ক্যাটেগরিঃ ক্যাম্পাস, ফিচার পোস্ট আর্কাইভ

 
DSCN4991

DSCN4993
নাসিক ও ডিএনডি বাঁধের অন্তর্গত ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের উত্তর পাশে সানারপাড় এলাকাটি। এটি নাসিক এর অত্যন্ত অবহেলিত এলাকা। ডিএনডি সেচ প্রকল্পের দুর্নাম বলে আর সময় নষ্ট করতে চাই না। এর কথা বলতে গেলে প্রতিবেদনটা অত্যন্ত বাসি হয়ে যায়। সেচ প্রকল্পের বিস্তারিত শত শত খবর মিডিয়াতে ঘুরপাক খাচ্ছে কিন্তু কোন সমাধান হচ্ছেনা। সেচ প্রকল্পের সঠিক সমাধান হলে আমার এ প্রতিবেদনটি লেখার প্রয়োজন বোধ করতাম না।

DSCN4986 DSCN4984

অত্র এলাকার শিক্ষা প্রতিষ্ঠান স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা দীর্ঘদিন যাবৎ অনির্দিষ্ট কালের জন্য বন্ধ আছে। প্রতিষ্ঠানের মাঠগুলোতে কোমর পানি আর একতলা পর্যন্ত পঁচা পানিতে ডুবে আছে। প্রতিষ্ঠান প্রধানগণ কিছু দিন প্রতিষ্ঠান খোলা রেখেছিল। কিন্তু কোন ছাত্র-ছাত্রী প্রতিষ্ঠানে না আসায় প্রতিষ্ঠানগুলো বন্ধ রাখতে বাধ্য হয়েছে। আসলে প্রতিষ্ঠানে আসার মত কোন পরিস্থিতি নাই। এ এলাকার রাস্তাগুলো প্রায় পাঁচ বছর যাবত ভেঙ্গে আছে এবং বড় বড় গর্তে পরিনত হয়েছে। এখন আবার পানিতে ডুবে আছে অর্থাৎ চলাচলের অযোগ্য রাস্তা। অত্র এলাকার জনগণের যার যার কাজে সকালে বের হতেই হয়। পঁচা পানিতে প্রতিদিন হেঁটে হেঁটে প্রত্যেকের পায়ে ঘা হয়ে গেছে অর্থাৎ পা পঁচে গেছে।
DSCN4980
সানারপার শেখ মোরতোজা আলী উচ্চ বিদ্যালয়, সানারপাড় রশন আরা কলেজ ও সানারপাড় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাঠ।

6

বর্তমানে রাস্তাগুলোকে দেখলে মনে হয় খাল বা নদী। যেখানে রাস্তাগুলো ভেঙ্গে বেশি গর্ত হয়ে গেছে সে সব জায়গাগুলোতে সারি সারি নৌকা চলছে। দেখলে বলতে হয়, কী সুন্দর! মনোরম দৃশ্য! রাস্তা মেরামত করতে নাসিককে বললে তাঁরা বলে, ফান্ড নেই, কীভাবে রাস্তা করি? সরকারকে বললে তাঁরা বলে, এটা নাসিকের দায়িত্ব, আমরা কী করবো? এখন জনগণের বড় প্রশ্ন হলো, আমরা কী তাহলে মরবো? আমি বলবো, হ্যাঁ জনগণের তো মরণ ছাড়া উপায় নেই। আমি আর এ সমস্যা নিয়ে কথা বাড়াতে চাই না। কারণ কোনই সমাধান পাওয়া যাচ্ছে না।
4
নিমাই কাসারী বাজার থেকে মৌচাক পর্যন্ত নৌকা পারাপার।

2
সানারপাড় মনুমিয়া মার্কেট থেকে সানারপাড় বাসস্ট্যান্ড পর্যন্ত রাস্তায় নৌকা পারাপার।

5

তবে আসল কথা হলো, সরকারের যে কোন প্রজেক্ট থেকে রাস্তাগুলো মেরামত করার জন্য টাকা বরাদ্দ দেয়া। নাসিককে দায়িত্ব দিয়ে রাস্তাগুলোর কাজ অতি দ্রুত শেষ করা। তাহলেই জনগণ এ কঠিন দুর্ভোগ থেকে রক্ষা পাবে।

 

ছবিঃ সৈয়দ আনোয়ারুল হক