ক্যাটেগরিঃ প্রকৃতি-পরিবেশ

 

এমন দেশটি কোথাও খুঁজে পাবে না কো তুমি,
সকল দেশের রাণী সে যে আমার জন্মভূমি।

বাংলাদেশ সকল দেশের রাণী হওয়ার যোগ্য কী না আমি জানি না। তবে ঢাকার প্রথম সার্ভেয়ার জেমস টেলর তার Topography of Dhaka বইতে লিখেছিলেন , ইন্ডিয়া যদি হয় ব্রিটিশ সাম্রাজ্যের Crown তবে বাংলা হলো তার The Most Precious Jewel in the Crown. এবং কে না জানে ব্রিটিশ সাম্রাজ্য পৃথিবীর প্রায় এক প্রান্ত হতে অন্য প্রান্ত পর্যন্ত বিস্তৃত ছিল। এবং ব্রিটিশ রাজ সবচে বেশি রেভিনিউ পেতো বাংলা মূলুক হতে।

ব্রিটিশ সাম্রাজ্যের সর্বোচ্চ লাভজনক অঞ্চল হওয়া ছাড়া ও বাংলাদেশের আরো কিছু বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা অনন্য। বঙ্গোপসাগরের অববাহিকায় অবস্থিত এই দেশটি পৃথিবীর বৃহত্তম ব-দ্বীপ -ইংরেজিতে যাকে বলে Delta island. অনেকে আদর করে বলেন সবুজ ব-দ্বীপ বা The Green Delta. অনেকে এটাও বলে থাকেন বাংলাদেশের মতো সবুজ দেশ নাকি আর নেই। একথাটিও কত টুকু সত্যি তা জানি না কিন্তু আকাশ হতে বাংলাদেশকে দেখলে যেমন সবুজ ঘাসে ঢাকা একটি কার্পেটের মতো মনে হয় পৃথিবীর আর কোনো দেশকে এরকম দেখায় বলে আমার জানা নেই। তবে বাংলাদেশের মাটির মতো এতো উর্বর মাটি যে পৃথিবীর আর কোথাও নেই এটা নিশ্চিতভাবেই বলা যায়। আর পৃথিবীর বৃহত্তম ম্যানগ্রোভ ফরেস্ট যে বাংলাদেশের সুন্দরবন এটা আমরা অনেকেই এখন জানি।

তবে ১৪ বছর ব্রিটেনে থেকে আমার এ ধারণা ও হয়েছে যে এক বাংলাদেশের মাটিতে যতো ধরণের , শাক-সব্জি এবং শস্য জন্মায় পৃথিবীর আর কোন দেশের মাটিতে এমন হয় না। বাংলাদেশের ৫৬ হাজার বর্গ মাইলের(প্রায়) ভেতর যতো ধরণের ফল-মূল হয় তা ও পৃথিবীর অন্য দেশে হয় বলে জানা নেই। শুধু তাই নয়, বাংলাদেশের নদী-নালাগুলোতে যতো ধরণের মাছ পাওয়া যায়, এতো প্রকারের মিঠে পানির মাছ ও পৃথিবীর অন্য কোন দেশে পাওয়া যায় না বলেই আমার ধারণা। এছাড়া এই ছোট ভূ-খন্ডে যতো ধরণের পাখি এবং পশু পাওয়া যায় তুলনামূলকভাবে তাও যথেষ্ট দুর্লভ। আর পশুদের মধ্যে সবচে ভয়ংকর, সুন্দর, বুদ্ধিমান এবং রাজসিক যে, সেই রয়েল বেঙ্গল টাইগারের মূল বিচরণ ক্ষেত্র যে বাংলাদেশ এটা তো সারা বিশ্ব জানে ।