ক্যাটেগরিঃ পাঠাগার

 

হযরত খাজা আবদুল্লাহ আনসারী রহ. (১০০৬-১০৮৮ খ্রি.) একাদশ শতকের মধ্য এশিয়ার একজন দরবেশ কবি ও বিখ্যাত সাধক-বুযুর্গ। তিনি বিখ্যাত সাহাবী হযরত আবু আইউব আনসারী (র.)-এর নবম বংশধর। তাঁর পূর্ব পুরুষগণ ধর্ম প্রচারে খোরাসানে আগমণ করেন। খাজা আবদুল্লাহ আনসারী রহ. ১০০৬ সালের ৪ মে তৎকালীন ইরান অধিভুক্ত খোরাসানের হেরাতে জন্ম গ্রহণ করেন। স্থানটি বর্তমানে পশ্চিম আফগানিস্তানে অবস্থিত। গোটা মধ্য এশিয়ায় তিনি ‘পীর-ই-হেরাত’ নামে সমধিক পরিচিত। তাঁর পুত: সংস্পর্শে এসে বহু মানুষ আল্লাহর পথের সন্ধান পায়। তিনি একাধারে মুফাসসির, মুহাদ্দিস, আরবী ও ফার্সী কবি। তাঁর তাফসীর ‘কাশফুল আসরার’ ব্যাপক পাঠকপ্রিয়তা পেয়েছে। মহানবী সা.-এর ৩০ হাজার হাদীস খাজা আবদুল্লাহ আনসারী রহ.-এর মুখস্ত ছিল। ইতিহাস খ্যাত সাধক মাওলানা আবদুর রহমান জামী রহ. তাঁকে ‘শায়খুল ইসলাম’ উপাধিতে ভূষিত করেন। আরবী ও ফার্সী ভাষায় স্বচ্ছন্দে কবিতা রচনায় খাজা আবদুল্লাহ আনসারী রহ. ছিলেন পারদর্শী। তিনি মোট ১৮টি গ্রন্থ রচনা করেন। ইলাহী নামা, গাঞ্জনামা, কানযুস সালেকীন, মুনাজাত নামা, যাদুল অরেফীন, নাসায়েহ, কলন্দর নামা, রিসালায়ে ওরাদাত, রিসালায়ে দিল ও জান, হাফ্ত হিসার, রিসালায়ে মানাকিবে আহমদ ইবন হান্বল, আনোয়ারুত তাহকীক, কিতাব আল ফারুক, মানাযিলু সাঈরীন ও জামিউল কালাম তাঁর উল্লেখযোগ্য গ্রন্থ। হান্বলী মাযহাবের অনুসারী এ সাধক পুরুষের কবিতা হিরাতের গভর্ণর হাউজের দেয়ালে উৎকীর্ণ ছিল। হিমালয়ান উপমহাদেশের প্রখ্যাত বুযুর্গ হযরত খাজা মঈনুদ্দীন চিশতী আজমিরী রহ. হেরাতে অবস্থানকালীন খাজা আবদুল্লাহ আনসারী রহ.-এর মাযারে রাত কাটাতেন আল্লাহ তা’য়ালার দরবারে দু’আ ও মুনাজাতের মাধ্যমে (মাওলানা আবদুল মালেক, শাখছিয়াতে আফগানিস্তান কী রূহ পরওর এয়াদেঁ, পৃ, ২৬৬-২৭৬)। কোর নলেজ ফাউন্ডেশন, চট্টগ্রাম হতে ২০০৪ সালে তাঁর ‘নসীহত ও মুনাজাত’ গ্রন্থাকারে প্রকাশিত হয়। তাঁর চিন্তা-চেতনা, অনুভূতি, প্রার্থনার প্রকরণ ও প্রকর্ষ মানবজাতির সম্পদ। বর্ণিত আছে প্রায় এক লক্ষ ফার্সী কবিতা তাঁর মুখস্থ ছিল। তিনি নিজে ৬০০০ ছত্র কবিতা রচনা করেন। আল্লাহর পরিচয়, মানুষের সাথে আল্লাহর সম্পর্ক, সৎ চিন্তা, সৎ কর্ম, পাপ পরিহার, পরোপকার, হিত সাধন, মানব সেবা, তাওবা, আল্লাহর কাছে ক্ষমা প্রার্থনা ও সুন্নাতে রাসূলের পুনরোজ্জীবন হল তাঁর রচনার মূল প্রতিপাদ্য। খাজা আবদুল্লাহ আনসারী রহ. এর ‘মুনাজাত’ এর অনুবাদ হয়েছে পৃথিবীর বিভিন্ন ভাষায়। অত্যন্ত নামকরা ব্যক্তিবর্গ এর অনুবাদক ও পাঠক। তাঁর দার্শনিক কবিতার একটি ইংরাজী অনুবাদ নিম্নে প্রদত্ত হলো।

I Came
By Khwaja Abdullah Ansari
From the un-manifest I came,
And pitched my tent, in the Forest of Material existence.
I passed through mineral and vegetable kingdoms,
Then my mental equipment carried me into the animal kingdom;
Having reached there I crossed beyond it;
Then in the crystal clear shell of human heart
I nursed the drop of self in a Pearl,
And in association with good men
Wandered round the Prayer House,
And having experienced that, crossed beyond it;
Then I took the road that leads to Him,
And became a slave at His gate;
Then the duality disappeared
And I became absorbed in Him

ভারতের জাতীয় নেতা মোহন দাশ করম চাঁদ গান্ধী খাজা আনসারীর মুনাজাত ও নসীহত ইংরাজীতে অনুবাদ প্রকাশে আনন্দ প্রকাশ করেন। সরদার স্যার যোগেন্দ্র সিংহ খাজা আনসারীর মুনাজাত ও নসীহত ইংরাজীতে অনুবাদ করেন এবং The Wisdom of the East Series গ্রন্থমালায় ১৯৫১ সালে তা লন্ডনে মুদ্রিত হয়। সরদার স্যার যোগেন্দ্র সিংহ খাজা আবদুল্লাহ আনসারী রহ. এর মুনাজাত ও নসীহত এর মূল্যায়ন করতে গিয়ে বলেন : ‘শান্তির মন্দিরে শিষ্যত্ব গ্রহণের পথে এ মুনাজাত সঠিক পথ নির্দেশনা। অন্তর হতে উত্থিত এ মুনাজাত তাঁর অভিজ্ঞতাসঞ্জাত। তাঁর অন্তর যা চেয়েছে, তা তিনি পেয়েছেন। অন্যদের নিকট যা লুকানও, তা প্রত্যক্ষ করেছেন আনসারী। তাঁর আবিষ্কার প্রমাণ করে সত্য অপরিবর্তনীয়। সকল যুগের সত্যপ্রাপ্ত সাধকেরা একই সূরে কথা বলেছেন। ইন্দ্রিয় আচ্ছন্ন চেতনায় আনসারীর উক্তির মর্ম অগম্য। লালসার ঝড় হতে উত্থিত কুজ্ঝটিকা ভেদ করতে পারে আত্মিক সাধনা’ (Sardar Sir Jogendra Singh, The Persian Mystics : Ansari (The Wisdom of the East Series), London, 1951, pp.1-10) |

প্রিন্সিপ্যাল রেজাউল করিম চৌধুরী বিখ্যাত সাধক-বুযুর্গ খাজা আবদুল্লাহ আনসারী রহ. এর মুনাজাত ও নসীহত বাংলায় ভাষান্তর করেন। এ ঐতিহাসিক গ্রন্থের ভূমিকায় বিজ্ঞ বাংলা অনুবাদক ও ভাষ্যকার যে মন্তব্য করেন তা বিশেষভাবে প্রণিধানযোগ্য : ‘আনসারীর অন্তর্ভেদী আত্মার আর্তি প্রাচ্য-প্রতীচ্যে অমুসলিমদের মনে যে দোলা দিয়েছে তার কিঞ্চিৎ আভাস দেওয়া হল। আত্মার অভিযাত্রায় আনসারী কুরআন-সুন্নাহর পূর্ণ তবেদারীতে কামালিয়ত হাসিল করেন। তাওহীদ-রিসালতের আকীদায় লব্ধ বেছাল শিরকী সাধনায় অর্জন অসম্ভব। বহুত্বে তিমিরে আচ্ছন্ন আত্মার আলোকপ্রাপ্তি অনায়ত্বে থাকবেই। এ অবস্থায় তাওহিদী সাধকদের সঙ্গে অন্য পথের পথিকদের সমীকরণের প্রয়াস অসংগত ও অসমীচীন। রাহমাতুল লিল আলামীনের তাওহিদী পয়গাম সারা বিশ্বে সকল মানুষের জন্য। এ ডাকে সাড়া দিলেই সংকট নিরসন হবে। সে সংকট ব্যক্তিসত্তার হোক, জাতিসত্তার হোক। তাওহীদ-শিরকের সমন্বয় প্রয়াস ব্যর্থ হয়েছে, হচ্ছে, হবেই। তাওহীদ হতে বিচ্যুত তন্ত্র,মন্ত্র মানবজাতির সীমাহীন যন্ত্রণার কারণ হয়েছে। তাওহীদ হতে সরে আসা এ ‘বাদ’ সে ‘বাদ’ মানবজাতিকে বরবাদ করেছে। ভোগোন্মাদ বর্তমান বিশ্বে আত্মার পুনর্বাসন অপরিহার্য হয়ে উঠেছে নির্বাসিত আত্মার পুনরুদ্ধারে ইসলামের সূফী সাধক দরবেশদের কাব্যিক সম্পদের ব্যাপক প্রচার প্রসারে এগিয়ে আসতে হবে’ (প্রিন্সিপ্যাল এ.এ রেজাউল করিম চৌধুরী, খাজা আবদুল্লাহ আনসারী রহ. এর মুনাজাত ও নসীহত, পৃ.১৩)।

প্রিন্সিপ্যাল এ.এ রেজাউল করিম চৌধুরী কর্তৃক অনুদিত খাজা আবদুল্লাহ আনসারী রহ. এর ‘মুনাজাত’ এর কয়েকটি পংক্তি নিম্নে উদ্ধৃত করা হল :
‘If a lame dog
Finds admission at Thy gate,
And the weary are refreshed by Thy sight
No reasons have I for despair.’
‘খোঁড়া কুকুর পায় যদি
তোমার দুয়ারে আশ্রয়,
ক্লান্ত শ্রান্ত আর্তজন
তোমাতে যদি পায় শান্তি
হতাশ হবার নেই কারণ।’

‘I live only to do Thy will,
My lips move only in praise of Thee,
O Lord, whoever becometh aware of Thee
Casteth out all else other than Thee
‘তোমার ইচ্ছা পালনেই আমি বেঁচে থাকি,
তোমার বন্দনায় রসনা মোর সদা সঞ্চালিত,
প্রভূ হে, যে জন তোমায় জেনেছে
তুমি ছাড়া সব কিছুই ছেড়েছে সে।’
(Sardar Sir Jogendra Singh, The Persian Mystics : Ansari (The Wisdom of the East Series), London, 1951, pp.23,54; প্রিন্সিপ্যাল এ.এ রেজাউল করিম চৌধুরী, খাজা আবদুল্লাহ আনসারী রহ. এর মুনাজাত ও নসীহত, পৃ.১৬, ১৮)।
আমরা আল্লাহ তায়ালার দরবারে এ পন্ডিত ও সাধক পুরুষের রূহের মাগফিরাত কামনা করি। তাঁর মুনাজাত ও চিন্তাধারা প্রদীপ হয়ে আমাদের অন্তর ও বহির্জগতকে আলোকিত করুক-এটাই কামনা।