ক্যাটেগরিঃ আইন-শৃংখলা

“আমাদের উদ্দেশ্য ছিল পরাগকে জীবিত অবস্থায় তার মা-বাবার কাছে ফেরত পাঠানো। এ জন্য সন্ত্রাসীরা যে শর্ত দিয়েছে, তা মানা হয়েছে” …..স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

সন্ত্রাসীদের দাবীর কাছে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর পরাজয় স্বীকার করার এই তথ্যটি মিডিয়ায় প্রচার করার কি খুব বেশী প্রয়োজন ছিল? এভাবে সন্ত্রাসীদের স্ট্যাটাস বাড়িয়ে দেয়া হলে সন্ত্রাসীরা যে আরো বেশী মাত্রায় অপহরণের ঘটনা ঘটানোর সাহস পেয়ে যাবে সেটি কি আমাদের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মহোদয় একটিবারও ভেবে দেখার প্রয়োজনবোধ করলেন না !!!

অপহরণকারীদের আইনের আওতায় নিয়ে আসা হবে নাকি শর্তানুযায়ী তাদেরকে ধরাছোঁয়ার বাইরেই রাখা হবে সে সম্পর্কে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কিছু বলেন নাই।

যদি সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নেয়া না হয় তবে যেসব শর্ত মেনে পরাগ কে ছাড়িয়ে আনা হয়েছে সেসব শর্ত প্রকাশ করা হোক,এদেশে দুর্নীতিবাজ আর সন্ত্রাসীরা কিভাবে পার পেয়ে যায় সেসব দেশবাসীর জানা উচিত।

এতদিন উপদেষ্টা আর মন্ত্রীর সাথে দুর্নীতিবাজদের সখ্যতার বিষয়টি পত্র-পত্রিকায় দেখে পুলকিত হতাম,কিন্তু স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর আজকের বক্তব্য শরীরে রক্তের হীমশীতল ধারা বইয়ে দিল।

কৃতজ্ঞতা: প্রথম আলো