ক্যাটেগরিঃ দিবস প্রসঙ্গ

ভালবাসা দিবসের যৌক্তিকতা কততুকু তা বিতর্কের বিষয়। আমি আজ সেই পুরনো বিতর্কের ধোঁয়া উড়াবো না। দোষের বোঝা মাথায় নিয়ে শুধুই ভালবাসার কথা বলবো।১৪ই ফেব্রুয়ারী বসন্তের শুরুতে আমাদের মনে ভালবাসার প্রদীপ জ্বেলে দিয়ে গেল না অপসংস্কৃতির বীজ বুনে দিয়ে গেল সেগুলো চুলায় দিয়ে বসন্তে কোকিলের সুরের সাথে সুর মিলিয়ে মিষ্টি করে আজ শুধুই ভালবাসার গান গাইব।

যুগে যুগে কবি -সাহিত্যিক, জ্ঞানী- গুণী, সাধারন মানুষ কত ভাষাতেই না ভালবাসার বর্ণনা করেছে । আমার কাছে ভালবাসা ভাষার নয় অনুভবের ,শুধু নর- নারীর মাঝে সীমাবদ্ধ নয় গোটা ব্রহ্মাণ্ডটাই ভালবাসার স্বর্গরাজ্য।

ইতিহাসের পাতায় ভালবাসার দীপ্তি ছড়ানো কাল্পনিক আর বাস্তব কত চরিত্র আমাদের হৃদয়ে অমর হয়ে আছে। আজ তাদের স্মৃতি আওড়াবো ।

১২২৫ পূর্বাব্দে স্পারটা’র রাজা টাইনডারিয়াসের ঘর আলো করে এসেছিল ট্রয় কাঁপানো রাজকন্যা হেলেন।গ্রীসের পৌরাণিক প্রেম কাহিনি আমাদের অনেকের জানা। রাজকুমারী হেলেন ও যুবরাজ প্যারিসের প্রেম কাহিনী পৃথিবীর সেরা প্রেম কাহিনীর মধ্যে অন্যতম। হেলেন ও প্যারিসের প্রেম কাহিনী মূলত সকলের কাছে উন্মোচন করেছেন মহাকবি হোমার পূর্বাব্দ অষ্টম শতকে ।

ইউসুফ ও জুলেখার গল্প কোরান ও বাইবেলে স্থান পেয়েছে।বহু কবি সাহিত্যিক লেখক ইউসুফ জুলেখার প্রেম কাহিনী লিখেছেন । ফার্সি ভাষায় এ বিষয়ে আবুল ময়ায়েদি বলখি ও বখতিয়ার আহুওয়াজি’র পর এ বিষয়ে প্রেম কাহিনী লিখেন মহাকবি আবুল মনসুর কাসিম ফিরদউসি। তবে সবচাইতে পাঠক নন্দিত লেখক হলেন ফরাসি কবি আব্দুর রহমান জামি। ইউসুফ জুলেখার প্রেম কাহিনী লিখতে বাংলা সাহিত্যকরাও পিছিয়ে থাকেন নি। শাহ্‌ মুহাম্মাদ সাগির এই কাহিনীকে বাংলা সাহিত্যে রুপ দেন ।

শিরিন ফরহাদের প্রেম কাহিনিও পৃথিবীর অন্যতম প্রেম কাহিনীর একটি। ফরহাদ নাম টি আসলে কল্পিত , তবে শিরিন ছিল সাসানিদ বংশীয় পারসিক সাহানশাহ্‌ দ্বিতীয় খুসরু পারভেজের ( শাসন কাল ৫৯১- ৬২৮) স্ত্রী। তাদের প্রেম কাহিনী স্থান পেয়েছে পারস্যের মহাকবি ফেরদৌসির শাহানামা’য় ।

লাইলি ও মজনু আমাদের দেশে সবচাইতে আলোচিত প্রেম কাহিনী। মধ্যপ্রাচ্যের এ প্রেম কাহিনী কবির কল্প কাহিনী নয় । আমরা যাকে মজনু বলে জানি তার নাম আসলে কায়স ইবনে আল- মুল্লাওয়াহার। উমাইয়া শাসন আমলে অর্থাৎ ৭ শতকের এই প্রেম কাহিনী সাহিত্যে স্থান পায় ১২ শতকে মহা কবি নেজামি’র ‘লাইলি মজনু’ সাহিত্যে।

‘রোমিও অ্যান্ড জুলিয়েট ‘ (১৫৯৯) ইংরেজ নাট্যকার উইলিয়াম শেক্সপিওরের (১৫৬৪-১৬১৬) নাটক । কবির কল্পনা যে মানুষের মনে কতটা দাগ কেটে যেতে পারে রোমিও ও জুলিয়েট তার অনন্য নজির। রোমিও ও জুলিয়েট প্রেম কাহিনী পৃথিবীর সেরা প্রেম কাহিনীর অন্যতম।

শাহজাহান ও মমতাজ প্রেমের ইতিহাসে এক বিরল নাম । মুঘল সম্রাট শাহজাহান (১৫৯২-১৬৬৬) এর তৃতীয় স্ত্রী মমতাজের আসল নাম আরজুমান্দ বানু বেগম (১৫৯৩-১৬৩১) সম্রাটের প্রিয়তমা স্ত্রী হিসেবে বেশি খ্যাত। মুঘল সম্রাট শাহজাহান তার স্ত্রীর জন্য যা গড়ে দিলেন তা প্রেমের সাক্ষী হয়ে দাড়িয়ে আছে।

দেবদাস ও পার্বতী বাংলা সাহিত্যে এক অনন্য প্রেম কাহিনী। কথা সাহিত্যিক শরৎচন্দ্রের ‘দেবদাস ‘ উপন্যাসের কাহিনী সবার হৃদয় ছুঁয়ে গেছে । এই কল্পিত প্রেম কাহিনী অমর হয়ে আছে কোটি বাঙালির হৃদয়ে।

ঐতিহাসিক আরও হয়তো প্রেম কাহিনী রয়েছে তা আপনাদের হৃদয় ছুঁয়ে গেছে। এবার আসুন মিলিয়ে নিন আপনার ভালবাসার ধরন। মানুষের ভালবাসা নিয়ে মনোবিজ্ঞানিদের গবেষণার শেষ নেই । কানাডার মোনবিজ্ঞানী জন অ্যালান লি ভালবাসাকে ৬ ভাগে ভাগ করেছেন।

১।Ludas
Ludas শ্রেণীর প্রেমিক -প্রেমিকারা প্রেমের প্রতি উদাসীন। প্রেম কে তারা খেলা মনে করে। একাধিক প্রেমের সম্পর্ক চালিয়ে যেতে তাদের বাধে না । তারা প্রেমে কোন প্রতিশ্রুতি ও দেয় না ।
২।Eros
এরা মূলত দেহের প্রতি বেশি আকৃষ্ট। এদের প্রেমের মুল উপাদান কামনা- বাসনা ও ভোগ।
৩।Storge
এ ধরনের প্রেম মূলত ভাল লাগা দিয়ে শুরু আর ভালবাসা দিয়ে শেষ । এ ধরনের প্রেমের সম্পর্ক গড়তে আনেক সময় সাপেক্ষ এবং বোঝা পরা ভাল হয় তাই সহজেই এই সম্পর্ক নষ্ট হয়ে যায় না।
৪।Pragma
এ ধরনে প্রেমিক প্রেমিকেরা খুব বাস্তববাদী হয়ে থাকে । ভেবে চিন্তে প্রেমের সিধান্তে আসে ।
৫।Mania
যারা প্রেম নিয়ে পাগলামি করে তারা এ শ্রেণীর অন্তর্ভুক্ত। প্রেম ছাড়া সব অর্থহীন তাই মনে করে এরা।
৬।Agope
এ ধরনের প্রেম দুর্লভের খাতায় নাম লিখিয়েছে। চাওয়া – পাওয়া হীন নিঃস্বার্থ প্রেম।

ভালবাসা নিয়ে তথ্য , ইতিহাস, গল্প, কবিতা কত কিছু রয়ছে । ভালবাসা যেন সীমাবদ্ধ না হয়ে যায়। আমরা যদি প্রেমিক – প্রেমিকার ভালবাসার সীমানা ছাড়িয়ে মাতৃ- ভুমি , মাতৃ -ভাষা ও সকলকে ভালবাসতে পারি তাহলে আমাদের অনেক সমস্যার সমাধান আমরা পেয়ে যাব। সবাইকে ভালবাসা দিবসের শুভেচ্ছা।