ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

 

ছবি: রাজনীতি আগামী প্রজন্মের জন্য রেখে যাচ্ছে রক্তের মদ, মানব গোস্তের কাবাব

হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের ৪০তম শাহাদাত বার্ষিকীকে শ্রেষ্ঠ বাঙালির আত্মার মাগফিরা কামনা করছি। শেখ মুজিবর রহমান পৃথিবীর মানচিত্রে একটি স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি। শুধু তাই নয় তিনি বাংলার তিতুমীর, সূর্যসেন,ঈশ্বর চন্দ্র বিদ্যা সাগর, সুভাষ বসু, আলাওল, পদাবলী, মুকুন্দ দাস, রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, কাজী নজরুল ইসলাম, জীবনানন্দ দাসকে ছাড়িয়ে হলেন ‘হাজার বছররে শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী’। তাই বঙ্গবন্ধুর চেহারা হলো কোটি কোটি কোটি বাঙালির মুখচ্ছবি।

আজ হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের ৪০তম শাহাদাত বার্ষিকীতে বাঙালি জাতি ভুলে গেছে বাংলার ইতিহাস। ক্ষমতা আর হিংসার বশে ইতিহাসকে করে চলেছে নানা মুখে বিকৃত। ইতিহাস আর ইতিহাস নেই। যেন ছেড়া কাঁথা। সেই ছেড়া কাঁথা আজও সোনার বাংলায় প্রতিয়মান। কাঁথা যেদিকেই গায় জড়ানো হোক না কেন সকল দিকেই বেধে যায়, ছিড়ে যায়, এমনি নষ্ট হয়ে গেছে আমাদের মূল ইতিহাস। এখন শুধু ক্ষয়ে ক্ষয়ে পড়তে শুরু করেছে। এভাবে চলতে থাকলে বাংলার ইতিহাস বলে কিছুই থাকতে না।

বর্তমানের পরিপেক্ষিতে বলা যায় সোনার বাংলা তথা নোংরা বাংলা কখনোই আলোর মুখ দেখতে পারে না বা পারবে না যতদিন আমাদের নোংরামি দূর না হবে। আমরা এমন বাঙালি জাতি যে ভাল কাজের মর্যাদা কখনোই দিতে জানি না। সম্মান করতে জানি না যে সম্মান প্রাপ্য তাকে। শুধু রাজনীতি নয় শিল্প-সংস্কৃতিতেও এর প্রভাব। বাংলা স্বাধীন হয়েছে এমন কথাটি অনেকে বিশ্বাস করতেই পারে না। শেখ মুজিবর রহমান, জিয়াউর রহমান, মাওলানা ভাসানী, এ কে ফজলুল হক নামের যে কয়েজন ব্যক্তি এই বাংলার বুকে জন্ম নিয়েছিলেন এবং এই বাংলাকে সোনার বাংলায় রুপান্তরিত করেছেন সেটাই আজ স্বপ্নের মতো।

সকল বাংলার কারিগরদের এখন আর তেমন মর্যাদা দেয়া হয় না। আমাদের দু’টি দল তারা শুধুই তাদের সম্মান ছিনিয়ে নিতে ব্যস্ত। আমি হলফ করে বলতে পারি এভাবে সম্মান অর্জন আর নর্দমায় জল ঢালা একই কথা। দেশ কারিগর সবাইকে সঠিক সময়ে সম্মান করুন। দেশ উন্নত হবে, দেশের মানুষ প্রকৃত দেশ প্রেমিককে পরিণত হবে।

দেখা যায় রাজনৈতিক ক্ষমতার বলে আমরা এতোটাই নিকৃষ্ট জাতিতে পরিণত হয়েছি যে, মানুষকে মানুষ ভাবতে পারি না। শুধু এতোটুকুই ভাবতে পারি আমি নিজেই মানুষ বাকিরা সমাজ ও দেশের কীট-পতঙ্গ। আজ বাংলার অন্যতম ব্যক্তি যার নাম, যার কণ্ঠের স্বর কর্ণ স্পর্শ করলেই শরীরের প্রতিটি লোম সজারু কাটার মতো দাড়িয়ে স্যালুট করে তাকে নিয়েও রাজনীতিতে কত রঙ তামাশা করে বেড়াই। মুছে দিতে মরিয়া বাংলার হাজার বছরের শ্রেষ্ট বাঙালি শেখ মুজিবর রহমানের নাম।

শুধু বিরোধী দলের একার দোষ সেটা বলবো না, দোষ আমাদের সবার। রাজনীতিকে আমরা নর্দমার বদ্ধ জলাশয়ে পরিণত করেছি। পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতে গান্ধীকে নিয়ে তো এতো কথা উঠে না রাজনীতিতে। আমরা এতো এতো জ্ঞানী রাজনৈতিক ব্যক্তিদের দেখি, বই পুস্তকে তাদের নাম ধাম পড়ি, শুনি; কই তারা তো দেখি হিংসা বিদ্বেষ ছাড়া কিছুই জন্ম দিতে পারেনি। তারা যদি প্রকৃত জ্ঞানী-গুনী হয়েই থাকতেন তাহলে শেখ মুজিবর রহমানের জন্য দিনে কোটি টাকা খরব করে বিরধী দল কখনোই কেক কাটতে পারতেন না। কিন্তু আমাদের বাংলাতে সেটাই হচ্ছে।

আজ সোনার বাংলায় বুদ্ধিজীবিরাও দলকানা। স্রোতের অনুকূলেই গা ভাসাতে মরিয়া বুদ্ধিজীবিরা। দলকানা হওয়ার কারনেই তারা দলীয় মদদে সত্যকে মিথ্যা আর মিথ্যেকে সত্য প্রচার করে বেড়ায়। আমাদের ইতিহাস কি শুধুই একজনের ? নাকি এই ইতিহাস সৃষ্টি করতে লক্ষ প্রাণের রক্ত বির্সজন দিতে হয়েছে ?শুধু শেখ মুজিবরের কথা বললে ভুল হবে, জিয়াউর রহমানের ভূমিকা এদেশে অবশ্যই রয়েছে। রয়েছে মাওলানা ভাসানী, তাজ উদ্দীন আহম্মদ, একে ফজলুল হক আরও অনেকে। এদের যদি আমরা সম্মান করতে না পারি তাহলে আমি মনে করি এদেশের কেউ সম্মানের যোগ্যতা রাখে না। সবাই ভণ্ড।

বেগম জিয়া লণ্ডনে চিকিৎসার উদ্দেশ্যে প্রস্তুতি গ্রহণ করেও অবশেষে কেক কাটার জন্য নিজের বিবেককে বিকিয়ে দিলেন। দলীয় কিছু গণ্ডমূর্খ নেতাদের কথা মতো দেশে রয়ে গেলেন। যতদূর জানি তিনি গতরাতে কেক কাটেননি। কিন্তু আমার কথা হলো এই দিনেই তার জন্মবার্ষিকী তা নিয়েও যে বাংলার জনমনে নানান প্রশ্ন রয়ে গেছে।এই দিনে যে কেউ জন্ম বার্ষিকী পালন করতে পারবে না তা বলা হয়নি। কোথায় আগরতলা আর কোথায় তালতলা এটাও ভাবতে হবে।

বেগম জিয়া আমাদের মতো এতো ছোট ব্যক্তি নয়, তার সম্মান অনেক। তিনি দেশের প্রতিনিধিত্বকারী। এজন্য তার বিবেক জ্ঞান সূর্যের মতোই উজ্জ্বল থাকতে হবে। বেগম খালেদা কেন আমাদের গর্বের নেত্রী শেখ হাসিনাকেও মনে রাখতে হবে তিনি কেমন মহৎ মানুষের সন্তান। আসলে হাতের পাঁচ আঙ্গুল এক হয় না। কারো না কারো বিসর্জন একটু বেশি দিতেই হয়। পৃথিবীর বুকে নাম লেখার জন্য মহৎ কাজ করতে হয় নয়তো সবচেয়ে খারাপ কাজ করতে হয়।

আমাদের দেশের রাজনীতিতে যদি এভাবে দিন অতিবাহিত হতে থাকে তাহলে এদেশ একদিন কুকুর বেড়ালের দেশে পরিনত হবে। মানুষ বলে কেউ থাকবে না। শুধু মানুষের কাঠামোতে পুতুল হয়ে থাকবে বাঙালি জাতি। আওয়ামীলীগ বিএনপি দেশের বড় শক্তিধর দু’টি দল এরা এখন রাজনীতির অপব্যবহার করা ছাড়া আর কিছুই করছে না। কেউ কাউকে সহ্য করতে পারছে না। কারো ভেতর সহানুভূতি কিংবা ক্ষমা নামক গুন নেই বললেই চলে। প্রতিহিংসার রাজনীতি সোনার বাংলাদেশে।

আচ্ছা ক্ষমতার উচ্চশিখরে উঠলেই কি মানুষ ভুলে যায় মৃত্যুর কথা? নাকি তারা ভাবে তাদের মৃত্যু বলে কিছুই নেই। কেন তারা কেউ ভাবে না এ পৃথিবীতে আমরা খুব বেশি দিনের জন্য আসিনি। আমরা সবাই একদিন আপনজন রেখে চলে যাবো। কিন্তু আমরা কি রেখে যাচ্ছি আগামী প্রজন্মের জন্য। আমাদের রাজনীতি আগামী প্রজন্মের জন্য রেখে যাচ্ছে রক্তের মদ, মানব গোস্তের কাবাব।

যে যতোই শেখ মুজিবর রহমানকে বাংলার ইতিহাস থেকে মুছে ফেলতে চান না কেন এটা কখনোই সম্ভব নয় এটা ভাবেন। শুধু তাই নয় বাংলা যতদিন আছে ততদিন বাংলার চার নেতা, জিয়াউর রহমান সবার নাম স্বর্ণাক্ষরে লেখা থাকবে। এসব বাদ দিয়ে আসুন সোনার বাংলাকে সোনার পরিণতি করি। সবুজের বাংলাকে সবুজে পরিপূর্ণ করি।