ক্যাটেগরিঃ গণমাধ্যম

 

আমরা বুক ভরে গর্ব করে বলি যে আমরা বাংলাদেশী আমরা বাঙালি । কিন্তু আমাদের এই বাংলায় শুধু নয় কোন বাংলার শিশুরা যেন বাংলা নিয়ে বেড়ে উঠতে পারছেনা। আমাদের দেশে অনেকগুলো টিভি চ্যানেল আছে তা বোধহয় সকলেই জানেন কিন্তু কোনটা কি শুধুমাত্র শিশুদের জন্য হতে পারত না ? এবং কি আমাদের পার্শ্ববতী দেশ ভারতের পশ্চিমবঙ্গে ও তেমন চ্যানেল এখন পর্যন্ত হয় নাই । যা ভাষার দাবীতে প্রাণ দেওয়া বীরের জাতি হিসাবে আমাদের কাম্য ছিলনা। কিন্তু কি আর করা তবে সাম্প্রতিক সময়ে শোনা যাচ্ছে যে ভারতে বাংলা ভাষায় ২৪ ঘন্টার একটি কার্টুন চ্যানেল চালু হতে যাচ্ছে।

কার্টুনের কথাই যখন আসলো তখন বলতে দ্বিধা নেই যে আমাদের দেশে আগে কার্টুন যা দেখানো হত তা সবই ছিল ইংলিশ ভাষার কিন্তু বর্তমানে কিছু হিন্দি ভাষার চ্যানেল দেখান হচ্ছে। যেহেতু হিন্দি কিছুটা বাংলা এর কাছাকাছি ভাষা সে কারনেই হোক আর আমরা অনেক বেশি হিন্দি চ্যানেল দেখে দেখে কিছুটা হলেও হিন্দি শিখে গেছি সে কারনেই হোক ইংলিশ থেকে এই হিন্দি চ্যানেল গুলো শিশুদের একটু বেশিই টানছে বলে আমি মনে করি। শিশু মনে কাটুন ও কার্টুনের চরিত্র অনেক বেশি করে গেঁথে যায় তাছাড়াও রঙ এর ছড়াছড়ি ও এই সব কার্টুনের অন্যতম আকর্ষনীয় বিষয় যা শিশুদের ভাল লাগে বলে মনে হয়।

রঙ্গিন বা রঙ এর বাহার শিশুরা পছন্দ করে তা আমরা হয়ত অনেক আগেই বুঝতে পেরেছি যখন দেখতাম বিটিভিতে বিজ্ঞাপন দেখতে দেখতে শিশুকে খাওয়ানো হত । শুধু তাই নয় অই সময় প্রাপ্ত বয়স্করা বিজ্ঞাপন আসলে টিভির সামনে থেকে উঠে যেত কিন্তু শিশুরা অনেক আনন্দ করে সেই বিজ্ঞাপন দেখতো অনেক মাকে দেখা গেছে অনুষ্ঠান চলাকালীন শিশুকে কোলে নিয়ে ঘুরতে হয়েছে কিন্তু যখন বিজ্ঞাপন শুরু হয় তখন সে শিশুটির সাথে টিভি দেখার সুযোগ পেত।

আমাদের চ্যানেল গুলোতে কিছুটা সময় অবশ্য শিশুতোষ অনুষ্ঠান দেখা যায় । তবে তার ব্যাপ্তি থাকে কিছু শিশু শিল্পীদের নাচ, গান ও কিছু বিনোদন নিয়ে । যা মোটেও কোন শিশুর উপযোগী থাকে কিনা সন্দেহ আছে । অনেক অনুষ্ঠানে দেখা যায় শিশুদের মুখে বড়দের গান বা প্রাপ্ত বয়স্কদের জন্য লেখা গান পরিবেশন করছে আমদের শিশুরা যা শুধু যে শিশুটি গাচ্ছে তারই নয় অনেক শিশুকে ইঁচড়েপাকা করে দিচ্ছে। দয়া করে শিশুদের কে দিয়ে এই সকল গান থামান। আর তা না হলে উঠতি বয়সে এই সব শিশুগুলো অকালে নষ্ট হবার অসীম সম্ভাবনা আছে ।

আমাদের শিশুদেরকে আমরা আন্তর্জাতিক ভাষা হিসাবে ইংলিশ শিখানোর জন্য অনেক চেষ্টা করতাম তার অন্যতম মাধ্যম ছিল পূর্বে বর্ণিত কার্টুনগুলো কিন্তু এখন যেভাবে আমরা হিন্দি শিখাচ্ছি তার কি দরকার ছিল কোন ? আমি অবশ্য সেটা বুঝতে পারিনা । ভারতের জন্য দরকার আছে কারণ তাদের জাতীয় ভাষা হল হিন্দি তাই তাদের শিশুরা হিন্দি শিখবে এটা তো স্বাভাবিকই, কিন্তু আমাদের শিশুরা ? তবে এর একটা পজেটিভ দিকও আছে আর তা হল আমাদের আগামী প্রজন্ম অনেক ভাষা শিখতে শিখতে বড় হবে তারা অনেক কিছু জানতে শিখতে ও বুঝতে সক্ষম হবে এটা ভবিষ্যতের জন্য হয়ত ভাল কিছু ই হবে । আমারা যেন পজেটিভ ফলাফল পাই এই আশাই করি। তবে সত্যিকার বাংলা ভাষা তারা জানবে কিনা তা নিয়ে ঘোর সংশয় আছে আমার মনে। শিশুদের বাংলা শেখাতে তাই বাংলায় তাদের সুস্থ বিনোদন দিতে হবে । আর তা না হলে তারা কিছু বাংলার সাথে সাথে হিন্দি আর ইংলিশ মিশিয়ে কথা বলবে বা বলতে বাধ্য হবে আর সে জন্য কিন্তু আমরাই দায়ী থাকব আজীবন । তাই আগামীদিনে নিজেদেরকে কাঠগড়ায় না দেখতে চাইলে এখুনি আমাদের নিশ্চিত করতে হবে বাংলায় শিশুদের বিনোদন এর ব্যবস্থাটা।