ক্যাটেগরিঃ ভ্রমণ

 

মূলত বর্ষায় ভ্রমণের আনন্দটাই আলাদা। সবুজ বাংলায় বৃষ্টির শুরুতেই গাছ-পালা নতুন করে পাতা ছাড়ে। বৃষ্টির পর ধূলো আর পাহাড়ঘেসা আবহাওয় না থাকাতে প্রকৃতির সব কিছুই সুন্দর দেখায়। প্রকৃতির এই নিরবতায় স্নিগ্ধ হাওয়া শহুরে জীবন থেকে টেনে আনে ভ্রমণ বিলাসীদের। আমরাও প্রকৃতির দান তাই প্রকৃতি আমাদের বিভিন্ন মৌসুমে কাছে টানে।

বর্ষায় কাঠশালীক নীড়ের সন্ধানে, ছবি- সুমন দে। স্থান : সিলেট মটরঘাট, ফতেপুর উইনিয়ন, গোয়াইনঘাট থানা।

সিলেট জাফলং সড়কে শত বর্ষপুরাতন পান্তশালা জৈন্তা রাজাত্ব কালে তৈরী। তখনকার রাজা সারিঘাট উত্তর পারে স্থাপনা করেণ বিশ্রাম নেয়ার জন্য জৈন্তা গন্তব্যে পথিক পৌছানোর জন্য। সেই সাথে রাজার কাছে দুত সংবাদ প্রেরণ করত দক্ষিন পার হতে বাংলাদেশের আগন্তুকের। ছবি- সুমন দে।

 

 

সিলেটের তামাবিল সংলগ্ন শ্রীপুর, নলজুরি পুঞ্জির পাহাড়ের গাঘেসে ঝর্ণা হতে আগত নদী যা সারি নদীর সাথে মিলিত হয়েছে। প্রকৃতির অপার সৌন্দর্য বেষ্টিত নদী, পাহাড় আর মেঘের নীল-সবুজের রং-তুলির কল্পনার দৃশ্য যা ভ্রমন বিলাসীদের আকৃষ্ট করবে। ছবি-সুমন দে।