ক্যাটেগরিঃ আইন-শৃংখলা

 

রক্তের জলে পিচ্ছল হল আরও একটি পরিবারের বেডরুম। রক্তস্নাত এই পরিবারের গৃহবধু তিন সন্তানের জননীর নাম “ফাহিমা সুলতানা। এটি এখন আমাদের দেশে ঘটা করে পালন করা বৈশাখের পান্তাভাতের মত। আমাদের মনে আছে সাগর-রুনির খুনিদের ব্যাপারে আমাদের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছিলেন, “৪৮ ঘন্টার মধ্যে খুনিদের গ্রেপ্তার করা হবে”। ৪৮ ঘন্টা আজও হয়নি। কারন সাগর-রুনির খুনিদের সনাক্ত করা তো দূরের কথা বিপরীতে আমাদের প্রধান মন্ত্রী মহোদয় বললেন, “সরকার কারো বেডরুম পাহারা দিতে পারবে না” আর আইন প্রতিমন্ত্রী বললেন, “সব আলামত নষ্ট হয়ে গেছে”। এভাবে সবকিছুই ধামাচাপা দেয়া হলো।

ঘটনার কিছুদিন পর খুনি চক্রান্তের নির্মম শিকার হলেন সৌদি কূটনৈতিক। ঘটনার কোন আলামত পাওয়া গেল না।এরপর মিরপুরে খুন হলো একটি শিশু, অপহৃত ও খুন হল কয়েকজন ব্যবসায়ী ও ছাত্র। নিখোজ হলেন সাবেক সাংসদ ইলিয়াস আলী। এভাবে একের পর এক খুন, অপহরণ, গুম চলছেই। পক্ষান্তরে আমাদের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী বলেই চলেছেন “এগুলো বিচ্ছিন্ন ঘটনা, আইন শৃঙ্খলা পূর্বের যে কোন সময়ের তুলনায় ভালো”।

এখন প্রশ্ন হলো সাধারণ জনগন কি আজ নিরাপদ জীবন-যাপন করতে পারছে? নাকি অপরাধীরা অপরাধ করার জন্য নিরাপত্তা, আইনের আশ্রয় ও পৃষ্ঠপোষকতা পাচ্ছে?

এটা প্রত্যাশিত ছিল? জনগন কি সরকার নির্বাচন করেছিল বড় বড় বাড়ী আর দামি গাড়ী কেনার জন্য? ব্যক্তিগত সম্পদের পাহাড় গড়ার জন্য? খুন, হত্যা আর লুণ্ঠনের জন্য? আমাদের গোয়েন্দা সংস্থার কাজ কি? অপরাধ সংঘটনের পূর্বে তারা তথ্য পাচ্ছে না কেন? সরকারের কাছে তাদের জবাবদিহিতার এত অভাব কেন? আমার মাথা খুবই ডাল তাই জনগনের কাছেই প্রশ্নটি রাখলাম।