ক্যাটেগরিঃ চারপাশে

{ মন্ত্রীর গাড়িচালক আব্দুস সালাম বলেন, “ভাগ্যক্রমে মন্ত্রীসহ আমরা বেঁচে গেছি। সাকুরা পরিবহনের গাড়িটি অনিয়ন্ত্রিতভাবে চলছিল।” }

সৌভাগ্যবান নৌমন্ত্রী সাজাহান খাঁন, সৃষ্টিকর্তা তাকে অনেকদিন বাঁচিয়ে রাখুন, রাত ১০টার এ.টি.এন নিউজ এ দেখলাম নৌমন্ত্রী সাংবাদিকদের সাথে ক্যামেরার সামনে কথা বলছেন। কথা হলো আজ যদি তিনি বেঁচে না থাকতেন, ক্যামেরার সামনে কি আজ তিনি বলতে পারতেন যে অপর গাড়ী চালকের আইন অনুযায়ী বিচার হবে, বলতে পারতেন তিনি ? দুর্ঘটনা যেহেতু দুর্ঘটনা হতে তো পারতো এমন, তাই না ? সংশ্লিষ্ট বিভাগের মন্ত্রী হয়ে এবার কি তার উপলব্ধি হবে যে আজ তিনি জীবিত নাও থাকতে পারতেন!! আমি ঠিক জানি না দূর্ঘটনা কালীন অবস্থাটা কি ছিলো, বা মাননীয় মন্ত্রী তখন সচেতন ছিলেন কি না ? বা মৃত্যুর মুখোমুখি হওয়ার অনুভূতিটা তার বিবেক কে কতটুকু নাড়া দিয়েছে।

এই ঢাকার ছোট্ট রাস্তায় কিংবা মহাসড়কে বেশিরভাগ গাড়ীচালক কি ভয়াবহ রকমের বেপরোয়া গাড়ী চালান, সেটা যারা নিয়মিত যাতায়াত করেন তারা জানেন। মাননীয় মন্ত্রী মহোদয় পুলিশ প্রোটকলে পাজেরো গাড়ীতে চড়ে সেটা কোনদিনই বুঝতে পারবেন না। কারন আমরা দেখেছি নিরাপদ সড়ক আন্দোলনের বিরুদ্ধে তিনি তার সংগঠনের শ্রমিকদের নিয়ে কিভাবে রাস্তায় নেমেছিলেন। বিখ্যাত ছাগল চিনলে ড্রাইভার তত্বের প্রবক্তা হিসেবে নিজেই বিখ্যাত হয়ে আছেন ।

শাসক হিসেবে যে মানুষগুলোকে আমরা নির্বাচন করি, মানুষ হিসেবে তাদের কাছে মানবীয় কিছু প্রত্যাশাও আমাদের থাকে। সেই জায়গাটা থেকে মাননীয় মন্ত্রীকে অনুরোধ করবো এবার অন্তত পরিবহন ব্যবস্থাটার দিকে একটু নজর দিন। মাননীয় যোগাযোগমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের কয়েকদিন বেশ দৌড়-ঝাঁপ করলেন, কিন্তু উন্নতি কি হয়েছে কিছু ? পেরেছেন তিনি ? যতক্ষণ না যে সংগঠনের নেতৃত্ব আপনি দেন বা দিয়েছেন তাদের সহ পুরো ব্যবস্থাপনাটা পরিবর্তনে আপনি সৎ না হবেন ততদিন হয়তো এভাবেই চলবে। মিশুক মুনির আর তারেক মাসুদদের মত উজ্জল নক্ষত্রপতন কিংবা আজ নৌমন্ত্রী শাজাহান খাঁন এর পর হয়তো অন্য কেউ। এভাবেই হয়তো চলতেই থাকবে।

দুর্ঘটনায় নৌমন্ত্রীর গাড়ি