ক্যাটেগরিঃ খেলাধূলা

বি পি এল এর পর্দা উঠে গেল । উদ্বোধনী যেভাবে হওয়ার কথা ছিল সেভাবে আবারো হল না । টিকিটের চড়া মূল্য আবারো প্রায় দর্শক শূন্য রাখল গ্যালারী । জল ঘোলা হওয়া বি পি এল কেমন জানি খেই হারিয়ে ফেলল । যারা টিভির পর্দায় অনুষ্ঠান দেখেছে ২ ঘণ্টার মত বিজ্ঞাপন সহ্য করতে হয়েছে । তবে আশার দিক হল আবার বি পি এল উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের সংস্কৃতি তুলে ধরার প্রয়াস ছিল । সাত বিভাগের সংস্কৃতি ফুটে উঠেছে । ধর্মীয় ঐক্যের দেশ হিসেবে তুলে ধরা হয়েছে । গত বারের চেয়ে এবার বিদেশী শিল্পীর আধিক্য কমেছে । শ্রীলঙ্কান বংশোদ্ভূত বলিউড তারকা জ্যাকুলিন ফার্নান্দেজ আর পাক শিল্পী আতিফ আসলামের দেরিতে আশার যন্ত্রণা পোহাতে হয়েছে দর্শকদের । তারা নাকি ট্রাফিক জ্যামে আটকে গিয়েছিলেন । ভারতীয় আইটেম গানের শিল্পী সুনিদি চৌহান আসেন নি ।

রুনা লায়লা আর মমতাজ গানের শুরু করেন তাদের পুরনো গানে ঠোট মিলিয়ে ।রুনা লায়লার বিখ্যাত গান ‘শিল্পী আমি তোমাদেরি গান শোনাব’ , ‘দামা দাম মাস্তে কালান্দার’ । মমতাজ অবশ্য বাংলাদেশ ক্রিকেট তিম নিয়ে অনুপ্রেরনা মুলক গান গেয়েছেন । তার সঙ্গে নানটু ঘটকের গান ছিল। জেমস এসে দর্শকদের জাগাবার চেষ্টা করেছেন । তাতে তিনি সফলও বটে । তার সেরা গুলো গেয়েছেন অনেক যত্নের সাথে । ‘ঝাকা নাকা ঝাকানাকা দেহ দোলা না’ দিয়ে শুরু । তার জনপ্রিয় হিন্দি গান দিয়ে শেষ । দর্শক জমাবার জন্য গেট ও নাকি খুলে দেয়া হয়েছে তাতেও লাভ হয় নি । টিকিটের দামটা কম হলে দর্শক বেশি হত এটা বলা যায় । খেলার টিকিটের দাম যদি না কমায় তাহলে দর্শক টানা কষ্ট হয়ে যাবে ।যাই হোক লম্বা লম্বা বিরতি চরম হতাশ করেছে টি ভি পর্দার দর্শকদের তার চেয়ে বেশি হতাশ যারা উচ্চ দামে টিকিট কিনেছেন । জ্যাকুলিন ফার্নান্দেজ হিন্দি গানে নেচেছেন । কথা বলেছেন উপস্থাপিকার ও দর্শক সাথে । আতিফ আসলাম এসে বেশ কয়েকটি গান গেয়েছেন । তাতে মেলোডি , রক , ক্লাসিক্যাল গানে মাতাবার চেষ্টা । দর্শক না থাকলে কি আর গান জমে! আতশ বাজির ঝলকানি দর্শকদের আনন্দ দিয়েছে বেশ । মানুষ ভুল থেকে শিক্ষা নেয় আমরা বার বার ভুল করি ।এবারের ভুল থেকে শিক্ষা নিয়ে সামনে আরও ভাল করবে বি পি এল। পাকিস্থানিদের ছাড়াই সফল হোক এবারের আসর ।