আমাদের আমগাছ

/

বলা হয় মানব জীবনের প্রতিটা ঘটনার মধ্যেই একটা করে ছোট গল্প থাকে। তেমনি ছোট একটা গল্প আছে আমাদের বাড়ির এই আম গাছটাতেও। আমি তখন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ি। আমের সিজনে প্রতিবারই বাড়িতে আসার সময় ঝাঁকা বোঝাই করে আম নিয়ে আসতাম। এর উদ্দেশ্য যেমন ছিল বাড়ির সবাইকে রাজশাহীর আম খাওয়ানো, তেমনি বাড়িতে আঁটি থেকে উন্নত জাতের আমগাছ… Read more »

এবং ভিসিআর ইফেক্ট

/

আমাদের শৈশব ও কৈশোর কালটা কেটেছে পুড়োটাই পারিবারিক নিয়ন্ত্রণে। আবার এক ধরনের স্বাধীনতাও আমরা উপভোগ করতাম। একে গ্রাম্য ভাষায় যদি বলি, তাহলে বলতে হয় “ছাড়া গরুর মত করে আমরা বড় হয়েছি”। অর্থাৎ গৃহপালিত ছিলাম ঠিকই কিন্তু গলায় দড়ি ছিল না! ফলে সুযোগ পেলেই ঘাস খাওয়ার সুযোগে অন্যের জমির দুই-চারটা ধান গাছও খেয়ে ফেলতাম। সেক্ষেত্রে গরু… Read more »

আমাদের বাড়ি

/

এসএসসিতে আমি খুব একটা ভাল রেজাল্ট করতে পারলাম না। সেটা যতটুকু না পড়ালেখার কারণে তারচেয়ে বেশী ছিল পরীক্ষার হলেও আমাদের দুষ্টুমিটা বজায় রাখার কারণে। আগের বছরগুলোতে পাবলিক পরীক্ষায় নকলের মহাৎসব চলার কারণে ৮৯ সাল থেকে এই পরীক্ষাগুলোতে ব্যাপক কড়াকড়ি শুরু হয়। আমরা ছিলাম ১৯৯০ সালের ব্যাচ এবং পড়তাম শত বছরের পুড়নো শ্যামকিশোর হাইস্কুলে। এটা ছিল… Read more »

বেওয়ারিশ কুকুর ও আমাদের লালু আর বাঘা

/

আমাদের সমাজের প্রচলিত বিশ্বাস- “রাস্তার কুকুর মানেই সে খারাপ তাই তাদের মেরে ফেলো! অথবা বন্ধা করে দাও!” নিতাই দা তার সিটিজেন জার্নালিজম ভিত্তিক পোস্ট “বেওয়ারিস কুকুরের আক্রমণ থেকে নারায়ণগঞ্জবাসীদের বাঁচাবে কে?” পোস্টে আমার উল্লেখিত ধারণাকেই উল্লেখ করেছেন। যেখানে শুধুমাত্র মানুষকেই বাঁচানোটাকে মূখ্য হিসেবে ধরে নেওয়া হয়েছে। ব্যক্তিজীবনে আমি যেমন পশুপ্রেমী নই। তেমনি নই, অপ্রয়োজনে এদের… Read more »