ক্যাটেগরিঃ জানা-অজানা

 
1451396229

জন্মসুত্রে আমি মীন রাশির জাতিকা ।চন্দ্র সূর্য-গ্রহ-নক্ষত্র এই সমস্ত বিষয়ে আমার আগ্রহ অনেক ছোট বেলা থেকেই ।তাই অনেক বই পড়েছি জ্যোতিষ শাস্ত্রের তাই বলে আমি কিন্তু হাত দেখতে পারিনা ।তবে কিছু কিছু বিষয় নিজের জীবনের সাথে এমন ভাবে মিলে যায় যা দেখে বিস্মিত না হয়ে পারি না। আজ এই অলস বেলায় পুরনো বছর ঘাটতে গিয়ে মীনের কিছু সাধারণ বৈশিষ্ঠ্য নজরে এলো যদিও এগুলো সবার বেলায় পযোজ্য হবে এমন কোন কথা নেই।

মীন হলো অন্য রাশিগুলোর বৈশিষ্ট্য নিয়ে গঠিত একটি জটিল রাশি। মীনের স্বভাবে অন্যান্য রাশিগুলোর বৈশিষ্ট্যের মিশ্রণ থাকে, আর সেটা বহন করা একজন মীন জাতকের পক্ষে যথেষ্ট কঠিন হয়ে দাঁড়ায়। যত বেশি শৈল্পিক ও সৃষ্টিশীল পরিবেশ হবে, যত বেশি অবসর এবং দুর্বোধ্য পরিবেশ হবে তত বেশি এমন স্থানে মীনকে খুঁজে পাওয়া যাবে। বিয়ের সূত্রে কিংবা উত্তরাধিকার সূত্রে না পেলে মীনদের মধ্যে কাড়ি কাড়ি টাকাওয়ালা মানুষ তেমন একটা নেই। তাই বলে টাকার বিরুদ্ধে তাদের কোনো ক্ষোভ নেই। আর দশটা রাশির মানুষরা যাকে পুরনো কয়েন হিসেবে বিবেচনা করেন, মীন সেগুলো আনন্দ সহকারে গ্রহণ করে নিজের কাছে স্বযত্নে সাজিয়ে রাখবে। নেপচুনসুলভ বৈশিষ্ট্যের অধিকারী যেকোনো হৃদয় সাধারণত লোভহীন হয়। মীনও তার ব্যতিক্রম নয়। তবে তাদের মধ্যে তীব্রতার অভাব লক্ষ্য করা যায়। আর সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো, এরা ভবিষ্যতের ব্যাপারে পুরোপুরি পরোয়াহীন হয়। আশপাশের সবাই যখন মাথা গোঁজার ঠাঁই খুঁজতে ফ্ল্যাটের দাম কমলো কী বাড়লো সেই চিন্তাতে অধীর, মীন হয়তো তখন ভাবছেন নিজের পছন্দের কোনো পারফিউম একটা এক্সট্রা কিনে রাখার কথা। বর্তমানকে ঠাণ্ডা মাথায় মেনে নেওয়ার ক্ষমতা রয়েছে। মীনের কল্পনাশক্তি ও বুদ্ধিমত্তা যেখানে প্রয়োগের সুযোগ আছে সেখানে মীন দারুণ জনপ্রিয়তা অর্জন করতে পারে। এদের শৈল্পিক প্রতিভা অসাধারণ। যুক্তি প্রয়োগে কোনো জিনিস অনুধাবনের চেয়ে সামান্য মনোযোগেই তারা অনেক জটিল সমস্যার গভীরে প্রবেশ করতে পারে। তারা বিশ্বস্ত, গৃহবিমুখী, দয়ালু ও সংযমী। নতুন নতুন আইডিয়া তাদের মাথা থেকে বের হয়। আন্তরিক আচরণ ও অলসতাপূর্ণ ভালোমানুষীর কারণে তারা সবাই খুব দ্রুত সবার প্রিয় মানুষটি হয়ে ওঠেন। নিজেদের স্বপ্ন এবং জীবনযাপনের ব্যাপারে নিজস্ব স্টাইলের ক্ষেত্রে প্রতিবন্ধকতা ছাড়া অন্য সব বাধার ব্যাপারেই তারা খুবই নির্লিপ্ত। অপমান, অপবাদ, ঝগড়া-বিবাদ এসব ব্যাপারেও তারা একেবারেই ভাবলেশহীন।

[ ১৯ ফেব্রুয়ারি-২০ মার্চ ]

শাসক গ্রহ :বৃহস্পতি।

শুভ সংখ্যা :৭।

বৈশিষ্ট্য :পানি।

ইত্তেফাকে প্রকাশিত এই আর্টিকেলে মীন রাশির জাতককে অনেকটাই ভাবলেশহীন বলা হয়েছে যদিও আমার মনে হয় যারা সৃষ্টিশীল তারা হয় প্রতিবাদী । কেউ প্রতিবাদ করে মাঠে ,কেউ করে ঘর থেকে ,মুখে কুলুপ এটে বসে থাকার মানুষ অন্তত মীন নয় ।  তবে তাদের মধ্যে  কল্পনা করার প্রবনতা অনেক বিশাল। কারো সাথে সমঝোতা করে চলা আদের স্বভাব বিরুদ্ধ আর  নিজের কাজের বিষয়ে অনেক বেশি আত্মবিশ্বাসী।

মীন রাশি নিয়ে গবেষণা আকরতে গিয়ে আমি নিজের ২০১৬ সালকে দুটো ভাগে ভাগ করে দিলাম।একটা প্রফেশনাল আর একটা পার্সোনাল। প্রফেশনের দিক দিয়ে বিচার করতে গেলে এই সাল আমার জন্য সব চাইতে কপালপুরা ছিল ,কারন কোন ভাবেই একটি নির্দিষ্ট জায়গায় স্থির করাতে পারলাম না নিজেকে ।পছন্দের একটি ম্যাগাজিন চালানোর কথা ছিল এই বছর ,কিন্তু কর্ণধারের সাথে মতের মিল না হওয়ায় সেটা আর করতে পারিনি ।তবে আশার কথা হচ্ছে আসছে ২০১৭ সালেও সেই একই সুযোগ আবার পাচ্ছি ।সুতরাং কথার সাথে কাজের সমন্বয় হলে এবার আমি আছি ।বোঝাই যাচ্ছে ,মীন জাতকের সাথে কাজ করাটাও খুব কঠিন।এই বছর আমার জীবনের সব চাইতে বড় দুর্ঘটনা হচ্ছে-বাংলা সিনেমায় অভিনয় করতে যাওয়া । মুভি রিভিউ লিখে ম্যাগাজিন ভরাচ্ছিলাম ঠিক আছে ,কিন্তু কোন কারনে যে অভিনয় করতে গেলাম তা কে জানে !তাও আবার সুপার ফ্লপ একটা সিনেমায় দেখা গেল ক্লোজ শট ছাড়াই। যাই হোক,প্রাপ্তিও কিছু কম নয় ;বাংলাদেশ চলচ্চিত্র ইনিস্টিউট পত্রিকা সহ বেশ কিছু আলোচিত পত্রিকার বিশেষ বিশেষ সংখ্যায় ফিচার এবং গল্প ছাপার অক্ষরে পাওয়া ।সব সময় সন্মানী পেতে হবে এমনতর বিশ্বাস মীনের নেই,পাঠকের আস্থা পেয়েছি এতেই আমি খুশী।

প্রেমের ব্যাপারে মীন সব সময়ি আবেগী ,তারা মগজ দিয়ে নয় ,বিচার করে হৃদয় দিয়ে ।তাই হেরে গিয়ে জিতে যাবার প্রবনতাই বেশী লক্ষ্যনীয় ।আমি জেনে শুনে বিষ করেছি পান-এই শিক্ষায় ব্রত হয়ে আমি নিজেও এমন করেই বিষ পান করেছি ।বন্ধুদের বিচারে -আমি খুব বোকা ।কিন্তু,আমি মোটেও বোকা নই ।আমি বুদ্ধিমান এবং কে কীভাবে আমার সাথে অন্যায় করছে তা দিব্যি দেখে গিয়েছি। কাউকে গলার হাড় খুলে পড়ালে সে যদি তা দু’পায়ে মাড়িয়ে চলে যায় তার দায় ভার নিশ্চই আমার ঘাড়ে পরতাবে না। সে তার স্বভাব সুলভ বিশ্বাস ঘাতকতা করে গেছে ,সুতরাং তাক যেতে দেওয়াই সমীচীন ।আমি আগের মতোই বোকাই আছি ,রেখে ঢেকে হৃদয় বদল মীনের স্বভাব বিরুদ্ধ বটে।

ড. কে সি পালড এবং কে সি পাল -এর মতে এই রাশির জাতব্যক্তিদের মনে চায় প্রেম সাগরের অতল গর্ভের রহস্যের সন্ধান, ভোগ শক্তির পাশবিক পরিণতির দিকে ঝোঁক, পরদুঃখকাতর, উদার, দুয়ালু হলেও আনন্দের নেশায় মত্ত, প্রেম-প্রীতি, ভালোবাসা তথা ভক্তিমূলক ধর্মের দিকে বিশেষ আকৃষ্ট হওয়ায় কর্কট, কন্যা, বৃশ্চিক ও ধনু রাশির প্রেম, ভালোবাসা ও যৌন জীবন শুভফল প্রদান করবে। মেষ ও তুলা রাশির অশুভ আর বাকি অন্যান্য রাশির মিলন মধ্যম ফল প্রদান করবে।

তার মানে মেষ আর তুলা রাশির সাথে কোন মিলন ঘোটালে তা শুভ ফল আনবে না ।জানিনা  আমার ভাবনার আকাশে এমন কেউ আছেন কীনা (থাকলে এখনি  কেটে পরেন)।

এবার মীন রাশির জন্য কিছু পরামর্শ তা অবশ্যই জ্যোতিষীদের ভাষ্যমতে:

মীনরাশি প্রতীক ২০১৭ তে হল “নিশ্চয়তা”। নেপচুন এর দ্বারা শাসত এই রাশি হয় সম্পর্ককাতর । এই বছরে নিজের ব্যাক্তিগত জীবনে আর কর্মক্ষেত্রে সঠিক সুযোগ নিন । গত বছর শাতিপূর্বক ছিল তবে এই বছর কিছু বাধা আসতে পারে । গ্রীষ্মের পড়ে আবার সব ঠিক হয়ে যাবে ।কাজে মন বসবে তবে চাকরি বদলে যেতে পারে । তবে মীনরাশি ঝুঁকি নিতে পারবেন । নক্ষত্রের স্থান স্থায়ী নয় । বসন্ত অব্দি অপেক্ষা করুন। দীর্ঘস্থায়ী সম্পর্কে কিছু বাধা আসতে পারে তবে আপনি কাটিয়ে উঠবেন । নিজের পার্টনার কে সময় দিন । সিঙ্গেলরা নুতুন জীবনসাথী পেয়ে যাবেন । চোখ কান খোলা রাখুন । বছরের মাঝখানে আপনার অশান্তি লাগবে । তবে বাধা অতিক্রম করে যাবেন যদি দৃঢ় হয়ে লড়ে যান । নুতুন কাজ পেয়ে যেতে পারেন । ভয় পাবেন না । অবসর সময়েও কাজ করে নিন । বন্ধু বান্ধব এর সহায়তা নিয়ে কাজ করুন । তারা সাছন্দে সহায়তা করবে ।এই বছরের শেষে ভারসাম্যতা ফিরে পাবেন । দীর্ঘস্থায়ী পরিকল্পনাগুলো যাচাই করুন । পরিবার এর প্রতি দৃষ্টি আকর্ষণ করুন । কিছু বিশেষ বার্তা হয়তো রয়েছে তাদের কাছে । তাদের আস্থা অর্জন করুন । নিজের পার্টনার এর দীকে দৃষ্টি আকর্ষণ করুন তাহলে সাদৃশ্যতা থাকবে ।

আগেকার সাফল্যের কারনে এখন বেশী কাজ করতে হবে। বড় কোন উদ্যোগ নেয়া যাবে না, এতে সাফল্য নাও আসতে পারে ফলে হতাশ হতে পারেন। বাধা অতিক্রম করে আরো দৃঢ় হয়ে উঠবেন। ভালবাসার ক্ষেত্রে ভাগ্য ভালো । বছরের প্রথমার্ধে নিজের পরিকল্পনায় নুতন কিছু করে দেখান। স্বাস্থের ব্যাপারে চাপ নেবেন না।

মীন রাশির বিখ্যাত ব্যক্তিরা হচ্ছেন-  জর্জ ওয়াসিংটন, বিজ্ঞানী আলবার্ট আইনস্টাইন, এলিজাবেথ টেলর, ভিক্টর হুগো, মাইকেল এ্যাঞ্জেলা, লিউ টেলর, শোপেন হাওয়ার, হেনরিক ইবসেন, জন স্টেইনবেক, বিজ্ঞানী আলেকজান্ডার গ্রাহাম বেল, আল্লামা ইকবাল, এডওয়ার্ড কেনেডি, ববি ফিশার, মহাশুন্য চারী ইউরি গ্যাগারিন, রেক্স হেরিসন, জো বাগনার, শিবাজী, ধ্রুস উইলিস, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, ফরিদুর রেজা সাগর, বিখ্যাত সাংবাদিক ও কলামিস্ট এ বি এম মূসা প্রমুখ ।

 

তথ্য কৃতজ্ঞতা: গুগল মামা