ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

 

সম্প্রতি বরিশালের জন সভায় খালেদা জিয়া এ কথাটি বলে অতীত ভুলের জন্য জাতির কাছে অনুতপ্ত হয়েছেন। ভারতে গিয়ে সে দেশের সরকারের কাছে বিভিন্ন প্রকার প্রতিশ্রুতি দিয়ে এসেছেন। ভাবতে ভাল লাগছে যে, খালেদা একটু একটু করে পাল্টাতে শুরু করেছেন।

কিন্ত জাতি যে কয়বার তাদের সময় দিয়েছে সেই সময়ে তারা কি করেছেন? সেই সময় থেকেই তারা আমাদের আসল চেহারাটা পাল্টে দিয়েছে। বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মধ্য দিয়ে ক্ষমতা দখল করে আমাদের নিজস্ব স্বত্বা বাঙ্গালী জাতীয়তাবাদ পাল্টে দিয়ে পাকিস্তানী কায়দায় বাংলাদেশী করেছে। স্বাধীনতা বিরোধী গোলাম আযমকে দেশে এনেছে। রাজাকারদের রাজনীতি করার সুযোগ করে দিয়েছে। হাজার হাজার মুক্তিযাদ্ধাদের হত্যা করেছে। করনেল তাহেরকে ফাঁসি দিয়ে হত্যা করেছে। রাজনীতির নামে বিশ্ববিদ্যালয়ের মেধাবী ছাত্রদের হাতে অস্ত্র তুলে দিয়েছে। নাস্তার টেবিলে বসে গুলি করার নির্দেশনামায় স্বাক্ষর করেছে। রাজনীতিকে জটিল করতে টাকা কোন সমস্যা নয় বলে ঘোষনা দিয়ে তা এ দেশে বাস্তবায়ন করেছে। জেল খানায় আটক যুদ্ধাপরাধীসহ সকল সন্ত্রাসীদের ছেড়ে দিয়েছে। বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারীদের রক্ষা করতে ইনডেমিনিটি অধ্যাদেশ জারি করেছে। খুনিদের বিভিন্ন ভাবে পুনর্বাসন করেছে। নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে হাজার হাজার হিন্দু দেশ ছেড়ে ভারতে আশ্রয় নিয়েছে। শত শত নারী ইজ্জত হারিয়েছে। দেশের জনপ্রিয় জননেতা মঞ্জুরুল ইমাম,আহসান উল্লাহ মাষ্টার, মমতাজ উদ্দিন,শাহ এ,এস,এম কিবরিয়াসহ হাজার হাজার আওয়ামী লীগ নেতাকর্মী হত্যা করেছে। শেখ হাসিনাকে হত্যার উদ্দেশে জনসভায় গ্রেনেড হামলা চালিয়ে শহিদ আই ভি রহমানসহ ৪০ জন নেতাকর্মীকে হত্যা করেছে। ২০০১ এ ক্ষমতা নেবার পর সারা দেশে সন্ত্রাসী তাণ্ডবের যে লেলিহান শিখা জ্বলে উঠেছিল সারা দেশ ব্যাপি, তা ভাবতে গেলে আজো শিউরে উঠতে হয়। হাওয়া ভবনের দুঃশাসনের ইতিহাস বাঙ্গালীর বুকে যে ক্ষতের সৃষ্টি করেছে তা কোন মুছে যাবে না। দেশবাসীর কষ্টার্জিত কোটি কোটি টাকা বিদেশে পাচার করার ব্যথা কি করে ভুলা যায়।

কান্নাকাটি করে যদি আবার খালেদা ক্ষমতায় আসে তাহলে যুবরাজ বাংলাদেশকে আর বাংলাদেশ রাখবে না। মুছে যাবে সকল অর্জন।