ক্যাটেগরিঃ স্বাস্থ্য

 

দেহের রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে রোগের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলার স্বপ্ন বাস্তবায়িত হয়েছে বাংলাদেশে। বাংলাদেশী একজন গবেষক ইমিউনোলজি বিজ্ঞানের সঙ্গে হোমিওপ্যাথির সমন্বয় ঘটিয়ে এই অসম্ভব কাজটিকে সম্ভব করতে সক্ষম হয়েছেন। যার দ্বারা তিনি প্রায় সকল প্রকার আরোগ্য অসম্ভব রোগকে আরোগ্য করতে সমর্থ হয়েছেন। বাংলাদেশে উদ্ভাবিত এই প্রযুক্তি একদিন সমগ্র বিশ্বের স্বাস্থ্য সেবায় নতুন এক মাত্রার সংযোজন করবে, যার দ্বারা মানুষ থাকবে আজীবন রোগমুক্ত।

১৯৪২ সালে বিজ্ঞানী জুলস টি ফ্রয়েন্ড নামে আমেরিকার একজন অণুজীব বিজ্ঞানী কিছু প্রাকৃতিক রাসায়নিক উপাদানের সঙ্গে জীবাণুর মৃত দেহকে মিশিয়ে জন্তুর দেহে ইনজেকশনের দ্বারা প্রয়োগ করে ক্যান্সারজনিত টিউমার আরোগ্য করেন। তার এই গবেষণালব্ধ প্রক্রিয়া মানুষের বেলায় ইনজেকশনের দ্বারা প্রয়োগ করার চেষ্টা ব্যর্থ হয়। কারণ মানব দেহে ঐ সকল বিজাতীয় পদার্থকে ইনজেকশনের দ্বারা প্রয়োগ করলে মাংশপেশিতে পচন ধরে যায়।

দীর্ঘ ২০ বছর গবেষণার পর বিজ্ঞানী ফ্রয়েন্ডের পদ্ধতিটি মানবদেহে প্রয়োগের অযোগ্য বলে পরিত্যক্ত হয়। এরপর চিকিৎসা বিজ্ঞানীরা দেহের রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতাকে উজ্জীবিত করার জন্য সাইটোকাইন নামক উপাদান নিয়ে গবেষণা শুরু করেন। সাফল্যের দ্বারপ্রান্তে পৌঁছার পর কিছু জটিলতার কারণে যা সম্পূর্ণ সাফল্য লাভ করতে ব্যর্থ হয়। চিকিৎসা বিজ্ঞানের এই ব্যর্থতা ক্যান্সারসহ জটিল সব রোগের চিকিৎসায়, চিকিৎসা বিজ্ঞানের অগ্রগতিকে মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করে ফেলেছে। বর্তমানে চিকিৎসা বিজ্ঞানীদের গৃহীত পদ্ধতি কোন রোগকেই নির্মূল করতে সক্ষম হচ্ছে না। বরং রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতাকে দূর্বল করে রেখে রোগের তীব্রতাকে ক্রমাগত বাড়িয়েই চলেছে, যা মানুষকে অকাল মৃত্যুর দিকে নিয়ে যাচ্ছে।

চিকিৎসা বিজ্ঞানের এই প্রতিবন্ধকতাকে লক্ষ্য করেন বাংলাদেশী একজন গবেষক। তিনি দীর্ঘ ৩০ বছর যাবৎ ইমিউনোলজি বা রোগপ্রতিরোধ বিদ্যার অগ্রগতির উপর পর্যবেক্ষণ চালাচ্ছিলেন। ফ্রান্সের হোমিওপ্যাথি ও ইমিউনোলজি বিজ্ঞানের গবেষক ডাঃ ও,এ, জুলিয়ানের পদাঙ্ক অনুসরণকারী এই গবেষক মানুষের আয়ুষ্কাল বৃদ্ধির জন্য বিজ্ঞানী ডাঃ অব্রে ডি গ্রে কর্তৃক পরিচালিত এ্যান্টি এ্যাজিং নিয়ে গবেষণারও একজন একনিষ্ঠ অনুসারী ছিলেন।

বিজ্ঞানী ফ্রয়েন্ডের আবিষ্কারকে অবলম্বন করে উক্ত বাংলাদেশী গবেষক মানুষের দেহে উপরোক্ত উপাদানগুলোকে প্রয়োগ করার পথ খুঁজতে থাকেন। তিনি লক্ষ্য করেন যে, আয়ুর্বেদ, ইউনানী ও হোমিওপ্যাথিতে ডাঃ ফ্রয়েন্ড কর্তৃক ব্যবহৃত ঐসকল বিজাতীয় পদার্থগুলোকে ইনজেকশনের পরিবর্তে যুগ যুগ ধরে মুখে খাইয়ে প্রয়োগ করা হয়ে থাকে, যার দ্বারা বিভিন্ন রোগকে আরোগ্য করা সম্ভব হয়েছে, অথচ এর ফলে ইনজেকশনের মতো কোন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দেয় নি। কিন্তু উপরোক্ত তিনটি শাস্ত্রের উদ্ভাবক গবেষকগণ বিষে বিষ নাশ, বায়ু পিত্ত কফের মতবাদ এবং সমবিধানের মতবাদ দ্বারা আরোগ্য প্রক্রিয়াকে ব্যাখ্যা করেছেন। আমাদের গবেষক ইমিউনোলজি বা রোগপ্রতিরোধ বিদ্যার আলোকে এই তিন মতবাদকে বিশ্লেষণ করে দেখতে পেলেন যে, বিজ্ঞানী ফ্রয়েন্ডের পদ্ধতির সঙ্গে এই তিনটি প্রাচীন চিকিৎসা পদ্ধতির একটি গভীর সম্বন্ধ বিরাজ করছে। মানব দেহের ভিতর বিদ্যমান নয় এমন যে কোন উপাদানকে যদি মানবদেহে প্রবিষ্ট করানো হয় তাহলে দেহের শ্বেতকণিকা নামক অতি সূক্ষ্ম রক্ষীবাহিনী উত্তেজিত হয়ে উঠে এবং দেহে প্রবিষ্ট বিজাতীয় পদার্থসমুহকে ধ্বংস করতে শুরু করে।

এই কাজটি করার সময় তারা দেহের ভিতর বিদ্যমান মাতৃগর্ভে থাকার সময় জন্মের পূর্বেই অথবা জন্মের পরে যেসকল জীবাণু প্রবেশ করে ইমিউন টলারেন্স নামক রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতার অকার্যকর অবস্থার সুযোগে মানুষের দেহে স্থায়ীভাবে বসবাস করছিল এবং নানাবিধ রোগের সৃষ্টি করছিল, তাদেরকেও ধ্বংস করে ফেলে। এভাবে যদি বিজ্ঞানী ফ্রয়েন্ডের আবিষ্কার দ্বারা আমরা প্রাচীনপন্থী প্রাকৃতিক চিকিৎসা পদ্ধতিগুলোকে ব্যাখ্যা করতে পারি তাহলে চিকিৎসা বিজ্ঞানীদের সংশয় দূর হয়ে যেতে পারে। কারণ চিকিৎসা বিজ্ঞানীরা নানাবিধ প্রাকৃতিক বিষাক্ত উপাদান দ্বারা রোগ চিকিৎসাকে যুক্তি সংগত বলে মেনে নিতে পারছেন না। প্রসংগতঃ উল্লেখ্য যে, পোলিও টিকাকে ইনজেকশনের দ্বারা প্রয়োগ করার ফলে যে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার কারণে অগনিত শিশু পোলিও রোগে আক্রান্ত হয়ে বিকলাঙ্গ হয়ে গিয়েছিল, মুখে খাইয়ে প্রয়োগ করার ফলে সেই পার্শ¦প্রতিক্রিয়া থেকে আজ মানুষকে মুক্ত রাখা সম্ভব হয়েছে। যেমনটি সম্ভব হয়েছে ডায়ারিয়া রোগের ক্ষেত্রে ইনজেকশনের পরিবর্তে মুখে খাইয়ে ওরস্যালাইনের ব্যবহারকে প্রবর্তন করে।

দেহের যেকোন জটিল রোগের কারণ হিসাবে কোন না কোন ভাইরাস এবং সেই ভাইরাস দ্বারা সৃষ্ট এ্যান্টিজেন নামক বিষকেই দায়ী করা হয়ে থাকে। ভাইরাস ধ্বংসকারী ঔষধ দ্বারা ভাইরাসকে ধ্বংস করা সম্ভব হলেও প্রাণহীন এ্যান্টিজেন নামক বিষকে ধ্বংস করা সম্ভব নয়। নানাবিধ রোগ সৃষ্টিকারী ঐসকল এ্যান্টিজেন নামক বিষসমুহকে একমাত্র টি এবং বি সেল নামক শ্বেতকণিকাই ধ্বংস করতে পারে। যার জন্য প্রয়োজন ঐসকল এ্যান্টিজেন নামক বিষের অনুরূপ চরিত্র বিশিষ্ট প্রাকৃতিক উপাদানকে খুঁজে বের করা। এই কাজে আমরা হোমিওপ্যাথি পদ্ধতিতে সুস্থ দেহধারী ব্যক্তিদেরকে মুখে খাইয়ে পরীক্ষা করে যেসকল সৃষ্ট রোগলক্ষণ পাওয়া গিয়েছে সেগুলোর ভিত্তিতে বিচার করে সমলক্ষণ বিশিষ্ট প্রাকৃতিক উপাদানকে বেছে নিতে পারি। অতঃপর সেগুলোকে সূক্ষ্মমাত্রায় মুখে খাইয়ে প্রয়োগ করলে দেহের টি এবং বি সেলসমুহ উত্তেজিত হয়ে উঠে এবং মুখে খাওয়ানো উপাদানগুলোকে ধ্বংস করতে গিয়ে অনুরূপ চরিত্র বিশিষ্ট ভাইরাস দ্বারা সৃষ্ট এ্যান্টিজেন নামক বিষকে ধ্বংস করে রোগকে নির্মূল করে থাকে।

ইমিউনোলজি বিজ্ঞানের আলোকে হোমিওপ্যাথি বিজ্ঞানের এই ব্যাখ্যার সাহায্যে বাংলাদেশী এই গবেষক প্রায় যে কোন জটিল রোগকে আরোগ্য করতে সক্ষম হয়েছেন। প্রচলিত হোমিওপ্যাথি চিকিৎসার নীতিমালার সঙ্গে ইমিউনোলজি বা রোগপ্রতিরোধ বিজ্ঞানের সংযোগ ঘটিয়ে রোগীর দেহের মেডুলার বা মজ্জাগত, সেলুলার বা কোষগত এবং হিউমোরাল বা রসগত ক্ষেত্রে বিদ্যমান স্টেম সেল, টি সেল এবং বি সেল সমুহের কর্মক্ষমতা বৃদ্ধি করে আরোগ্যের প্রক্রিয়াকে উন্নততরভাবে ক্রিয়াশীল করতে সক্ষম এই নব উদ্ভাবিত প্রক্রিয়া, চিকিৎসার ক্ষেত্রে এক বৈপ্লবিক পরিবর্তন আনতে সক্ষম হয়েছে। শুধুমাত্র রোগলক্ষণকে দূরীভূত করে নয় বরং আভ্যন্তরীন ক্ষেত্রে রোগবিষ বা এ্যান্টিজেনের পুঞ্জিভূত আধারকে ধ্বংস সাধন করার ফলে ডায়াবেটিস, হেপাটাইটিস, ক্যান্সার, যক্ষ্মা ইত্যাদি সব রোগের মূল উৎপাটন করা সম্ভব হয়েছে, যে কাজটি করতে আধুনিক চিকিৎসা বিজ্ঞান আজও সক্ষম হয়নি।

এই চিকিৎসার দ্বারা দেহকে বিষমুক্ত করার ফলে মানুষের আয়ুষ্কাল বৃদ্ধি করা সম্ভব হয়েছে। বিশেষ করে সন্তান জন্মদানে সক্ষম পিতামাতাকে চিকিৎসার আওতায় এনে তাদের দেহকে বিষমুক্ত করে ভাবী সন্তানদেরকে স্বাস্থ্যবান এবং রোগপ্রবণতা মুক্ত করা সম্ভব হচ্ছে। এমনকি এইচ,এল,এ’র প্রভাবে সৃষ্ট রোগ এ্যাংকাইলোজিং স্পন্ডিলাইটিস অথবা কনজেনিটাল মেগাকোলন, শোগ্রেন্স সিনড্রম, এস,এল,ই ’র মতো জটিল সব রোগের আরোগ্য সম্ভব হচ্ছে ।

ইমিউনোলজি বা রোগপ্রতিরোধ বিজ্ঞানের ভাষায় হাইপারসেনসিটিভিটি, সাইটোটক্সিসিটি, ইমিউনকমপ্লেক্সিটি, অটোইমিউনিটি এবং ইমিউনোডিফিশিয়েন্সি নামক রোগপ্রতিরোধ ব্যবস্থার বিশৃঙ্খলাজনিত অসংখ্য যেসকল রোগ, চিকিৎসা বিজ্ঞানকে বাধাগ্রস্থ করে স্টেরয়েড নামক রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা অবদমনকারী ঔষধ ব্যবহার করতে বাধ্য করছে, যার ফলে মানবজাতি দিন দিন শক্তিশালী সব ভাইরাস দ্বারা আক্রান্ত হয়ে ঔষধনির্ভর একটি পঙ্গু মানবজাতিতে পরিণত হচ্ছে। এই ভয়াবহ পরিণতির হাত থেকে মানবজাতিকে রক্ষা করার জন্য এই আবিষ্কার একটি অকল্পনীয় ভূমিকা রাখবে বলে উক্ত গবেষক আশা ব্যক্ত করেছেন।

তিনি এই নবআবিষ্কৃত পদ্ধতির নামকরণ করেছেন হোমিওপ্যাথিক ইমিউনোমডুলেশন বা হোমিওপ্যাথির সাহায্যে রোগপ্রতিরোধ ব্যবস্থার নিয়ন্ত্রণ।

প্রচারেঃ
হোমিওপ্যাথিক ইমিউনোমডুলেশন রিসার্চ সেন্টার
মোবাইলঃ ০১১৯৯১১৯৭০৪
www.homeomodulation.com