ক্যাটেগরিঃ নাগরিক আলাপ

 

সাইবার যোদ্ধারা সাময়িক বিজয়ের মাধ্যমে আনুষ্ঠানিক ভাবে তাদের যুদ্ধের সমাপ্তি ঘোষনা করেছে। জয়-পরাজয়ের জন্য নয়, আপন সত্তার মর্যাদা রক্ষার চেতনা থেকে তারা যে সীমিত শক্তি নিয়ে যুদ্ধের ময়দানে বাংলাদেশের পতাকা উড়িয়েছে সেজন্য তাদের বিপ্লবি সালাম।

সাইবার জগতে হ্যাকিং বা ক্র্যকিং, নৈতিক বা অনৈতিক সেটা নিয়ে বিজ্ঞজনেরা অনেক কথা বলাবলি করেছেন কিন্তু সীমান্তহত্যা বন্ধ কিংবা প্রতিবেশীর অনৈতিক সব ক্রিয়াকলাপ বা আবদারের ব্যাপারে তারা কিছুই করতে পারেননি। যা করে দেখিয়েছেন অজানা-অচেনা কয়েকজন মানুষ। আর যাই হোক বাংলাদেশ তো জানান দিতে পেরেছে যে আমরাও প্রতিবাদী হতে পারি। প্রকাণ্ড হিমালয় কি একটু ঝাঁকুনি খায়নি ? যারা জানেন তারা জানেন, ঝাকুনি লেগেছে। ভেতরে এবং বাইরে।

মুরগির খাঁচার মত সীমান্তে কাটা তারের বেষ্টনি নির্মাণ করে আমাদের বুঝিয়ে দেয়া হয়েছে মানুষ হিসেবে কতটা তুচ্ছ আমরা। আন্তর্জাতিক আইন অনুযায়ী অভিন্ন নদীর পানির অধিকার থেকে আমরা বঞ্চিত। ধান ক্ষেতের আইল ঠেলার মত সীমান্তে আমাদের ভূমি দখলের পাঁয়তারা চলছে।

আমাদের বর্তমান সরকার যে একমাত্র অসাধারণ কাজটি করতে পেরেছে তা হলো সমুদ্রসীমা নির্ধারণে অতি সং গোপনে এবং দ্রুততার সাথে সমুদ্র আইনবিষয়ক বিধিবিধানের আওতায় আর্ন্তজাতিক আদালতে নিজেদের বক্তব্য তুলে ধরা। বাকি আর সব বিষয়ে আমরা কেবল একতরফা ভাবে মেনেই নিচ্ছি, মেনে নিতেই হচ্ছে।

আর নয়, আমরা আমাদের অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে চাই । ৭১ এ যেহেতু পেরেছিলাম এখনো পারবো । ন্যায় প্রতিষ্ঠার যুদ্ধে জয় আমাদেরই…। সুন্দর একটা ভোরের অপেক্ষায় রইলাম । আমাদের সৈনিকেরা যেন জেগে থাকে।