ক্যাটেগরিঃ ধর্ম বিষয়ক

 

tablig_jamat
আচ্ছা ধরুন, আপনাদের ডাকে সাড়া দিয়ে সকল মুসলমান ঘর থেকে বেড়িয়ে গেলেন দাওয়াতে। তাদের সন্তানদের লেখাপড়ার কী হবে? তাদের খাওয়ার খরচ কে জোগাবে? তাদের চিকিৎসার ভার কে নেবে? ইসলাম কি সন্ন্যাস ব্রত সমর্থন করে? নাকি ইসলাম বলে ইবাদতের জন্য মসজিদে গমন কর ইবাদত শেষে কাজের সন্ধানে বেড়িয়ে পর। ইসলাম কি ভিক্ষাবৃত্তি সমর্থন করে নাকি হালাল কাজকেও ইবাদতের মর্যাদা দেয়?

আপনারা মহানবী (সঃ) এর হিজরতকে উদাহরণ হিসেবে টেনে আনছেন। মহানবী (সঃ) কি স্বেচ্ছায় হিজরত করেছিলেন নাকি মক্কাবাসী বাধ্য করেছিল বলেই মহান আল্লাহর ইচ্ছায় হিজরত করেছিলেন? মহানবী (সঃ) প্রথম ইসলামের দাওয়াত কাকে দিয়েছিলেন? তাঁর স্ত্রী, ভাই, চাচাদের নাকি ঘর ছেড়ে বাইরে গিয়ে? প্রথম মুসলমান কে হয়েছিলেন উম্মুল মুমিনীন হযরত খাদীজা বিনতে খুওয়ালিদ (রাঃ)। তাই তো? প্রাপ্তবয়স্ক পুরুষদের মধ্যে প্রথম ইসলাম গ্রহণ করেছিলেন হযরত আবু বকর সিদ্দীক (রাঃ)। অপ্রাপ্তবয়স্ক পুরুষদের প্রথম ছিলেন হযরত আলী ইবনে আবু তালিব (রাঃ) এবং দাসদের মধ্যে প্রথম ছিলেন যায়িদ ইবনে হারিসা (রাঃ)।

হযরত আবু বকর (রাঃ) এর হাত ধরেই কয়জন মহৎপ্রাণ মানুষ প্রথম দিকেই ইসলাম গ্রহণ করার সৌভাগ্য অর্জন করেছিলেন, তাঁদের অন্যতম ছিলেন হযরত আল-আরকাম ইবনে আবুল আরকাম (রাঃ)। চূড়ান্ত গোপনীয়তার মধ্যে দিয়ে মুষ্টিমেয় কিছু মুসলমানদের নিয়ে রসুলুল্লাহ (সাঃ) ইসলামের শিক্ষা দেয়া শুরু করলেন।

ইসলামের প্রথম দিকের ইতিহাসে ঘুরে-ফিরে বারবার হযরত আরকাম (রাঃ) এর বাড়ির নাম এসেছে। ‘দারুল আরকাম’ বা ‘আরকাম এর বাড়ি’ নামে পরিচিত ছিল সেই ঘর। সাফা পাহাড়ের পূর্ব পাদদেশে অবস্থিত এই ঘরেই রসুলুল্লাহ (সাঃ) মুসলিমদেরকে ইসলামের বিভিন্ন বিষয় শিক্ষা দিতে শুরু করলেন। প্রকৃতপক্ষে এই দারুল আরকাম-ই মুসলিমদের প্রথম শিক্ষালয়।

অনেক সম্মানিত সাহাবীরা এই দারুল আরকামে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেছেন। হযরত আবু বকর (রাঃ) এর মা উম্মে খাইর (রাঃ) ইসলাম গ্রহণ করেছেন এখানে। যেই সাহাবীর ইসলাম গ্রহণ প্রকাশ্যে ইসলাম প্রচারকে অনেক তরান্বিত করেছিল, সেই হযরত উমর ইবনুল খাত্তাব (রাঃ)ও এই দারুল আরকামে ইসলাম গ্রহণ করেন।

হযরত উমর (রাঃ) এর ইসলাম গ্রহণের পরদিনের (কিছু বর্ণনায় দ্বিতীয় দিন) কথা। হযরত হামজা ইবনে আব্দুল মুত্তালিব (রাঃ) কে এক সারির প্রথমে এবং হযরত উমর ইবনুল খাত্তাব (রাঃ) কে আরেকটি সারির প্রথমে নিয়ে মধ্যখানে রসুলুল্লাহ (সাঃ) দাঁড়ালেন। বাকি সাহাবীদের দুই সারিতে ভাগ করে ইতিহাসের প্রথমবার প্রকাশ্যে বের হলেন মুসলিমদের ২৫ থেকে ৩০ জনের ছোট একটি দল। সবার মুখে লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ, মুহাম্মাদুর রসুলুল্লাহ। দলের গন্তব্য বায়তুল্লাহ কা’বা। ইসলামের ইতিহাসের এই প্রথম অধ্যায়টি টেনে আনার উদ্দেশ্য হল মহানবী (সঃ) এর ইসলাম প্রচারের দর্শনটি সামনে নিয়ে আসা।

আপনারা উদাহরণ হিসেবে টেনে আনেন সাহাবিদের, তাবে তাবেঈনদের ইসলাম প্রচারের উদ্দেশ্যে বিভিন্ন দেশে গমনের কথা। তাঁরা তো ইসলামের আলো পৌঁছে দিতে গিয়েছেলেন কারণ সেখানে তখনো ইসলামের আলো পৌঁছেনি। এখন তো ইসলাম নেই এমন কোন দেশই নেই। আপনারা কেন স্থানীয়দের দিয়ে নিজ নিজ এলাকার মুসলমানদের ইসলামী অনুশাসন মেনে চলার জন্য দাওয়াতি কার্যক্রম চালাচ্ছেন না। কেন সে জন্যে ভিন্ন এলাকার মানুষের টেনে আনতে হবে?

মহান আল্লাহ নির্দেশ দিয়েছেন তাঁর নির্দেশাবলী জানতে, মহা পবিত্র কুরআন শিখতে- বুঝতে। মহানবী (সঃ) এর সুন্নাহ জানতে এবং সে অনুযায়ী জীবন-যাপন করতে। একই সাথে উম্মতে মোহাম্মদীর অন্যতম প্রধান দায়িত্ব ইসলামী জ্ঞান অন্যের কাছে পৌঁছে দেয়া অর্থাৎ দাওয়াতি কার্যক্রম পরিচালিত করা।

প্রশ্ন হল সেটা কি ঘর থেকে শুরু করার কথা নাকি দূর দূরান্তে গিয়ে? আপনি কি ইসলামী জীবন-যাপন করছেন? আপনার সন্তান, আপনার স্ত্রী কি করছে? আপনার প্রতিবেশী? আপনার উপর সবার আগে কার হক? শেষ বিচারের দিনে মহান আল্লাহর দরবারে সবার আগে কে আপনার বিরুদ্ধে অভিযোগ জানাবে? আমরা প্রায়শই এই আহ্বান শুনতে পাই, চলুন চিল্লায় যাই। আমাদের প্রতিটি মসজিদই কি ইসলামী জ্ঞান অন্বেষণের প্রধান কেন্দ্র হয়ে উঠতে পারে না? আমার জানামতে প্রায় সকল মসজিদেই আসরের নামাজের পরে, কোথাও কোথাও মাগরিবের নামাজের পরে পবিত্র কুরআনের তাফসির করা হয়। হাদিসের বর্ণনা করা হয়, ব্যাখ্যা প্রদান করা হয়। অনেক মসজিদ থেকে আসরের নামাজ আদায় করে মুসল্লিদের এক অংশ আশেপাশের মানুষদের নামাজ আদায়ে উদ্বুদ্ধ করতে বেড়িয়ে পরেন সেটাই তো প্রকৃত দাওয়াত। যেখানে মানুষ একই সাথে দৈনন্দিন কাজকর্ম করছেন, ইবাদত করছেন আবার আল্লাহর রাস্তায় মেহনতও করছেন।

তাহলে এই ভাবে কেন কর্মক্ষম পুরুষদের কাজে ফাঁকি দিয়ে, পরিজনদের একা ফেলে রেখে বেরিয়ে পরতে হবে। তাঁরা পবিত্র মসজিদকে আবাসস্থল বানাচ্ছে। মসজিদের বারান্দা রান্নঘর এতে কি মসজিদের পবিত্রতা নষ্ট হয় না? তারা নারীদের পর্যন্ত উদ্বুদ্ধ করছেন ঘর ছেড়ে সাপ্তাহিক বা মাসিক চিল্লায় বেড়িয়ে পরার জন্য? এভাবে বেড়িয়ে পরার ফলাফল কিন্তু আমরা ইতিমধ্যেই দেখতে পেয়েছি। বিষয়টি কি ভাবার মত নয়?

কোন গোষ্ঠী বা কোন মতাদর্শের মানুষের ক্রিয়াকর্মকে প্রশ্নবিদ্ধ করা আমার উদ্দেশ্য নয়। আমি কেবল সঠিক পথটা অনুসন্ধানের চেষ্টা করছি। একইসাথে সকলকেই বিষয়টা নিয়ে ভাবার অনুরোধ জানাচ্ছি। মহান আল্লাহ আমাদের সকলকে হেদায়েত করুন এবং তাঁর হেদায়েতের উপরে স্থির রাখুন।