ক্যাটেগরিঃ স্বাধিকার চেতনা

 

বাংলাদেশে বর্তমান প্রজন্মের কাছে মুক্তিযুদ্ধ এখনও অনেক রহস্যময়। আমাদের ইতিহাস এবং দেশের মুক্তিযুদ্ধের চেতনা এক অদ্ভুত কারনে মানুষের মধ্যে ভালোবাসা তৈরি করছে না। আমাদের অনেকের মধ্যেই এই স্পর্শকাতর বিষয়গুলো সঠিক ভাবে পরিচর্চা নেই। আমার চারপাশে অনেক শিক্ষিত মানুষের মধ্যেও মুক্তিযুদ্ধকে আর মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি সম্মানের অভাব দেখি। যদিও একটা বড় দীর্ঘশ্বাস দেওয়া ছাড়া আর কিছুই করার নেই। পুঁজিবাদের ভয়াবহ প্রভাব প্রজন্ম থেকে প্রজন্মকে ইতিহাস থেকে দূরে সরিয়ে দিচ্ছে।

যা হোক, জীবন ও জীবিকার প্রয়োজনে প্রতিদিন আমাদের অনেক রকমের মানুষের সাথেই পরিচয় হয় ।এর মধ্যে সবার চিন্তা চেতনা এক হওয়ার কথা নয়। কিন্তু একই দেশের নাগরিক হলে নিজ দেশের সংস্কৃতি সবার সমানভাবে জানার কথা। কোন একদিন দুটো নতুন পরিচিত পরিবারের সাথে বাংলাদেশের একটা বিখ্যাত সিনেমা দেখতে গেলাম। এর মধ্যে তাদের সাথে নানা বিষয় নিয়ে কথা হল । জানা গেল তারা বেশ উচ্চ পদস্থ চাকরি করছেন। তাদের বাবারা মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন। বেশ গর্ব আর বড়াই নিয়েই জানালেন যে তারা খুব গর্বিত যে তাদের বাবারা বৃদ্ধ বয়সে খুব ভাল ভাবে মুক্তিযুদ্ধের ভাতা উপভোগ করছেন। তাদের উপর অনেকটা চাপ কম। আমি খুব মনোযোগ দিয়ে তাদের চিন্তা ভাবনা আর দৃষ্টিভঙ্গি বুঝার চেষ্টা করছিলাম। এর মধ্যে সিনেমা শুরু হল। বাংলাদেশি যে কোন সিনেমা শুরু হওয়ার আগে জাতীয় সঙ্গীত হয়। আর তখন সকল দর্শক দাঁড়িয়ে জাতীয় পতাকা, জাতীয় সঙ্গীত তথা দেশের প্রতি সম্মান প্রদর্শন করে। কিন্তু তারা কেউই দাঁড়ালো না। আমি অবাক হয়ে তাকিয়ে রইলাম। একবার বললাম, দাঁড়াবেন না? কোন সমস্যা কী? তারা জানাল দাঁড়ানোর নাকি প্রয়োজন নেই। এটা নাকি শুধু শুধু। শহীদ মিনারে ফুল দেওয়া আর জাতীয় সঙ্গীত বাজানো এগুলো নাকি ঠিক নয়। মুসলিম ধর্মীয় অনুসারে গোনাহ। আমি আরও অবাক হলাম। হয়তো আমার অনেক জ্ঞানের অভাব আছে। আমিই হয়তো অনেক কিছুই জানি না। হয়তো আমার অনেক কিছু বলার ছিল। কিন্তু কিছুই বললাম না। কিন্তু জন্মের পর থেকে যে সংস্কৃতি দেখে বড় হয়েছি তাকে অস্বীকার করি কেমনে।

যে মানুষের ভিতর নিজ থেকে সম্মানবোধ আর দেশের প্রতি সম্মানবোধ নেই তাদের বলে কয়ে আমি একা বাঙালি বানাতে পারবো না। তবে অবাক করার বিষয় যখন তাদের মতো মানুষগুলো নিজেদের মুক্তিযোদ্ধার সন্তান বলে দাবি করে কিংবা গর্ব প্রকাশ করে। বর্তমান বাংলাদেশে অনেকেই সঠিক ভাবে স্বাধীনতা দিবস আর বিজয় দিবসের কথাও বলতে পারে না । আমরা যখন প্রবাসী হই ক্ষনিকের জন্য, পরিচিত আশেপাশের অনেকেই দেশে ফিরতে না করে। কিংবা কেউ কেউ প্রবাসী হওয়াকে গর্বের মনে করে। নিজ দেশের শিল্প সাহিত্য কিংবা সিনেমা নয়। বরং ভিন দেশি যে কোন কিছুর জানার মধ্যেই গর্ব বোধ করে। এতোকাল নতুন পরিচিত কাউকে সালাম বা নমস্কার দিয়ে মানুষ সম্বোধন করে এসেছি। এখন দেখি কেউ সালাম দেয় না । হাই বা হ্যালো বলে। জীবনযাপনে আর চিন্তায় চেতনায় অনেক বেশি পার্থক্য হয়ে যাচ্ছে।

কিছুদিন আগে একজন অভিনেত্রী শহীদ মিনারে স্যান্ডেল পড়ে হাঁটা নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অনেক সমালোচনা হয়ে ছিল। আবার তাঁর নিজেরও স্ববিরোধী কথা তাকে কোথায় নিয়ে গেছে সে নিজেও জানে না। দুঃখজনক এদের দিয়ে দেশের জন্য তৈরি করা হয় নাটক, বিজ্ঞাপন কিংবা সিনেমা। সেই অভিনেত্রীর এহেন আচরনে এতো সমালোচনার পরও কোথাও তাকে দুঃখিত হতে দেখলাম না। আহা! মানুষের মধ্যে দেশপ্রেম বড় অসহায় জিনিস।
প্রকৃত দেশ প্রেমিক বা দেশের প্রতি ভালবাসার চেয়ে সবাই এখন মুক্তিযোদ্ধা হতে চায়। কারণ মুক্তিযোদ্ধাদের অনেক ধরনের সুবিধা দেওয়া হয় । মাস গেলে কিছু টাকা তাঁরা পায় । মাঝে মাঝে অবাক হই কেউ কেউ এই স্বীকৃতি লাভে কতো রকমের বিকৃত যুদ্ধে বা কৌশলে থাকে। কারও কারও হাস্যকর আক্ষেপ। মুক্তিযোদ্ধা হলে বেকার থাকতে হতো না। একটা মুক্তিযোদ্ধার সার্টিফিকেট হলে মাস শেষে এমনি টাকা আর সুযোগ সুবিধা পেয়ে যেতো। মানুষের ভিতর বিবেক আর মনুষ্যত্ব বোধের অভাব একটা বড় সমস্যা। চারপাশে অজস্র মিথ্যাবাদী প্রগতিশীল বুদ্ধিজীবী আছে কিন্তু প্রকৃত দেশপ্রেমিকের ভীষণ অভাব। প্রকৃত দেশপ্রেমিকরা দেশের আলো,  মানুষ, সার্বভৌমত্বকে সঠিক ভাবে ভালোবাসে। নিজের অন্তরে লালন করে। প্রজন্ম থেকে প্রজন্ম নিজের শেকড়কে আগলে রাখে। বর্তমান প্রজন্ম কিংবা পরবর্তী প্রজন্মের কাছে সঠিক ভাবে দেশের ইতিহাস এবং দেশীয় সংস্কৃতিকে তুলে ধরা অত্যন্ত জরুরি। ব্যাপক ভাবে আমাদের চেতনা বোধের জায়গাগুলোকে আরও শানিত করা প্রয়োজন । তা না হলে একদিন আমরাই আমাদের ইতিহাস ভুলে যাবো ।