ক্যাটেগরিঃ আইন-শৃংখলা

সংবাদপত্রে ধর্ষণের খবর এখন বেশ করে প্রচার করা হচ্ছে । যখন এ ধরনের খবর প্রচার পাচ্ছে না তখন কি ধর্ষণ হচ্ছে না ? বাংলাদেশ কেন পৃথিবীর এমন কোন দেশ নেই য জায়গা নেই সেখানে কোন অপরাধ হয় না । ধর্ষণের খবর দেশ পাতায় প্রতিদিন আসে কিন্তু আমরা নজর দেই না । ভারতের গনধর্ষণের সংবাদ আলোড়ন তুললে হঠাৎ বাংলাদেশের প্রত্রিকা গুলো এ বিষয়ে গুরুত্বের সাথে ছাপতে শুরু করল মহাজোট সরকারের ৪ বছরে ১৩ হাজার ধর্ষণ : নারী নির্যাতন ৬৭ হাজার । যুগান্তরের খবর – লিংক

কোন অপরাধ কখনই নিঃশেষ করা যায় না কিন্তু নিয়ন্ত্রন করা যায় । এ এক আজব জাতি নারী । নারীকে আমরা মানুষের মর্যাদা দেইনি কখনই । নারীকে বানিয়েছি ভোগের বস্তু । এত ধর্ষণ হচ্ছে কেন এবং তার উপায় কি ? এ প্রশ্ন যদি কোন যে কাওকে জিজ্ঞেস করেন তাদের উত্তর হবে ভাল মেয়েরা ধর্ষণের শিকার হয় না তাদের পোশাকে সমস্যা ছিল । বেহায়াপনা করে রাস্তায় ঘুরে বেড়ালে ধর্ষণ হবে না তো কি হবে ? আর কোন আলেম কে বলবেন সেও এক উত্তর । পর্দা প্রথায় ফিরে আসলে ধর্ষণ আর হবে না । আর কেও কেও বলবেন কঠোর শাস্তি দিলে এ ঘটনা হবে না । এখন সত্যি কি তাদের উত্তর সঠিক ? যেই আরব দেশে পর্দা মানা হয় সেখানেও তো ধর্ষণের ঘটনা ভুরি ভুরি । তাদের শাস্তি শিরচ্ছেদ । আমাদের মত দেশের নারী শ্রমিকরা আরব দেশ গুলতে গিয়ে যৌন নির্যাতনের শিকার হচ্ছেন তাহলে ?

http://www.prothom-alo.com

সব দোষ নারীর । নারীকে পর্দা করতে বললেও পুরুষদেরও চোখ অবনত রাখতে বলা বয়েছে । তবে শুধু নারীর দোষ কেন ? বাংলাদেশের অধিকাংশ নারী ভদ্র পোশাক পরেই তাদের জীবন পার করছেন কেন এ অভিযোগ ? নারী দেখলেই কেন ধর্ষণ করতে হবে ? নারীর রুপ পুরুষ কে মোহিত করবে সেটাই স্বাভাবিক তাই বলে পশু হতে হবে কেন ? প্রবাদে আছে ‘ধইরা বাইন্ধা পিরিত হয় হয় না আর ঘইসসা মাইজ্জা রুপ হয় না ।আরেক তা প্রবাদ বলি ‘যত দোষ নারী ঘোষ ‘ নতুন লাগছে তো ! এটাই তো সত্যি হয়ে দাঁড়িয়েছে ।

ধর্ষণের বেশ কয়েকটা কারন আমি খুঁজে বের করেছি মানুষের মতের উপর ভিত্তি করে ।
১. নারীর অশ্লীলতা
২.পারিবারিক শিক্ষার অভাব
৩.যৌন শিক্ষার অভাব
৪.সময় মত বিয়ে না করতে পারা
৫.মানুষিক রোগ
৭.নিজেকে নিয়ন্ত্রন করতে না পারা
৮।নারীর প্রতি জেদ
৯। ধর্মীয় শিক্ষার অভাব
১০। নেশা করা
১১। বাজে সঙ্গ

হয় তো আরও বিষয় থাকতে পারে তবে কোনটা যে আসল কারন সেটা বোঝা বড় মুশকিল । ধর্ষণ রোধে আমাদের সচেতন হতে হবে । মানুষের মাঝে মানুবিক গুণাবলী জাগ্রত করতে হবে । তার পাশাপাশি শাস্তির বিধান রাখতে হবে ।