মনের আনন্দে শিশু খেলা করছে

/

ছোট্ট বেলার সেই মাটির হাড়ি-পাতিলের রান্না এখন আর সচর-আচর দেখা না গেলে ও খেলার ছলে এসব ছিন্নমূলে বেড়ে উঠা শিশুর রান্নার দৃশ্য সত্যি অবাক করে দেয়।হোক না খেলার ছলে তবু যে মনে করিয়ে দেয় শৈশব কালের স্মৃতি বিজড়িত দিন গুলোর কথা।শিশু মনের আনন্দে খেলা করছে। ছবিটিঃ চাঁদপুরের বড়স্টেশন থেকে তোলা। ছবিঃ রিফাত কান্তি সেন

slide

মানিকের গল্প…

/

বাবুটার নাম মানিক। বাড়ি টেকনাফে। বাবা গত হয়েছেন আরো বছর কয়েক আগে। সে এখন ক্লাস ফোরে পড়ে। চার ভাই-বোনের মধ্যে বড় ছেলে সে! টেকনাফ থেকে সেন্টমার্টিন যাওয়ার পথে জাহাজে কথা হয় তার সঙ্গে। নিজেদের অল্পকিছু জমি আছে, যেখান থেকে অল্পসল্প কৃষিজ পণ্যের চাহিদা মেটে। পরিবারের ভরণ পোষণের জন্য বাদবাকি সমস্ত অর্থ উপার্জনের দায়িত্ব মানিকের ওপরই।… Read more »

বাড়ি ভাবতে বাবার মুখ সে এক জগতবাড়ি

/

আমার মনে সেই সে শিশুকালে যেমন আজও তেমনই – বাড়ির কথা ভাবতে – বাবার মুখ। অতঃপর মা ও দাদীর মুখ। বাবার বাড়িটা জমজমাট ছিলো তখন। আমাদের কিশোর বেলায়, তরুণ বয়সেও বাড়িটা ভর্তি থাকতো আত্মীয়-স্বজনে। খালি থাকতোই না। মেহমান কেউ না কেউ হাজির। থাকার মেহমান। মা ও বাবা হাসিমুখে তাঁদের মেহমানদারি করতে থাকতেন। চাকুরীজীবী বাবা নিজের… Read more »