ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

খালেদা জিয়া


বিশ্বের দিকে তাকালে আমাদের দেশের মত কোন নিম্ম স্তরের রাজনীতিবিদ হয়ত আর কোথাও পাওয়া যাবেনা। এরা ক্ষমতার পালাবদল ছাড়া আর কিছু্‌ই মানতে রাজী নয়। এক দল ক্ষমতায় আসার মাত্র এক বা দেড় বছর যেতে না যেতেই বিরোধী দলের অধিকারে সারা দেশে একটা অরাজকতা তৈরী করে জনগনের জন্য মায়াকা্‌ন্না দেখিয়ে রাস্তায় নেমে পড়ে। অথচ এই জনগনের প্রতি মায়া কান্নার মাঝে লুকিয়ে থাকা আসল তথ্যটা কেউ যেন বুঝেনা বলেই তাদের হৃদয়ে গেঁথে আছে।

বাংলাদেশে ১৯৭১ সালে স্বাধীন হয়। ৩০ লক্ষ শহীদের রক্তের অর্জন, লক্ষ লক্ষ মা-বোনের ইজ্জত, লাখ মুক্তিযোদ্ধাদের অসীম সাহসীকতার ফল আজকের বাংলাদেশ। দেশে যুদ্ধ হলে তার পক্ষে বা বিপক্ষ উভয় দলেই লোক থাকে। আমাদের দেশেও তার ব্যাতিক্রম হয়নাই। একদল বিপদ গামী, অত্যাচারী, ইসলাম ব্যবসায়ী, পাকি-হায়েনাদের সহোযোগীরা ছিল আমাদের স্বাধীনতার ঘোরতর বিরোধী। এজন্য তারা মিছিল, মিটিং, ক্যাম্পিং ইত্যাদি এমন কোন কাজ ছিলনা যা পাকিদের হয়ে করে নাই। ওরা এদেশে পাকি-হায়েনাদে ক্ষমতার দাপট দেথিয়ে হত্যা করেছিল লক্ষ লক্ষ স্বাধীনচেতাকে। ওরা ধর্ষন করেছে এবং পাকিদের হাতে তুলে দিয়েছিল আমাদের এদেশের মা-বোনদের। ওরা তখন ফতোয়া দিয়েছিল, মওদুদী ফতোয়া। আর ফতোয়াটা ছিল যারা পাকিস্তানের বিভক্তি চায়, যারা পাকিস্তানের বিপক্ষে তারা মুসলিম নয়, কাফের। ওদের হত্যা বা ধর্ষন করায় কোন পাপ নাই। (নাউযুবিল্লাহ)। সেই আলেমরা এখনও আমাদের বাংলার মাটিতে আছেন। তারা আছেন খুব আরামে,স্বযন্তে। তাদের লালন-পালনের দায়ীত্ব নিয়েছেন আমাদের দেশের বিরোধী দলীয় নেত্রী তথা ঐ দলের চামচাদের ভাষায় দেশনেত্রী খালেদা।

তিনি এর আগে জামায়াত তথা ৭১-এর বিতর্কিত সেই মওদুদীর দল জামায়ামী ইসলামী পাকিস্তানের শাখা দল বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর এক জনসভায় ৭১ এর সেই নরপশুদের (যারা এখন কারাগারে আটক আছে) তাদের মুক্তি চেয়েছিলেন।

সেই একই শুরে গতকাল তিন প্রকাশ্যে তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগরর রায় দিয়ে দিয়েছেন। আর তা হলো তারা কোন অন্যায় করে নাই। তিনি বলেছেন.”‘নিজামী, মুজাহিদ, সাঈদী, সালাহউদ্দিন কাদের চৌধুরীর বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দিয়ে নির্যাতন চালিয়ে মিথ্যা স্বীকারোক্তি আদায় করা হচ্ছে। তাঁরা কোনো অন্যায় করেননি। এভাবে মিথ্যা স্বীকারোক্তি আদায় গ্রহণযোগ্য নয়।’
সূত্র: কালের কন্ঠ

খালেদা কি আমাদের প্রশ্নের জবাব দিবেন ? আপনিই তাহলে বলে সেদিন কে কে অন্যায় করেছিল ? কারা তারা ? সে কি শেখ মুজিব ? তারা কি বীরশ্রেষ্ঠ বলে যাদের আমরা জানি তারা ? তারা কি লক্ষ লক্ষ বীরাঙ্গনারা ? তারা কি ঐ ৩০ লক্ষ শহীদেরা ? তারা কি যেসব মুক্তিযোদ্ধারা বেঁচে আছে বা মারা গেছেন তারা ?

আপনাকে জবাব দিতেই হবে । আপনি এদেশের এমন কেউ হয়ে যান নাই যে যা খুশি তাই বলে যাবেন, আমাদের তা গিলে খেতে হবে। আর আপনার এই মুখে বলে আপনারাও বিচার চান। আপনি কি বিচার করবেন বা করতেন তা জাতি জেনে গেছে।

আপনি বা আপনারা কী ভাবেন নিজেদেরকে? ভোটের সময়তো আমাদের কাছেই আসেন, কেন যাননা ঐ আমেরিকা, সৌদি, ভারত, পাকিস্তান, লন্ডনের প্রভুদের কাছে ? কেন আজ আন্দোলনের নামে রাস্তা-ঘাটের মানুষদের জীবনের সামন্য শান্তিটুক কেড়ে নিচ্ছেন ? কি অধিকার আপনাদের ?

আপনি ভেবেছেন, দেশে আপনি না হয় হাসিনা, এরাই সব ? একজন না আসলে আর একজন। একদল না আসলে আর এক দল। আর আপনি না আসলে আপনার ছেলে, হাসিনা না আসলে তার ছেলে। বাহ ! চমৎকার। আমারা সালা বোধাই মফিজের দল আবার গলা ফাটিয়ে এইসব দেশবিরোধী নেত্রীদের সাফাই গাই, শ্লোগান দেই। ধিক!!!

আপনি বলে দিলেন, অমনি ওরা রাজাকর থেকে দেশ প্রেমীক হয়ে যাবে ? এটা কি ১৯৭৯ সাল মনে করেন এখনও ? আপনাদের কুকর্ম নিয়ে যাতে অনলাইনে লেখা-লিখি না হয়, তার জন্য বিনামূল্যে সাব-মেরিন সংযোগ পেয়েও তা নাকচ করেছিলেন, ভুলে গেছেন ? জনগনকে বোধাই হাবারাম বানানোর জন্য আপনার কু-পূত্র দিয়ে দেশে এক ঠান্ডা ত্রাসের রাজত্ব চালিয়েছিলেন, তা কি ভুলে গেছেন ? এখন আবার কৌশলে সেই ত্রাসের বড়পূত্রকে ক্ষমতায় বসানোর জন্য নতুন নেতৃত্বের কথা বলছেন, বাহ !!! আপনারাই পারেন, কারন, লজ্জা না থাকলে তারা সবই পারে । যা আপনিও পারেন।