ক্যাটেগরিঃ নাগরিক আলাপ

আমাদের যোগাযোগ মন্ত্রী বললেন তিনি পরীক্ষিত সৎ লোক। তাকে দুর্নীতি দমন কমিশন সার্টিফিকেট দিয়েছে! ভাল খবর, এতদিনে একটা প্রতিষ্ঠান পাওয়া গেল আমাদের দেশে যেখানে সৎ লোক মাপার উপায় আছে এবং সার্টিফিকেট ও দেওয়া হয়। যদিও শুনতে পেয়েছি এই সার্টিফিকেট এ সাইন করতে দুর্নীতি দমন কমিশন এর চেয়্যারম্যান কয়েক কোটি টাকা ঘুষ নিয়েছেন…যাই হক, আমরা সাধারণ মানুষ জাহাজের খবর আমরা পেলেও আমাদের তা শোনা ছাড়া আর কোনও কাজ নাই।

ভাবতে অবাক লাগে..এই সরকার ক্ষমতায় প্রায় তিন বছর হতে চলল,আর এর আগে ছিল দুই বছর তত্ত্বাবধাযক সরকারের, এর মাঝে পাঁচটা বাজেট পাস হয়েছে এবং প্রতিবার বাজেট এ একটি বড় আয়তনের টাকা যোগাযোগ খাতে খরচের জন্য রাখা হয়েছে এবং খরচ হয়েছে তাও দেখানো হয়েছে। তাহলে বর্তমান সরকার এর কিছু লোকজন কিভাবে এবং কোন যুক্তিতে পাচ বছর আগের একটি সরকার এর মাথায় বোঝা চাপিয়ে নিজেদের দায়িত্ব এবং দুর্নীতি অন্যের ঘাড়ে চাপতে চেষ্টা করছে?

আর আবুল হোসেন যদি সৎ লোক হন, তাহলে এই তিন বছরে যে হাজার হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ দেওয়া হল যোগাযোগ মাধ্যমকে তা কোথায় এবং কিভাবে খরচ করা হল তার একটি প্রমাণ পত্র জনগণের সামনে তুলে ধরার আহবান জানান হোক, তিনি সৎ লোক হলে টা জনগণ বুঝতে পারবে।