ক্যাটেগরিঃ মুক্তমঞ্চ

 

পানথুমাই, গোয়াইনঘাট-সিলেট। ছবি-সুমন দে।ভালোবাসার সংজ্ঞা এখন পর্যন্ত কেউ ঠিক মত দিতে পারেনি। কিন্তু আমরা ভালোবাসা বলতে যা বুঝি তা হচ্ছে, একজন মানুষের মনে কারো অথবা কোন কিছুর প্রতি গভীর আবেগ ও টান। মানুষ সব সময়, যে অবস্থানে থাকুক না কেন তা ভালো লাগে বলেই থাকে। ভালো লাগাটা সম্পূর্ণ মানসিকতার ব্যাপার। বর্তমানে আমরা ভালোবাসা বলতে প্রেমিক-প্রেমিকার আর স্বামী-স্ত্রীর মাঝেই উপলদ্ধি করি। আসলে আমাদের চিন্তা-চেতনা ও পারিপর্শিক পরিবেশ হতে যা শিখি তাই আমাদের মানসিকতার প্রকাশিত হয়। ভালোবাসা আসলে সমস্ত শুভ ও সৃষ্টির শক্তি। এটা শুধুমাত্র জৈবিক বা শারীরিক ব্যাপার নয়। আবার শুধুমাত্র মানসিক বিষয়ও নয়। এটা একধরনের জৈব-মানসিক (psycho-somatic) প্রক্রিয়া।

কেউ পরিবেশ ভালোবাসে, কেউ বন্য প্রাণীদের ভালোবাসে, কেউ সমাজের উন্নতির জন্য কাজকে ভালোবাসে, সংগীত, চিত্রকর্ম, বই-পড়া  ইত্যাদি বৈশিষ্ঠ সমবপন্ন মানব, মানবীর কথা ভাবতে পারিনা কেন ?  কারণ আমাদের চারপাশে পরিবেশগত ভাবে তা ভাবার বা ভাবনার জন্য আমাদের সুশিক্ষা থেকে বঞ্চিত যে। বিজ্ঞানীরা গবেষণায় প্রাণ-রসায়নের নানা বিক্রিয়াকেই ভালোবাসা হিসেবে প্রমাণ করেছেন, তবু ভালোবাসার স্থান মানুষের জৈবিক স্তরের উপরে।

আমরা বীর বাঙালি। ভালোবাসতে পারি দেশমাতৃকে তাই এ দেশ আজ স্বাধীন। দেশপ্রেম ও নৈতিক ভাবে আমাদের ভালোবাসার প্রয়োগ যদি সত্যিকারের দৃশ্যত অর্থে অনুধাবন করা হত তবে দেশের উন্নয়নে জঙ্গিবাদ আর সাম্প্রদায়িক অপশক্তিধরদের দ্বারা বিশ্বে মাথা নত করতে হত ? বাঙালি বাংলাভাষী বিশ্ব কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর সম্পর্কে জানি। তবে তিনি তৎকালীণ সময়ে, রবীন্দ্রনাথের দর্শনচেতনায় “মানুষ ঈশ্বরের পূজার কথা বলেছিলেন।” মানবতা নিয়ে সেই সময় থেকে গুণীজনেরা বিভিন্ন ভাবে প্রকাশ করেছেন। আজ সমস্ত বিশ্ব যখন উত্তাল অগ্নিশিখায় পরিণত বিভিন্ন ধর্মের মতের মতাদর্শে, ধর্মান্ধতায়, কতটা বিবর্তনে আমরা মধ্যযুগের বর্বরতা থেকে উন্নত ? দেশপ্রেম, বিবেক, সংস্কৃতি, ঐতিহ্য লালন-পালন যদি মনে-প্রাণে ধারণ না করি; ততদিন আমরা মধ্যযুগের চেয়ে খুববেশী এগুতে পারিনি যে !

আক্ষেপ হয় কেন এই বীর বাঙালি ভালোবাসার এত্ত সব গুনাবলি থাকতে ভেলেনটাইনডে পালন করে ! পাশ্চাত্ব আমাদের আকাশ সংস্কৃতি থেকে শুরু করে প্রত্যেকটি বিষয়ে গ্রাস করেছে। কেন ভূলে যাই আমাদের ঐতিহ্যবাহি পহেলা ফাল্গুনের উৎসব কী আমাদের আরো বর্ণিল করে মনে রঙ মাখায় না ? প্রার্থীব সুখের আড়ালে আপেক্ষিক অনুভুতির মধ্যে যে ভালোবাসা নিহিত তাই কাম্য নয় কী ?