ক্যাটেগরিঃ অর্থনীতি-বাণিজ্য

 

৯০ দশকের শেষের দিকে কেউ কী ভেবেছিল সময় ক্রয় করতে হবে! ‘সময়য়ের মূল্য’ পুঁথিগত হলেও এখন তা টাকার বিনিময়ে বাস্তব। যুক্ত হয়েছে মানুষের ভাষায় পোস্টপেইড ও প্রিপেইড। শুরুতে ৩০০ টাকার বিনিময়ে দেশব্যাপী ২১দিন সময় পাওয়া যেত গ্রামীণফোনে (জিপি)। দেশব্যাপী ডিজিটাল টিএন্ডটির প্রচলন ছিল বেশি। টিএন্ডটি বা লেন্ড লাইন থেকে সেল ফোন বা মোবাইলে যোগাযোগ ছিলনা। জিপি নিয়ে আসে জিপি গোল্ড সিম, যাতে টিএন্ডটি তে কল করা ও কল গ্রহণ করা যেত। ল্যান্ড ফোন থেকে গ্রহণের বেলায় চার্জ করা হতো মিনিটে ২ টাকা করে। সিলেট আইনজীবী জেলা বারে এরকম জিপি গোল্ডের প্রচারণায় একঝাঁক তরুণ লোক প্রোডাক্ট বিক্রির জন্য আসে। আইনজীবীরা বিষয় বোঝেন এবং মামলার সিদ্ধান্ত নেন। আইনজীবী নাজমুল আলবাব অপু বাদি হয়ে গ্রামীনফোনের উপর মামলা করেন। মামলাতে উল্লেখ করা হয়, ‘‘যার প্রয়োজনে কলদেবে সে তো কলরেটে চার্জ হচ্ছেই তবে কেন যিনি রিসিভ করবেন সে টাকা দেবে (ইনকামিং চার্জ)।

সিলেটে সর্ব প্রথম বাংলাদেশের মধ্যে প্রথম ২টার জন্য ইনকামিং চার্জ এর জন্য মামলা হয়। পরবর্তীতে মামলা আপোষ মিমাংসার মধ্যে দিয়ে জিপির ইনকামিং কলচার্জ বন্ধ হয়। দিনে ৫ থেকে ১০টি এসএমএস আসে জিপি থেকে। সরকারি প্রজ্ঞাপন, বিভিন্ন দিবস, জিপির প্রডাক্ট বিজ্ঞাপন, ইন্টারনেট প্যাক, মিনিট প্যাক, ফ্ল্যাক্সি প্লেন, ওয়াও বক্স, মাই জিপি, বেসরকারি বিজ্ঞাপন। প্রশ্ন হচ্ছে, ফ্ল্যাক্সি প্লেন হঠাৎ করে কেন সময় বৃদ্ধি জিপি ইউজারদের না জানিয়ে বন্ধ করে দিল? হেল্প লাইনে কল দিলে বলা হয়, বিষয়টি অভিযোগ জানানোর জন্যে। সিলেটে গত ডিসেম্বর মাসে তা লিখিত ভাবে দেয়ার পরও কোনো সুরাহা হয়নি!  ভাবলাম, জিপি কর্তৃপক্ষ আমলে নেয়নি। তাই জিপি ফেসবুক গ্রামীণফোন ভেরিফাইড পেজে লেখিছিলাম: “ফ্লেক্সি প্ল্যানে গ্রাহকের সমস্যা হচ্ছে। সেটা কি আগের অবস্থায় পরিবর্তন করে নেয়া হবে? ৭দিন, ১৫দিন ও ৩০ দিনের মেয়াদে গ্রাহক প্রতারিত হচ্ছে যে! বর্তমান প্রোগ্রামে গ্রাহকের কল চার্জ বেড়ে গেছে। সেটা বিবেচনায় নেবেন? মানুষ কে ঠকিয়ে কেনো চার্জ বৃদ্ধি করা হচ্ছে। গ্রামীণফোনের কাছে বাংলার মানুষ কি জিম্মি অবস্থায় রয়েছে, যে রকম ইচ্ছে প্রোগ্রাম পরিবর্তন করছে জিপি। ভোক্তা অধিকার আইনে গ্রামীণফোন কী প্রতারণা করছে না?

উত্তরে গ্রামীণফোন ভেরিফাইড পেজঃ @Sumon, Your participation on this page any relevant comments related to the GP posts is appreciated, You may also share your views or suggestion regarding our product and service and services in Fan-page.

আমরা সাংবাদিক, নাগরিক সাংবাদিক সবাই দেশের ও সবার মঙ্গলের জন্যে কোন বিষয় নিয়ে লেখা লেখি করি। এর ফলে, বেশির ভাগ ক্ষেত্রে বেতিক্রম অবস্থায়ই পরতে হয় বার বার। গ্রামীণফোন ভেরিফাইড পেজেও এর ব্যতিক্রম হয়নি! নিচের লেখা দেয়ার পর আমি লিখেছিলাম: কেনো গ্রাহক সচেতনা বাড়লে আপনাদের ফ্যান পেজে বাধা কিসের?

 

15977458_10211347744519117_7118268209574589813_n

এর পরপরই আমাকে ব্লক করলো Grameenphone ভেরিফাইড লাইকপেজ।

 https://www.facebook.com/Grameenphone/  তাদের (জিপি) খুশি করে পোস্ট দেয়া যায়। কিন্তু বাংলাদেশের পক্ষে, জিপির প্রতারণার কথায় কমেন্ট, পোস্ট সব ব্লক করে দেবে। এরা বাংলাদেশের গণতন্ত্র মানে না। বাংলাদেশের ভালো হোক চায় না। জিপি বাংলার অভিশাপ, অপশক্তি। কতটা প্রতারিত হলে বুঝবে প্রতারণা? প্রতারণা করছে গ্রামীনফোন, প্রতারিত হচ্ছে বাঙালি। দেশপ্রেম কখন, কী ভাবে হয় বুঝিনা!  দেশের প্রশাসনে, সরকারি সকল মোবাইল নাম্বারই গ্রামীণ। ছাত্রছাত্রী ভর্তিসহ জন্য সকল আবেদন ও ফলাফল দেশি পণ্য টেলিটক। সংসদ সদস্য সকলের মোবাইল নাম্বারও গ্রামীণ

আমাদের নোবেল জয়ী ড. ইউনুস সাহেব গ্রামীণ নামকরণ করে নরওয়ের (টেলিনর) এদেশে আনেন। একটা সময় লোগো পরিবর্তন হল! তখন নোবেল জয়ী ড. ইউনুস সাহেব কোনো প্রতিক্রিয়া দেখালেন না! গ্রামীণ ব্যাংক আছে সল্প ঋণে বেশি সুদ গ্রহণে। গ্রামীণফোন আছে (লোগো গেছে) পলিসি করে কলচার্জ বৃদ্ধি করবে না কেনো?

বাংলাদেশের রেলওয়ের ৯০ দশকে কত শতাংশ অপটিক্যাল ফাইবার গ্রামীণফোন অধিগ্রহণ করেছিলো সে সময় আজো তা জানেনা বাংলার জনসাধারণ। এখন আমাদের দেশীয় ইন্টারনেট ব্যবহার হচ্ছে বড় বড় ভবনের উপর টাওয়ারবেজ। সে জন্যে রেডিয়েশন এর প্রভাব কতটা ক্ষতিকর? কেনো প্রযুক্তির সঠিক ব্যবহার হচ্ছে না? ডিজিটাল বাংলাদেশের স্বপ্ন স্বপ্নই থাকবে সঠিক বাস্তবায়ন কী হবে!

ইস্টইন্ডিয়া কোম্পানিকে কেনো বিদেয় করা হয়েছিলো? তবে গ্রামীণ, নরওয়ের (টেলিনর) কেনো নয়? বাংলার টাইগারদের গ্রামীণের বিজ্ঞাপন ত্যাগ করুক এই কামনা। গ্রামীণ ফোন ত্যাগ করি, দেশের সম্পদ টেলিটক ব্যবহার করি। গ্রামীণফোনের বন্ধের দাবি জানাই। বন্ধ হোক গ্রামীণফোন। আমি সরাসরি বলছি গ্রামীণফোন কোম্পানিকে গ্রাহকের সাথে সংলাপে বসুন। লাইভ টেলিকাস্ট হোক। আপনাদের বাংলাদেশের প্রতি সেকেন্ডের উপর মুনাফা দৃশ্যমান হবেনা। প্রতারণা করছে গ্রামীণফোন কোম্পানি। প্রতারণাকারী কোম্পানিরা স্বাধীন বাংলায় যেন স্থান না পায়। গ্রামীণ সিম ব্যবহারকারীদের জানা নেই কতটা চার্জ বৃদ্ধি করেছে কলরেটে। প্রতারণার আরেক নাম গ্রামীণফোন!

***
ফ্লেক্সি প্ল্যানে প্রতারিত গ্রাহক (২য় খণ্ড)