ক্যাটেগরিঃ অর্থনীতি-বাণিজ্য

 

গত বছরের জানুয়ারি ফেব্রুয়ারির দিকে আমার এক পরিচিত বড় ভাই বললেন- শোন, আমি অন্যদের মত বোকা না্ আমি শেয়ার বাজারে একটাকাও লাগাই নাই। আমি বললাম তা ভাল। তোমার বুদ্ধির তো সবাই তারিফ করে।

-তবে শোন, টাকা দ্বিগুন করার একটা উপায় পায়ছি্। আমি বললাম তাই নাকি? আগে যদি জানতাম তাহলে আমার টাকা কয়টা শেয়ার এ না দিয়া তোমাকে দিতাম। তা কোথায় দিছ টাকা?
-একটা কোম্পানিতে। বছরে দ্বিগুন। বললাম তুমি কি ডেসটিনি কর?
-আরে না। এইটা ডেসটিনি না। বিরাট ব্যাপার। চিত্র নায়ক রুবেল, চরমোনাই পির সাহেব (যদিও তার পীরত্ব নিয়ে নিজ ভাইেদর মধ্যে মামলা মোকদমা চলেছ) এর সাথে আছেন । উনারাও টাকা দ্বিগুন করার জন্য দিছেন। কোম্পানির নামটা হল এমওয়ে কর্পোরেশন। আমি বললাম ভাল। তবে টাকা ফেরত পাইলেই খুশি। এর পর অনেক বারই তার সাথে আমার কথা হয়েছে। আমি টাকার কথা জানতে চাইলেই সে বলে- এই তো সামনের মাসেই দিবে। মিলাত মাহফিল হবে আর টাকা দিবে। তার সামনের মাসের আর শেষ হয়নি। গতকাল একুশে টিভিতে দেখলাম তাদের কাহিনী। আমি ফোন করলাম আমার সেই বড় ভাইকে। সে বলল ভাই তোর তো অনেক লোকের সাথে পরিচয়। আমার টাকা টা একটু আদায় করে দে না। আমার লাভ চায় না। আসল হলেই হয়।
একুশে টিভির রির্পোটে অনেক বিনিয়োগকারিই সরকার তথা কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করলেন। আবার কেউ কেউ তো কর্তৃপক্ষের মুন্ডুপাতও করলেন। হা আমি ন্বীকার করি কর্তৃপক্ষের অবশ্যই কিছু করার আছে। অন্তত একটা নীতিমালাও করে দিতে পারে। তবে আমি যেটা সরল চোখে দেখি তা হল আমাদের লোভ। এ টা দোষের কিছু না। এটি মানুষের সহজাত। তবে গা না ঘামিয়ে যারা টাকা কামাবার চিন্তাই থাকেন তাদের জন্য এই পরিনতিই কাম্য।
আমার রসিক দাদা বলতেন- শোন, যে মেয়ে তোর প্রথম প্রস্তাবেই রাজি হয়ে যাবে, তাহলে বুঝবি সে এক কথাতেই তোকে ছড়ে যাবে। আর যার পিছনে ঘুরে ঘুরে শত চেষ্টায় রাজি করাতে পারবি সে তোকে ছেড়ে যেতেও ঐ রকম সময় নিবে। যে পেরেক এক ঘা তেই ঢুকে যায় তা বের হতে বেশি সময় নেয় না।
আসুন আমরা আমাদের লোভ নিয়ণ্ত্রন করি এবং গা ঘামিয়ে টাকা উপার্জন করি।