ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

 

আজ যখন চারিদিকে যোগ্য নেতৃত্বের অভাব অনুভব হচ্ছে ঠিক সেই মূহুর্তে আমি একটি রাজনৈতিক দল গড়ার তাগিদ অনুভব করছি । শুনে হয়ত অনেকেই অবাক হবেন। কিন্তু আমি বিবেকের কাছে দায়বদ্ধ। তাই আজ আমি কিছু প্রশ্নের উত্তর খোঁজছি । কেউ কি সদুত্তর দিতে পারবেন?

যে স্বপ্ন নিয়ে স্বাধীনতা যুদ্ধের শুরু হয়েছিল, আজ ৪১ বছর পরও তার স্বাদ কি আমরা পাচ্ছি?

দেশ আজ কিছু রাজনৈতিক দলের ক্রীড়ানকে পরিণত হয়েছে। আমাদের বিবেক, বুদ্ধি সবই আছে তবুও ৫ বছর পর পর আমরা কাকে ক্ষমতায় দেখব তা নিয়ে দুইভাগে ভাগ হয়ে যাই।

আমরা সবাই চাই দেশ এগিয়ে যাক, কিন্তু আমাদের সদিচ্ছা আসলে কতটুকু ? যদি তাই হত তাহলে আজ আমরা এই পরিস্থিতির শিকার হতাম না যেখানে গণতান্ত্রিক দেশ হওয়া সত্বেও গণতন্ত্রের চর্চা থেকে আমরা অনেক দূরে, সামাজিক বৈষম্য দিন দিন বেড়েই চলেছে ।

মানুষের সামাজিক নিরাপত্তা কতটুকু আমরা নিশ্চিত করতে পেরেছি? উত্তর অনেকটা প্রশ্নবিদ্ধ । আজও ঔপনিবেশিক শাসনের পুলিশি রাষ্ট্র থেকে আমরা বের হয়ে আসতে পারিনি।

অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি অর্জনে আমরা কতটা সফল? আমরা আমাদের প্রত্যাশিত লক্ষ্যে কেন পৌছাতে পারছি না ? আজো আমরা কেন উন্নয়নশীল দেশের কাতারে পড়ে আছি ? সমস্যা আমাদের কোথায়?

মেধাবীরা কেন দেশ ছেড়ে চলে যাচ্ছে ? আমরা কি সে হিসেব রাখছি? এখনই সময় যেভাবেই হোক এই দেশান্তর ঠেকাতে হবে । নীতিনির্ধারকদের একসাথে বসে কাজ করতে হবে । যারা বিদেশে অবস্থান করছে তাদেরকে কিভাবে দেশের কাজে লাগানো যায় তা নিয়ে পরিবেশ সৃষ্টি করতে হবে।

শিক্ষকরা দেশ গড়ার কারিগর । অথচ আমরা কি তাদের প্রাপ্য সম্মান দিতে পেরেছি? নুন আনতে পান্তা ফুরালে তো ক্লাসে গিয়ে ভাল পাঠদান করা যায় না । কেন মেধাবীরা শিক্ষক হতে চায় না? কারন বেতন যা তা দিয়ে সুখে-শান্তিতে বসবাস আজ তারা কল্পনা করতে পারছে না। এখনই সময় এ নিয়ে নতুন কিছু করা যাতে মেধাবীদের মূলধারার শিক্ষাদানের সাথে একীভূত করা যায় ।

আমরা কি শ্রমের মূল্য দিতে জানি? আমরা কি আজও কাজ কে কাজ হিসেবে মেনে নিতে পেরেছি? কুলি, মজুর, কামার, নাপিত আর খেটে খাওয়া হাজারো পেশা কে পেশা বলে কি স্বীকৃতি দিতে পেরেছি ?

নতুন প্রজম্মকে কি আমরা আকৃষ্ট করতে পেরেছি রাজনীতির সাথে যুক্ত করতে? কেন মেধাবীরা রাজনীতিতে আসতে চায় না? আমরা কি পরিবেশ তৈরি করতে পেরেছি? দেশের রাজনীতির দুর্যোগপূর্ণ মূহুর্তে কেন তারা পিছপা হচ্ছে?

এমন অবস্থা মেনে নেওয়া যায় কি? দেশকে যেভাবেই হোক টেনে উঠাতে হবে। জনগনের মৌলিক অধিকার নিশ্চিত করতে হবে, দারিদ্র্যসীমা থেকে বের হয়ে আসতে হবে, কাজের নতুন ক্ষেত্র তৈরি করতে হবে, আইন শৃংখলার উন্নতি করতে হবে, গণতন্ত্রের চর্চা বাড়াতে হবে, বৈদেশিক বিনিয়োগের পরিবেশ সৃষ্টি করতে হবে, পারষ্পরিক স্বার্থের ভিত্তিতে বন্ধুরাষ্ট্রের সংখ্যা বাড়াতে হবে, দূর্নীতির মূল উৎপাটন করতে হবে সর্বক্ষেত্রে।

যদিও সবই বাস্তবায়ন করা সময় সাপেক্ষ এবং একদিনে সম্ভব নয় তাই সুদূরপ্রসারী পরিকল্পনা নিয়ে এগিয়ে আসতে হবে। আমি প্রায়ই ভাবি একটা নতুন রাজনৈতিক দল গঠন করব। কিন্তু পাশে কাউকে পাচ্ছি না। কেউ কি আছেন আমার সাথে সামিল হবেন?