ক্যাটেগরিঃ প্রকৃতি-পরিবেশ

 

আজ ছিল ব্রিটেনের উষ্ণতম দিন। গতকাল রোববার ছিল রৌদ্র ঝলসানো উইকেন্ড। কেউ আশা করেনি ; আবহাওয়া দপ্তর ও নয়। তারা বলেছিল রোদ উঠবে হালকা বৃষ্টির ফাঁকে-ফাঁকে। তাদের পূর্বাভাষ মিথ্যে প্রমাণ করে দিয়ে ঝলসে উঠলো সূর্যি মামা। এবং এতে সবাই খুব খুশি ,একেবারে উৎসব শুরু হয়ে গেল। লোকজন ছুটতে শুরু করলো সমুদ্র সৈকত এবং পার্কের দিকে। আমরা ভ্যালেন্টাইনস পার্কের ভেতর দিয়ে টাউন সেন্টারে গেলাম; সেখানে মেলা বসেছে। শপিং ম্যাল-এর বেঞ্চিতে বসে আইসক্রিম খেতে খেতে রোদ উপভোগ করতে লাগলাম।

আর আজ সোমবার ছিল উষ্ণতম দিন। আবহাওয়া দপ্তরের কথা এবার ও মিথ্যে হলো। তারা বলেছিল ৩৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস পর্যন্ত হবে ,কিন্তু হলো ১০০ দিগ্রি ফারেনহাইট অর্থাৎ ৩৭.৭ ডিগ্রি। হাসপাতালে যেয়ে দেখি ৯২ বছরের এক বৃদ্ধা মহিলা শুয়ে আছে; Heat stroke -এ আক্রান্ত হয়ে কালই ইমার্জেন্সিতে ভর্তি হয়েছিল। রোদ খেতে বাইরে বসেছিল ;আড়াই ঘন্টা ধরে রোদ খেতে খেতে শেষে ভিরমি খেয়েছে। ওয়ার্ডে যেয়ে দেখি, ফ্যান চলছে, টেবিল ফ্যান।

নার্স স্টেসিকে জিজ্ঞেস করলাম,” গরম কেমন উপভোগ করছো ?
: ধুস, গরম আমার একদম ভাল্লাগে না।
হায়রে, ইংরেজ জাতি, ঠান্ডাও ভাল লাগে না, আবার বেশি গরম ও সহ্য করতে পারে না।
অথচ আগামী দিনের পৃথিবীটা যে একটি উষ্ণ পৃথিবী হবে তখন কী হবে?