ক্যাটেগরিঃ প্রশাসনিক

 

আমি গত ৫ জুন ঢাকা থেকে নেপাল গেছি বাংলাদেশ বিমানের BG 0701 ফ্লাইটে এবং ফিরেছি এই লাইনেরই BG 0702 (ময়ূরপংঙ্খি) ফ্লাইটে। আমি যতদুর জানি বোয়িং-এর এই দুটো ফ্লাইটই ব্র্যান্ড নিউ।
Ticket-2
.

যাওয়ার সময় পেয়েছি আমার সীটের সামনে লাগানো খাবারের টেবিলে পুরনো খাবারের উচ্ছিষ্ট। অর্থাৎ আমার আগে ওই সীটে বসে যিনি খেয়েছিলেন তার ফেলে রাখা খাবারের ময়লা সেই টেবিলের সাথে লেগে ছিল। আমি হাত দিয়ে তা পরিষ্কার করে নিজের খাবারের ট্রেটা তাতে রেখে তবেই খেয়েছি। বিমান ল্যান্ড করার পর যে সেটা পরিষ্কার করতে হয় তা বোধহয় বিমানের ম্যানেজমেন্ট জানেন না? অথবা জানলেও কাজে ফাঁকি দিয়েছেন তারা।
BG 0702 Seat
.

আসার সময় পেয়েছি, আমার পাশের (মধ্যের) সীটের ছবির দাগটি। তিন সীটের ডান পাশেরটায় আমি বসেছিলাম আর সারির বামটাতে বসেছিলেন এক ইউরোপিয়ান। উনি এবং আমি দুইজনই দাগটা দেখামাত্রই বুঝে ফেলেছি সেটা কিসের দাগ। এবং দুইজনের মাঝের সেই সীটটা সেদিন ফাঁকা থাকায় দাগটা খুবই দৃষ্টিকটু লাগছিল। সত্যি বলতে কী, আমি সেই ইউরোপিয়ান ভদ্রলোকের দিকে লজ্জায় তাকাতে পারছিলাম না।

আমি টুকটাক অনেক ফ্লাইটেই চড়েছি। এর মধ্যে এয়ার এশিয়া, মালিন্ডোর মত বাজেট এয়ারেই বেশী চলাফেরা করেছি। কিন্তু কোনদিন তাদের কোন ফ্লাইটে এরকম ময়লা দেখিনি। সেই ফ্লাইটগুলো পুরোনো হলেও ভিতরে বাইরে ছিল একদম চকচকে। আর তাদের এয়ার হোস্টেস থেকে প্যাসেঞ্জার ব্রিফিং সবই ছিল একদম স্মার্ট। কিন্তু আমি বিমানের দুটো ফ্লাইটের একটাতেও তেমন কিছু দেখিনি। অথচ এদের ভাড়া ওদের চেয়ে অনেকটাই বেশী।

বিমানের এই মিস-ম্যানেজেন্টের জন্য কার কাছে নালিশ করবো? এত দামী বিমানগুলো সামান্য পরিষ্কারও যারা রাখতে পারেন না, তাদের দিয়ে জাতির কিসের উপকার হবে?

আমাকে কেউ বুঝান?

২৫/০৬/২০১৭