ক্যাটেগরিঃ শ্রদ্ধাঞ্জলি: আজম খান, সেলুলয়েড

 

এক জন মানুষ যে বাংলাদেশের সূচনা থেকে দেশকে নিজের জীবনের চাইতে বেশি ভালবেসে সাজানোর জন্য ফুল বাগান তৈরির কাজ হাতে নিয়েছিলেন, সাজান বাগান নানা রং এর ফুল আর ভ্রমর , পাখির খেলা , ঠিক এমনি সময় নেমে এলো ঝড় । সেই ঝড়ে সব কিছু নষ্ট হয়েগেল । জ্যৈষ্ঠ মাসের তাপদাহের মধ্যে গুরুর এভাবে চলে যাওয়া এটা আমরা মেনে নিতে পারিনা। চলমান জীবনে সব কিছুই চলমান ,মৃত্যু তার মধ্যে একটি ।আমরা সবাই মেনে চলি কিন্তু সব চলে যাওয়া সব সময় মেনে নেওয়া যায় না, তেমনটি হল গুরুর চলে যাওয়া। ভাগ্য দেবতার কাছে মানবের পরাজয়। একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা জীবনের সাথে হেরে গেলেন , যে মানুষ আমাদের একটি নাম দিয়ে গেলেন, একটি পতাকা দিয়ে গেলেন , একটি ফুল দিয়ে গেলেন , একটি পরিচয় দিয়ে গেলেন ,যে পরিচয়ে সবাই আমাদের চিনে , এত কিছু দিয়েও আমাদের কাছ থেকে বিনিময়ে কোন কিছু না নিয়েই এমন এক দেশে চলে গেলেন যেখান থেকে আর কেউ ফিরে আসে না। আমরা আর কোন দিন তাকে ফিরে পাবনা । শুনতে পারব না বাংলা গানের পরিচয় সেই সব গান, যে গান শুনে অন্য সবাই শিখেছে। শত চেষ্টার মধ্যেও আর গুরুর একটু আওয়াজ আমরা পাবনা। গুরু তোমার এভাবে আমাদের ছেড়ে চলে যাওয়া আমরা মেনে নিতে পারছিনা, যদি কোন দিন দেখা হয় তবে একটা উত্তর আমাদের দিতে হবে “কেন চলে গেলে আমাদের একা ফেলে”।