ক্যাটেগরিঃ নাগরিক সমস্যা

কাউকে ছোট করার উদ্দেশ্যে নয়, যেহেতু রাজধানীর যানজট দেশকে অনেকটাই পিছিয়েছে তাই বর্তমান সিদ্ধান্ত ও পদক্ষেপগুলো আমাদের অবগত হওয়া প্রয়োজন, জনগণের প্রতি আন্তরিকতার সহিত সরকার যথেষ্ট চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে এই যানজট নিরসনের জন্য। বর্তমানে যানজট নিরসনে গুলিস্তান-যাত্রাবাড়ী ফাইওভার, এয়ারপোর্ট হইতে কুতুবখালী পর্যন্ত ২৬ কিঃমিঃ এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে, মিরপুর-এয়ারপোর্ট ফাইওভার, কুড়িল ফ্লাইওভারসহ কয়েকটি প্রকল্প গ্রহণ করেছে। আমাদের হয়ত ধারণা উড়াল সড়ক নির্মাণ করা হলেই যানজট নিরসন হয়ে যাবে। এই ধরনের দীর্ঘ ও ব্যয়বহুল, সময় ব্যয়ী উড়াল সড়ক হয়ত কিছুটা গাড়ির চাপ কমানোর উদ্দেশ্যে। আবার এই ধরনের সময় ব্যয়ী উড়াল সড়ক নির্মাণ করতে করতে আরও দ্বিগুণ চাপ সৃষ্টি হয়ে যাবে। একটা কথা হচ্ছে চাপ কমানো আর যানজট নিরসন এক নয়। আবার এই ধরনের প্রকল্প কতটি কত বছরে সম্ভব ? এতে তো যানজটের প্রকৃত সমাধান আসবে না। অপর দিকে যদি বলতে হয়, গুলিস্তান-যাত্রাবাড়ীর কাজ সর্বপ্রথম ১৯৯৯ সালে বর্তমান সরকার গ্রহণ করেছিল। পর্যায়ক্রমে সরকার পরিবর্তন ও নানা জটিলতায় আবার পুনরায় চালু হয়েছে এবং ২০১৩ সালে এর সমাপ্ত হওয়ার আশা। আবার কুড়িল ফাইওভার ২০১০ সালে শেষ হওয়ার কথা থাকলেও বর্তমান সরকারের হাত দেওয়ার পর ৩ বছরের কাজ ১ বছরে হয়ত ১৫% কাজের অগ্রগতি হয়েছে। ভূমি অধিগ্রহণসহ নানা জটিলতা, তো এগুলো তো এরকমই হয়। হয়ত এই ধরনের প্রকল্প বাংলাদেশে নতুন কিন্তু উন্নত বিশ্বে বহু আগেই এগুলো নির্মাণ করে ফেলেছে। আমরা তাদের কাছ থেকে শুধু অণুকরণই করতে চেষ্টা করছি। একটু ভাবা উচিত নয় যে, তাদের এই প্রকল্প গ্রহণ করার ফলে কি তারা পরিপূর্ণ ভাবে যানজট নিরসন করতে পেরেছে ? চীন, জাপান সহ অনেক উন্নত ধনী রাষ্ট্রই তাদের পূর্ণ সমাধান এই ধরনের এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে এবং মেট্রোরেল দিয়েও দিতে পারেনি। এগুলো হয়ত পর্যাপ্ত সময় ব্যয় ও অর্থ ব্যয়ের বিনিময়ে নির্দিষ্ট নির্দিষ্ট গন্তব্য গুলোতে লিংক দেওয়া হয়েছে। তো সকল নির্দিষ্ট নির্দিষ্ট স্থানে তো সম্ভব নয়। যদি এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে এবং মেট্রোরেলই যদি যানজটের সমাধান হয়ে যেত তাহলে তারা আর নতুন কিছু খুঁজত না। অপর দিকে যারা এই ধরনের উড়াল সড়ক নির্মাণ করে শহরকে ঘিরে ফেলেছে তাদের জন্য সহজভাবে প্রকৃত সমাধানের পথও খুব কম বলে আমার ধারণা। দীর্ঘ দূরত্বের গাড়ী গুলো কিছুটা স্বল্প সময়ে যেতে পারলেও স্বল্প সময়ের যাতায়াতগুলো দীর্ঘ সময়েই যেতে হচ্ছে। কারণ বেশিরভাগ গাড়িগুলোই তো এই ধরনের উড়াল সড়ক ব্যবহার করতে পারবে না। তাহলে কেন আমাদের এই ধরনের ফর্মুলা গ্রহণ? আবার যদি আমাদের দেশের নির্মাণ সম্পন্ন মহাখালী ফাইওভার, খিলগাঁও ফাইওভার এবং কয়েকটি ওভারপাসের দিকে তাকাই তবে বলায় কি যে এই ধরনের ফাইওভার ঐ এলাকার যানজট নিরসন করতে পেরেছে ? নির্মাণের পূর্বে যে প্রত্যাশা ছিল সে প্রত্যাশা পূরণ হয়নি। আসলে এই ধরনের প্রকল্প দীর্ঘ সময় ও অর্থ ব্যয়ে শুধু নির্মাণই করা যাবে প্রকৃত সমাধান আসবে না হয়ত তাদের মতই।

সিদ্ধান্তগুলো প্রসঙ্গে:
রাজধানীর যানজট নিরসনে সঠিক পরিকল্পনা এবং সঠিক সিদ্ধান্তের অভাব দেখা যায়। যদি রাজধানীকে বিকেন্দ্রীকরণের উদ্যোগ নেওয়া হয়। তবে রাজধানীতে মেট্রোরেল এবং এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে / ফাইওভার ইত্যাদি নির্মাণে পর্যাপ্ত অর্থ ব্যয়ের প্রয়োজন নেই। এক্ষেত্রে পাশ্ববর্তী এলাকাকে প্রথমে দ্রুত গতিতে রাজধানীর উল্লেখযোগ্য সুবিধাগুলো পৌছে দিতে হবে এবং উল্লেখযোগ্য প্রতিষ্ঠান স্থানান্তরের পরিকল্পনা নিতে হবে খুবই স্বল্প সময়ে। আর যদি মেট্রো রেলের মাধ্যমে যানজটের সমাধান খোঁজা হয়, তবে এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে নির্মাণের প্রয়োজন কি? কারণ মেট্রোরেল হলে গণপরিবহন শক্তিশালী হবে কিন্তু এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে নির্মাণের ফলে গণ পরিবহণের তেমন সুবিধা হবে না। আবার মেট্রো রেলের বিষয়ে এ যাবৎকাল পর্যন্ত সময় ব্যয় করে এখন আবার আকাশ রেলের কথা ভাবা হচ্ছে। আবার আকাশ রেল নির্মাণ করা হলে অপরিকল্পিত উড়াল সেতুর সাংঘর্ষিক হতে পারে। তাহলে এভাবে ভাবতে ভাবতে সঠিক সিদ্ধান্তে উপনীত হতে না পারলে দেশের অগ্রগতি হবে কিভাবে? যে সময় সিদ্ধান্তহীনতায় সময় ব্যয় হলো সে সময়ে সঠিক সিদ্ধান্ত নিলে হয়ত এতদিনে জনগণ কিছুটা হলেও সুফল ভোগ করতে পারতো।