ক্যাটেগরিঃ স্যাটায়ার

 

একদা এক সহজ সরল লোক এক পীরের কাছে গিয়ে জিজ্ঞেস করলো আচ্ছা কুমড়া গাছে কি তাল ধরে? পীর তখন ঝিম ধরে ঘুমাচ্ছিলেন তাই তিনি বললেন, হ্যাঁ? তাতেই সেরেছে, ঐই সহজ সরল লোক ভাবলেন তার পির হ্যাঁ বলেছেন তাই সে বাড়ি গিয়ে তার বাড়ির আঙ্গিনায় একটা কুমড়া গাছ লাগিয়ে দিল। ঘুম ভাঙ্গার পর পীর তার এক মুরিদ কে জিজ্ঞাস করলেন আমি যখন ঘুমাইতে ছিলাম তখন কি ঐ লোক আমাকে কোন কিছু জিজ্ঞাসা করেছিলো? তখন ঐ মুরিদ ঘটনাটা বললেন। পির বললেন ঠিক আছে সেটা পরে দেখা যাবে। কিন্তু সমস্যাতো বাঁধলো কিছুদিন পর যখন গাছে কুমড়া ধরা শুরু করলো তখন। যথারীতি ঐ সহজ সরল লোক তার গাছের প্রথম কুমড়া নিয়া তার পিরের কাছে গেলেন এবং বললেন এটা তো তাল না কুমড়া। জবাবে পীর বললো এটাই তাল, আর আমি যা বলবো এটা সেটাই। সহজ সরল লোকটি তখন বললো হ্যাঁ হুজুর এটাই তাল, এবং সে সব সময় কুমড়াকে তাল হিসেবেই চিনে।

আমাদের দেশের রাজনীতি এখন চলছে সেই নিয়মে। দলের প্রধান যদি এখানে রাত বারটায় মন্ত্রী এমপি ও রাজনীতিবিদদের বলেন দেখ কি সুন্দর সূর্য উঠেছে, আর তাতেই দলের সবাই হ্যাঁ বলে মাথা নাড়াবেন, এবং একজনও না বলে মাথা নাড়াবেন না, আর যদি কেউ কখনো মাথা নাড়ানও তাহলে প্রধান বলবেন তিনি যেটা বলেছেন সেটাই ঠিক। শুধু তাই নয় আমাদের দেশে মোসাহেবি ও চাটুকারিতা এখন সর্বক্ষেত্রে লক্ষ করা যায়। বিশ্ববিদ্যালযের উপাচার্য ও পুলিশ থেকে শুরু করে সবাই এখন চাটুকার।

যে কোন লোককে সম্মান দেখানো ভালো, দলীয় প্রধানকে সম্মান দেখানো তো আরও ভালো। কিন্তু সম্মানের নামে অন্যকে প্রতিনিয়ত মোসাহেবি বা চাটুকারী করা কি ঠিক? প্রতিটা লোকেরই তার আত্মসম্মানবোধ থাকা উচিত, সেটা মন্ত্রী এমপি, বিশ্ববিদ্যালযের উপাচার্য, পুলিশ ও রাজনীতিবিদদের বেলায় তো আরো বেশি। আমরা আসা করি আমাদের মন্ত্রী এমপি, বিশ্ববিদ্যালযের উপাচার্য, পুলিশ ও রাজনীতিবিদেরা মোসাহেবি বা চাটুকারীতায় নয় বরং তাদের কাজের মাধ্যমে মানুষের মনে জায়গা করে নিবেন এবং মানুষের কল্যানে কাজ করে যাবেন।