ক্যাটেগরিঃ ব্লগালোচনা

ভূমিকাঃ নদীমাতৃক বাংলাদেশে শ’ত শ’ত নদীর মত, হাজারও সমস্যা আর নিত্য নতুন ইস্যু আমাদেরকে আষ্ঠে পৃষ্ঠে জড়িয়ে রয়েছে সর্বদা। অধিকতর গুরুত্বপূর্ণ হওয়া সত্যেও, আজকের আলোচ্য ইস্যুটি কালকের আরেকটি ইস্যুর আড়োলনে হারিয়ে যাচ্ছে খুব সহজেই। আমরা ব্লগাররাও বসে নেই । কেউ ঝাঁপিয়ে পড়ছি শীতলক্ষ্যায়, কেউ বা বুড়িগঙ্গায়। কেউ বুঝে কেউবা না বুঝে ঝাঁপাচ্ছি, লাফাচ্ছি, একে অন্যকে ধাক্কাচ্ছি, ফেলছি কিংবা তুলছি, আবার কেউ কেউ অহেতুক পানি ঘোলা করছি, আর অন্যরা সেই ঘোলা পানিতে মাছ শিকার করছি। তো এই ভাবেই এগিয়ে চলছে সোনার Digital বাংলাদেশ। এমনকি চলবেও হয়ত। তো এত কিছু করেও আমরা ব্লগাররা কখনও কখনও হয়তবা হাঁপিয়ে-ঝাঁপিয়ে, বিরক্ত-বিব্রত, রাগান্বিত–আশান্বিত হয়ে ঘুরপাক খাচ্ছি ঐ একই আবর্তে।

আর তাই, “ব্লগ কেবল মাত্র Serious আলোচনার platform নয়”- এই ধারণা পোষণ করিয়া, নিজের (কু)সাহিত্য প্রতিভার উপযুক্ত platform ভাবিয়া, একেবারেই ভিন্ন প্রাসংগিকতায় টক-ঝাল-মিস্টি কিংবা তেতো-নোনতার স্বাদ দেবার অভিপ্রায়ে আমার এই (অ)রম্য রচনা

Target group: নতুন ব্লগার। তবে ভুল করিয়া পুরাতন ব্লগাররা পাঠ করিলে বিশেষ কোন আপত্তি থাকিবেনা।

১। অনুজ ব্লগাদের প্রতি নিবেদনঃ শুরুতেই আপনাদের কানে কানে একটা কথা বলি, {আপনাদের অগ্রজ হিসাবে ইতিমধ্যেই ৬টি! পোস্ট (Including this post) আর ৬৬ টি! মন্তব্য ছাড়িয়াছি, সংগে আছে আরও বেশ কিছু পাঠক মন্তব্য!! বিশ্বাস না হইলে ভিজিট করিয়া নিজেই মিলাইয়া লইতে পারেন}, অন্য কার সাথে শেয়ার করিবেন না, ভাই আমি নিজেও একজন সদ্য গজিয়ে ওঠা নব্য ব্লগার। তথাপি আপনাদেরকে ভরসা দিতেছি এই ভরসায়, যে আপনারা আমার দু’চারটি কচি হাতে লেখা পোস্ট পড়িয়া এবং মন্তব্য করিয়া, আমার পোস্ট গুলির পাঠক ও মন্তব্যকারির সংখা একটু আগাইয়া কিংবা বাড়াইয়া দিবেন। আর আমিও আপনাদের জন্য ঠিক ঐ একই কাজ করিব। দেখা যাইবে যে আমরা ( শুধু আমি আর আপনারা) অতি দ্রুত অন্যদের ছাপাইয়া, অনুজের পাঠ চুকাইয়া অগ্রজ হইয়া নব্য অনুজদের একই পথ নির্দেশনা দিয়া blog.bdnews24.com এর কলেবর ফুলাইয়া ফাপাইয়া ঢাউস আকার ধারনে নিজেদের সর্বদা নিয়োজিত রাখিতেছি। যাহা একজন ব্লগারের (Committed ব্লগার হিসাবে) প্রথম ও প্রধান দায়িত্ব। এই ব্যাপারে কাহারও দ্বিমত থাকে তো সাহস করিয়া বলুক দেখি!!

আপনারা লিখিবেন, আর আমি পড়িব ও মন্তব্য করিব, আর আমি লিখিব, আপনারা…………। Nonstop……

২। কি ভাবিয়া কি করিতে হইবে ( বা কি করিলে কি হইবে) অনুজদের প্রতিঃ
“ভাই কেমন আছেন? কি করিতেছেন? গোয়ালে এখন কয়টি গরু আছে? রোজ কয় সের করিয়া দুধ দেয়? পুকুরে তেলাপিয়া মাছ নতুন ডিম ছাড়িয়াছে কিনা? ভাবিসাব রোগ মুক্তির পর দুর্বলতা কাটাইয়া উঠিলেন কিনা? তাহাকে রোজ দুই গেলাস দুধ পান করিতে বলিবেন,” এইসকল কুশলাদি জিজ্ঞাসা করিয়া; কিংবা ধরুন “অমুক ব্লগারেরে সাথে আমার বিরোধ এখনও মিটে নাই, তাহার নতুন কোন পোষ্টের সন্ধান পাইলে আমাকে জানাইতে ভুলিবেন না, তাহাকে মন্তব্যের “হাতুরী” দিয়া শব্দবানের“পেরেক” ঠুকিয়া, পিটাইয়া পিটাইয়া সোজা তক্তা না বানাইতে পারিলে আমার মনে কোন প্রকার “শান্তি” বাসা বাধিবে না।“ -এরূপ সংশ্লিষ্ট বিষয়াদির অবতারণা করিয়া কিংবা এর Response দিয়াও কিন্তু মন্তব্যের সংখা বাড়াইতে পারা যায়।

৩। পরিচিতি বাড়াইবার সহজ উপায়ঃ উপায় ভাই একটাই। খুব সতর্কতার সহিত Observe করিবেন কাহারা কাহারা ব্লগে নিয়মিত আসা যাওয়া করেন, নিয়মিত পোষ্টাফিসে পোস্ট করেন, মন্তব্যের কলামে কলমের কালি ঝাঁকা-ঝাঁকি করেন, তাহাদের profile কিংবা post এ ঢুঁ মাড়িয়া, (নিয়ম রক্ষার্থে) নিয়মিত দুই একটা মন্তব্য ছুঁড়িবেন। এক্ষেত্রে মনে রাখা জরুরী, এমন এমন মন্তব্য ছাড়িবেন যে; হয় তাহারা গদগদ হইয়া; না হয় রাগান্বিত হইয়া আপনাকে ফিরতি মন্তব্য না করিয়া পারিবেন না!

৪। জামাতী ব্লগার চিনিবার উপায়ঃ কোন উপায় নাই। একটা প্রচলিত বচন মনে পড়িল; “ দাড়ি থাকিলেই যহি হুজুর হওয়া যাইত তবে, ছাগলে কি দোষ করিলো?” দোষের কিছু না থাকিলেও সমস্যা একটা আছে। আর তাহা হইল, তাহারাও আপনার আমার মত একই সুরে কোরাস গায়, আর যুত মত হইলে হাততালিও দেয়। তবে আপনার শ্রবণ (পড়ুন দৃষ্টি) শক্তি যদি প্রখর হইয়া থাকে, তাহলে সকল সুরের মাঝেও তাদের (তথাকথিত) মানবতার ফ্যাসফ্যাসে Rhythm, ধর্মান্ধতার High tune, কিংবা হিংস্রতার Dram beat ঠিকই টের পাইবেন। তবে সাবধান! এই প্রকার জামাতী ব্লগারদের পোষ্টে ঢুঁ মাড়িলেও ভুল করিয়া কক্ষনই কোন প্রকার ভাল কিংবা মন্দ মন্তব্য ছুড়িবেন না, মন্তব্য ছুড়িয়াছেন তো একটা বাড়তি “পাঠক মন্তব্যে”র সংখা তাহাদের জোব্বায় পুড়িয়া দিলেন। আরও এক প্রকার সেমী-জামাতী ব্লগার আছে, যাহাদের এখন অব্দি পুরাপুরি চিনিতে পারি নাই বলিয়া আপাতত কিছু নাইবা বলিলাম। সুযোগ পাইলে ইহাদের সম্পর্কে ভবিষ্যতে আলোকপাত করা যাইবে।

৫। High Lights Post: এই মর্মে নব্যসাধারনকে সতর্ক করা যাইতেছে যে, কোন ক্রমেই ভুল করিয়া High Lights Post-এ Click দিবেন না। ( ভাই Click’ করে না দেয়? এই বিষয়ে আমার পরিস্কার ধারণা নাই, Sorry!)। কারন অধিকাংশ High Lights Post এ High Lights Discussion থাকেনা।

৬। অগ্রজ ব্লগারদের প্রতিঃ (ভাই মাফ কইরা দেওয়া যায় না!) যেহেতু এখন পর্যন্ত অনুজের পাঠ চুকাইতে পারি নাই, তাই নির্বোধের মত তাহাদের ক্ষ্যাপাইয়া তুলিয়া, অগ্রজের দলে ভিড়িবার সুবর্ণ সুযোগ হারাইবার মত এতটা নির্বোধ এখন অব্দি হইয়া উঠি নাই।

পাদটীকাঃ
ক) যেহেতু এত কথার মাঝেও blog.bdnews24.com এর উদ্দেশ্যে (এক লাইনে হলেও) প্রশংসাসূচক বাক্যালাপ করিতে ভুল করি নাই, আশা করি ব্লগ পোষকগণ আমার এই মুল্যবান পরামর্শ ও উপদেশমুলক রচনার উপকারিতা হইতে অনুজ ব্লগারদের বঞ্চিত করিবেন না।

খ) এই লেখার এক দশমাংশ ইতিমধ্যে এক নব্য (আউলা মূনিষ; আপনার I.D –টা উল্লেখ করলাম উৎসমূলে, অচিরেই দেখিতে পাইবেন, আপনার পোষ্টের পাঠক ও মন্তব্যকারীর সংখ্যা উল্লেখযোগ্য হারে বাড়িয়া গিয়াছে, ভাই আমার পোস্টটিতে ঢুঁ মারিতে ভুলিবেন না কিন্তু) ব্লগারের প্রথম পোষ্টে প্রকাশিত হইয়াছে।

গ) আমার এই পোস্টটি Top Chart- এ না উঠিলে হতাশ হইব না। ধরিয়া লইব হয় Maximum ব্লগার/পাঠক হাসা-হাসি করিতে ভুলিয়া গেছেন, না হয় Serious বিষয়াদি লইয়া নিমগ্ন থাকিতে থাকিতে তাহাদের মধ্যে কতিপয়ের) মস্তিস্কে “গোবর” ছাড়া আর কিছুই অবশিষ্ট নাই। lol

ঘ) কেহ কেহ আমার এই রচনায় ইংরাজি শব্দের অধিকতর ব্যবহার দেখিয়া ভ্রুকুটি করিবেন। তাহলে খোলাস করিয়াই বলি; আমার এই পোস্টটি Top Chart-এ দীর্ঘদিন অবস্থান নিতে দেখিয়া, যদি কোন International Journal এর একখানা English Version চাহিয়া অনুরোধ পাঠায়, কালতিবিলম্ব না করিয়া অতি দ্রুত যাহাতে Translation করিয়া পাঠাইতে পারি তাহারই Advance প্রস্তুতি নিয়া রাখিলাম আর কি!

আমার কথাটি ফুড়োল, নটে গাছটি মুড়োল” {এটি কিন্ত আমার পূর্ববর্তী একটা (শিশু শিক্ষা বিষয়ক) পোস্টের শিরোনাম!!}

ওহ! শেষ (গুরুত্বপূর্ণ) কথাটিই বলা হয় নাই, আপনারা নিশ্চয় ইতিমধ্যে বুঝিয়া লইয়াছেন কি করিয়া “কথায় কথা” বাড়ানো যায়?? হে! হে!