।

পৃথিবীর ইতিহাসে দুটি ভাষণ মহান, বিশেষ করে আমাদের বাঙালী মুসলিমদের কাছে তো বটেই। এক হল রসূল (সা.) এর বিদায় হজ্বের ভাষণ, অপরটি হল আমাদের জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর রেসকোর্সের ময়দানে ভাষণ। এই দুটো ভাষণই তারিখ ছিল ৭ মার্চ।

রসূল (সা.) আরাফাতের ময়দানে বিদায় হজ্বের ভাষণ দেন যার আরবী তারিখ ৯ জিলহজ্ব মোতাবেক দিনটি ইংরেজি তারিখ ছিল ৭ মার্চ ৬৩২ খ্রীষ্টাব্দ। এটি ছিল হযরত মহাম্মাদ (সা.) এর মুসলিমদের প্রতি দেয়া দিকনির্দেশনা মূলক চূড়ান্ত ভাষ।

অপরদিকে, বঙ্গবন্ধু রেসকোর্স ময়দানে স্বাধীনতার প্রক্কালে যে ভাষণ দেন তা ছিল ৭ ই মার্চ ১৯৭১ সাল, এটি ছিল বঙ্গবন্ধু কর্তৃক জাতিকে দিক নির্দেশনা মূলক চূড়ান্ত ভাষণ। এতকিছুর মূলে মূল বিষয় হল গাণিতিক ব্যাখ্যা যা সত্যতার সাক্ষ্য বহন করে।