ক্যাটেগরিঃ ক্যাম্পাস

 

“এসো স্বপ্ন বুনি, এসো ছাড়িয়ে যাই নিজবৃত্ত” স্লোগান সামনে রেখে স্কুল অফ ড্রিম’ স্কুলে স্কুলে তাদের কার্যক্রম শুরু করেছে। ড্রিম স্কুলের মূল্য প্রতিপাদ্য হিসেবে উদ্যোক্তারা বলছেন- জীবনব্যাপী গাইডেন্স এবং কাউন্সিলিং প্রদানের একটি প্রচেষ্টা।

গত ১০ এপ্রিল ২০১৭ তারিখে স্কুল অব ড্রিম তাদের কার্যক্রম পরিচালনা করেছে জামালপুর জেলার প্রত্যন্ত খুপী বাড়ী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে। প্রথমে স্কুলের শিক্ষার্থীদের অ্যাসেমব্লি অনুষ্ঠিত হয়। অ্যাসেমিব্লিতে শপথপাঠ, জাতীয় পতাকার প্রতি সম্মান প্রদর্শন এবং জাতীয় সংগীত অনুষ্ঠিত হয়।

স্কুল অ্যাসেমব্লিতে অংশগ্রহণ করেছেন খুপীবাড়ী স্কুল কর্তৃপক্ষ এবং স্কুল অফ ড্রিমের সদস্যরা।

এরপর ড্রিম স্কুলের সদস্যরা চারটি দলে ভাগে হয়ে ক্লাসে অংশগ্রহণ করে শিক্ষার্থীদের সাথে আন্তরিক শিক্ষামূলক আলোচনা করেন। আলোচনার বিষবস্তু উন্মুক্ত থাকলেও প্রধানত উদ্দীপনামূলক বিষয়গুলো নিয়ে আলোচনা করা হয়, যাতে শিক্ষার্থীদের পড়াশুনা এবং জানার প্রতি আগ্রহ বাড়ে। তাদেরকে উচ্চশিক্ষা সম্পর্কে ধারণা দেওয়া হয়, অবসরযাপন, বই পড়া এবং জীবনকে সুন্দরভাবে উপভোগের কথা বলা হয়। কিছু বিষয়ভিত্তিক আলোচনা করা হয়, বিষয়ভিত্তিক আলোচনার মধ্য দিয়ে শিক্ষাথীদের পড়াশুনায় দুর্বলতার বিষয়টি বেরিয়ে আসে।

ড্রিম স্কুলের অংশগ্রহণকারী সদস্যরা জানান, দেখা গেছে দশম শ্রেণির বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষাথীরাও গণিতের সাধারণ সূত্র পারছে না, তারা সহজ গুণ করতে পারছে না, মৌলিক সংখ্যা ঠিকমত চিনছে না। ইংরেজিতে দুর্বলতা পরিলক্ষিত হয়েছে আরো বেশি। তারা feel শব্দটির অর্থ বলতে পারেনি, এমনকি শব্দটি বুঝতেই পারেনি বেশিরভাগ শিক্ষার্থী।  তবে ক্লাসে তারা আগ্রহ নিয়ে অতিথিদের কথা শুনেছে এবং তাদের ইচ্ছা এবং সীমাবদ্ধতার কথা নির্ভয়ে বলার সুযোগ পেয়েছে।

ক্লাস নিচ্ছেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের একজন সহকারী কমিশনার এবং নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জনাব ইমদাদুল হক তালুকদার প্লাবন, সাথে উপস্থিত রয়েছেন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সহকারি সচিব জনাব বিপ্লব তরফদার, উপস্থিত রয়েছেন প্রভাষক জনাব মো: মুহামেনুল হক রিয়াদ।

ক্লাস নিচ্ছেন লেখক সাংবাদিক দিব্যেন্দু দ্বীপ

ক্লাস নিচ্ছেন সহকারি কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জনাব শাখাওয়াত জামিল সৈকত।

ক্লাস নিচ্ছেন সহকারি কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সুবীর দাশ।

 

ক্লাস নিচ্ছেন সহকারি পুলিশ ‍সুপার এরিক বার্নাড বিশ্বাস।

ক্লাস নিচ্ছেন সহকারি কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ফারাশিদ বিন এনাম।

ক্লাস নিচ্ছেন সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার বাপ্পী দত্ত।

ক্লাস শেষে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয় অনুষ্ঠানের মূল আকর্ষণ ছিল, ড্রিম স্কুলের সদস্যদের সাথে স্কুলের শিক্ষার্থীদের একটি সংসদীয় বিতর্ক বিতর্ক অনুষ্ঠানটি আয়োজন করা হয় মূলত শিক্ষার্থীদেরবিতর্কসম্পর্কে ধারণা দিতে বিতর্কের বিষয় ছিল, “এই সংসদ মনে করে ফেসবুক একটি সামাজিক ব্যধিসরকারি দল তথা ড্রিম স্কুলের সদস্যারা প্রতিযোগিতায় পরাজয় মেনে নেন এবং প্রস্তাবটি প্রত্যাখাত হয় অর্থাৎ, ফেসবুকের সঠিক ব্যবহার এবং ইতিবাচক দিকটিই উঠে আসে

এর আগে লেখক সাংবাদিক দিব্যেন্দু দ্বীপ শিক্ষার্থীদের সৃজনশীল লেখা পর্যালোচনা করেন, এবং বিজয়ীদের নাম ঘোষণা করেন। আগেই ড্রিম স্কুলের পক্ষ থেকে লেখার কয়েকটি বিষয় নির্ধারণ করে দেওয়া হয়েছিল

শিক্ষার্থীদের লেখাগুলো পর্যালোচনা করে সৃজনশীল লেখার নানান দিক এবং বানান সতর্কতা সম্পর্কে বলছেন দিব্যেন্দু দ্বীপ।

চমৎকার নৃত্য পরিবেশন করেন স্কুলের চারজন শিক্ষার্থী।

বিতর্ক অনুষ্ঠানে উপস্থিত সরকারি দল এবং বিরোধী দল। সরকারি দল হিসেবে ছিলেন ড্রিম স্কুলের তিনজন সদস্য এবং বিরোধী দল হিসেবে ছিলেন অত্র স্কুলের তিনজন শিক্ষার্থী।

এটি আসলে প্রচলিত ধারার কোনো স্কুল নয় স্কুলের পাঠ্যক্রমে বা কার্যক্রমে কোনো সহায়ক ভূমিকা পালন করাও ড্রিম স্কুলের উদ্দেশ্য নয় কার্যক্রমটির মূল উদ্যোক্তা, বর্তমানে বাংলাদেশ সরকারের একজন সহকারি কমিশনার হিসেবে কর্মরত, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন ছাত্র, ফিনল্যান্ড হতে পিএইচডি ডিগ্রিপ্রাপ্ত জনাব ইমদাদুল হক তালুকদার প্লাবন জানালেন, “কার্যক্রমটি পরিচালিত হবে শিক্ষার্থীদের চিন্তার সীমানাটা বাড়িয়ে দেয়ার জন্য, তারা যেন স্বপ্নের বীজ বুনতে পারে, সকল প্রতিকূলতা কাটিয়ে তারা যেন আত্মবিশ্বাসী হয়ে উঠতে পারে। পাশাপাশি স্কুলে স্কুলে কার্যক্রমটি পরিচালিত হলে পরোক্ষভাবে শিক্ষকগণও একটি নির্দেশনা পাবেন। স্কুলের সমস্যাগুলো জানা হবে, শিক্ষার্থীদের দুর্বলতার জায়গাটি স্পষ্ট হবে। সর্বোপরি আমাদের দেশের প্রাথমিক এবং মাধ্যমিক শিক্ষার একটি পরিষ্কার চিত্র উঠে আসবে, যার মাধ্যমে পর্যালোচনা এবং সঠিক সিদ্ধান্ত গ্রহণ সহজ হবে।

তিনি আরো বলেন, “দেশের মেধাবী শিক্ষার্থীরা উচ্চ শিক্ষা সমাপ্ত করে স্কুলের শিক্ষকতা পেশায় যুক্ত হচ্ছে না। তারা প্রশাসন, ব্যাংক সহ অন্যান্য অনেক চাকরিতে যাচ্ছে। আমরা ড্রিম স্কুলের পক্ষ থেকে সরকারি এবং বেসরকারি পর্যায়ের কিছু গুরুত্বপূর্ণ মানুষকে যুক্ত করে নিয়ে স্কুলে স্কুলে যাচ্ছি, আমরা প্রচলিত ধারার বাইরে গিয়ে ক্লাস নিচ্ছি। আসলে আমাদের কার্যক্রমটি প্রাথমিক অবস্থায় আছে এখনো, তাই ভবিষ্যতে আরো পর্যালোচনা করে নীতি নির্ধারণ করা হবে।”