ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

 

আওয়ামীলীগের নেতৃতাধীন মহাজোট সরকারের ৩ বছর শেষ হলো কিছু দিন আগে। এই সময় এ সরকার বেশ ভাল কাজ করেছে যেমন: বিদ্যুত্‍ যেকোনো সময়ের চেয়ে অনেক ভাল, শিক্ষা ক্ষেত্রে চোখে পড়ার মত অনেক কিছু হয়েছে, নারী নীতি হলো, তথ্য প্রযুক্তিতে অনেক অগ্রগতি, খাদ্যে সয়ংসপুর্ণতা, গ্রামীণ অবকাঠামোর উন্নয়ন বিশেষ করে স্থানীয় ইউনিযন পরিষদ পর্যন্ত ইন্টারনেট ব্যবস্থা চালু, আইন শৃংখলা পরিস্থিতি ২০০১-২০০৬ সময়ের চেয়ে ভাল ছিল, কিছু সময় ছাড়া অনেক সময় দ্রব্য মূল্য হাতের নাগালে ছিল, মহাসড়ক গুলোর বেহাল দশা হয়েছিল(অনেক আগে থেকে নির্মাণ না করার কারণে ) বর্তমান পরিস্থিতে এই মহাসড়ক গুলোর অনেক কাজ হচ্ছে, জঙ্গিবাদ নিরমূলে অনেক সফলতা, মানবতা বিরোধী অপরাধের বিচার কাজ শুরু, যাই হোক এমন আরও অনেক সফলতা আছে। সরকারের দারুন সফলতা কিছু ব্যর্থতার গভীর চাদরে ডাকা পড়েছে।

আমার নিজের কাছে যেই বিষয় গুলো খারাপ লেগেছে, যা আমি মনে করি ব্যর্থতা বলা যায়, শেয়ার বাজার চক্রান্তের কোনও সুরাহা করতে না পারাটা, বর্তমান সময়ের কিছু প্রভাবশালী মন্ত্রনালয়ের কিছু প্রভাবশালী মন্ত্রীদের বলদের মত কথা বলা(যারা সাংবাদিক দেখলে নিজেকে টিভি তে দেখা যাবে বলে কথা বলে) নিয়ন্ত্রণ করতে না পারাটা, যেইসব মন্ত্রীদের দিকে জনগণ আঙুল তুলেছে তাদের কে মন্ত্রী সভা থেকে বহিস্কারে বাধ্য না করে তাদের কে বহাল তবিয়তে রেখে দেওয়া, সামাজিক উন্নয়ন বিদ্যমান কিন্তু অর্থনৈতিক অবস্থা আমাদের করুন। সড়ক দুর্গঠনার পর মন্ত্রীদের কেন কথা বলতে হবে? এটা অপ্রয়োজনীয় বলে আমি মনে করি। ভারতের বর্ডারে বিএসফ কতৃক বিচার বহির্ভূত হত্যাকান্ড এটা খুব কষ্টদায়ক , সরকারের মনে রাখতে হবে,ঠিক আছে ভারত আমাদের বন্ধু কিন্তু যাকে মারতেছে সে একজন বাঙালি এবং সে যদি কোনও চোর ও হয় তারপর সে আমাদের একজন তার বিচার আমাদের আদালত করবে। এইসব বিষয়ের প্রতিবাদ করাটা জরুরী কারণ আমাদের (বি ডি আর ) বর্তমান বি জি বি আগের চেয়ে অনেক দুর্বল হয়ে পড়েছে। তাদের অবস্থা এমন যে চুন খেয়ে মুখ তাটছে এখন দেখলে ডর লাগে টাইপের, তাদের কে সাহস দিতে হবে ।

তো এই পরিস্থিতে সরকারের কী করনীয়, আমি জানি না তবে এইটুক বলতে পারি, জনগণের মনে আস্থা ফিরিয়ে না আনতে পারলে আগামী নির্বাচনে করুন পরিণতি গ্রহণ করা ছাড়া আর কোন বিকল্প থাকবে না। আর এই আস্থা ফিরিয়ে আনার জন্য এই মুহূর্তে যা করা দরকার বলে আমি মনে করি, যেই সব মন্ত্রীদের দিকে জনগণ আঙুল তুলেছে তাদের কে বিদায় করা, শেয়ার বাজার চক্রান্তে যিনি বা যাহার জড়িত সে যত বড় ব্যবসায়ী বা রাজনৈতিক দলের নেতা হোক না কেন তাদের কে খুজে বের করে সর্বশান্ত হয়ে যাওয়া নিরীহ মানুষের টাকা ফেরত দেওয়ার ব্যবস্থা করা। তা সম্বব না হলে ও শেয়ার বাজারে যারা ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে তাদের জন্য বিশেষ কিছু করা। নিয়মিত উন্নয়ন কাজের স্থবির হয়ে যাওয়া চাকা চালু করা। বিদ্যুত্‍, গ্যাস সংযোগ চালু করা। বিদেশে শ্রমিক বেশি করে পাঠানোর ব্যবস্থা করা। সর্বোপরি অর্থনৈতিক অবস্থা পুনরধার করাটা সরকারের এখন জরুরী হয়ে পড়েছে। টিম লিডার হিসেবে মাননীয় প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা কে এই বিষয় গুলো নিয়ন্ত্রণ করতে হবে। তা না হলে আগামী নির্বাচনে হয়তোবা অনেক বড় ক্ষতি হয়ে যাবে। আওয়ামীলীগ যদি ব্যর্থ হয় স্বাধীনতার পরাজিত শক্তি জামাত ইসলাম যদি ক্ষমতার অংশীদার হয় তাহলে কী হবে তা হয়তো বলে শেষ করা যাবে না।