ক্যাটেগরিঃ প্রশাসনিক

 
traktor_75935_2

‘ধর-পাকড়’ করেও থামানো যাচ্ছে না ট্রাক্টর। ‘ফাঁক-ফোকর বের করে প্রতিদিনই রাস্তায় দাঁপিয়ে বেড়ায় ট্রাক্টর।নতুন ফন্দি হিসেবে এখন তারা দূর্ঘটনা ঘটিয়ে পুলিশ আসার আগে ট্রাক্টরের চাকার বাতাস বের করে দিয়ে কেটে পড়ে ঘটনাস্থল থেকে।এতে করে ট্রাক্টর গুলো পুলিশ হেফাজতে নেয়া সম্ভব হয় না।

১৫ ফেব্রুয়ারি বুধবার সকাল নয়’টা।ফরিদগঞ্জ উপজেলার শোল্লা উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজের কয়েক’জন শিক্ষার্থী জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহ ২০১৭ অনুষ্ঠানে যোগ দিতে সিএনজি যোগে ফরিদগঞ্জে যাচ্ছিলেন। পথিমধ্যে কড়ৈতলী চৌরাস্তা নামক স্থানে দ্রুতগামী ট্রাক্টরের চাপায় আহত হন চার শিক্ষার্থী চালক ও একজন পথচারী।

দ্রুত ঘটনাস্থল থেকে আহতদের হাসপাতালে পাঠানো হয়। আহতরা হলো-শোল্লা উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজের ৮ম শ্রেণির শিক্ষার্থী নাফিজা তাসনীম নিহা,সুমাইয়া আক্তার,নবম শ্রেণির রাশিদা আক্তার ও দশম শ্রেণির রেহানা আক্তার, সি এন জি চালক ফয়সাল, কড়ৈতলী জুবলি,সঃ,প্রাঃ বিদ্যালয়ের খন্ডকালীন দপ্তরী মহসিন।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, দ্রুতগামী ট্রাক্টর চলতি সি,এন,জি টি কে ধাক্কা মেরে রাস্তার পাশে ছুড়ে ফেলে।রাস্তার পাশে দোকানে গিয়ে সিএনজি ও ট্রাক্টরটি ছিটকে পরে যায়।সেখানে বসে থাকা মহসিনের পায়ের উপর উঠে যায় ট্রাক্টরটি।

ঘটনাস্থল’ পরিদর্শনে ফরিদগঞ্জ থানার পুলিশ আসেন। ঘটনাস্থল থেকে ট্রাক্টরটির চালক রাজুকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হলে’ও ততখনাৎ চাকায় হাওয়া না থাকার কারণে ট্রাক্টরটি পুলিশ নিয়ে যেতে পারেন নি।তবে ট্রাক্টরটি পুলিশের হেফাজতে রয়েছে।এ লেখাটি লিখা পর্যন্ত এখনো কারো নিহত হওয়ার খবর পাওয়া যায় নি।

চাঁদপুরের পুলিশ সুপার ‘শামসুন্নাহার’, ট্রাক্টর রাস্তায় চলাচলে কঠোর হুঁশিয়ারী প্রদান করেন।জেলার প্রতিটি থানায় প্রতিদিন অবৈধ এসব যান-বাহন পুলিশ আটক করছে।কিন্তু আইনের তোয়াক্কা না করে প্রতিদিনই এসব যানবাহন দাঁপিয়ে বেড়াচ্ছে গ্রামীণ জনপদ।লাইসেন্স বিহিন ট্রাক্টর ‘ক্ষ্যতে’ চাষাবাদের জন্য আনা হলে ও এসব ট্রাক্টর দিয়ে এখন মাটি সহ নিত্যপ্রয়োজনীয় মালা-মাল বহনে ব্যবহিত হচ্ছে।

অনিয়ন্ত্রিত গতির ফলে এসব যানবাহনের দ্বারা দূর্ঘটনা ঘটছে।প্রত্যক্ষদর্শী নান্টু বলেন,কয়েকদিন আগে’ও এই কড়ৈতলী চৌরাস্তায় একটি ট্রাক্টর ৪ জন লোককে আহত করে।এর রেশ কাটতে না কাটতে আবার ও দূর্ঘটনা ঘটায় ট্রাক্টর চালক। এসব অবৈধ যানবাহনের ফলে পার্শবর্তী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের রাস্তা চলাচলে ঝুঁকির কথা ও জানান তিনি।

উক্ত চৌরাস্তার ব্যবসায়ী “বাকী-বিল্লাহ” জানান,আমাদের সন্তান তো এ রাস্তা দিয়েই চলাচল করে।মরণঘাতি এসব যানবাহনের চলাচলে প্রতিদিন ঝুঁকি আর দুঃশ্চিন্তার মধ্যে দিয়ে দিনাতিপাত করতে হয় আমাদের। ‘কি জানি কখন এই ভয়ঙ্কর যান আরো ভয়ঙ্কর হয়ে উঠে। এমতাবস্থায় পথচারীরা কামনা করেন, যেন অচিরেই পুরোপুরি ভাবে অবৈধ ট্রাক্টরগুলো রাস্তায় চলাচল থেকে বিরত রাখতে প্রশাসন সফল হয়।

ছবিঃ সংগৃহীত।