ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

 

১।
জামাতের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত পুরনো আর নতুন সিদ্ধান্ত হল শিবির ইবনে পাঞ্জাবিদের প্রত্যেকেই রাষ্ট্রদ্রহি!
ভবিষ্যৎ বাংলাদেশ তাই জানবে, বিএনপি বা অন্য কেউ ভিন্ন ব্যাখ্যা দাড় করাতে পারবেনা।

২।
শিবিরের হাতে দুটো জিনিস জিম্মি এক বাংলাদেশ দ্বিতীয় বাংলাদেশের মানুষের ঈমান।
ওদের ভুল রাজনীতিতে দেশ অস্থির আর ওদের ইসলামের অপব্যাখ্যায় তরুণ যুবকরা পথভ্রষ্ট!

৩।৭১ এর যুদ্ধে কি আমরা জয়ী হয়েছিলাম?
৭১ এর যুদ্ধ কি একাত্তরেই শেষ হয়ে গিয়েছিল?

এই প্রশ্ন দুটো আমাদের মনে জাগিয়ে দেয়ার জন্যে ইসলামি ছাত্র শিবিরকে ধিক্কার ও অভিশাপ!

৪।
আমাদের স্বাধীনতা আমাদের বিজয়কে এক হাত দেখে নিল ছাত্র শিবির!
সাবাস(!) ছাত্র শিবিরের তরুণ যুবারা!
তোমরা বাংলাদেশের ইতিহাসে মীর জাফরের ছানা হিসেবে টিকে থাকবে চিরদিন!

৫।
আমি একজন সাধারন নাগরিক এই নগরে আমার থাকা বা না থাকায় কারো যায় বা আসেনা।
কিন্তু যখন আমি একজন নাগরিক তখন আমারও কিছু অধিকার আছে কিছু বলারও আছে।

আবার যখন আমি নিজেকে সুন্নি মুসলিম বলবো তখন আমাকে কিছু আকিদা বা বিশ্বাস ধারন করে থাকতে হয়।

যদিও আমি একজন তরুণ যুবক মাত্র তাই আমার পক্ষ্যে অসিয়ত করা বাহুল্য ও হাস্যকর আর নসিহত করায় ভাব গাম্ভীর্য আসবেনা তারপরেও সাবধানতা বশত একজন নাগরিক একজন সুন্নি মুসলিম হিসেবে আমার অসিয়ত যা অন্য কারো জন্য নসিহতও হতে পারে,আর আমার সেই অসিয়ত ও নসিহত হল ‘আমার জানাজায় ও কবরে যেন কোন মউদুদি পন্থি, জামাত ই ইসলামি সমর্থক ও ছাত্র শিবিরের (শিবির ইবনে পাঞ্জাবি) সদস্য অংশগ্রহণ ও আগমন না করে’

৬।
আমরা জানতাম কবরে ফুল দেয়া হয়,এখন দেখছি অগ্রিমও দেয়া হয়!

৭।
বিদায় বেলায় কোন এক ইংরেজ নাকি বলেছিল ‘আমরা চলে যাচ্ছি কিন্তু তোমাদের মাঝেই আমাদের মানসিকতার লোক রেখে যাচ্ছি যারা দেখতে তোমাদেরই মত কিন্তু মন মানসিকতায় আমাদের মত!’

৭১এ গোলাম আজম নিজামি ও মুজাহিদরা আমাদের বিরোধিতা করে ব্যার্থ হয়েছিল কিন্তু পরবর্তী সময়ে ধর্মের অপব্যাখ্যা করে আমাদের মাঝ থেকেই এমন কিছু তরুণ যুবক বের করেছে, তরুণ যুবকদের মাথা ধোলাই করে ছেরে দিয়েছে যে ওরা এই দেশের স্বাধীনতা ও বিজয়কে ঘুণে পোকার মতই ধিরে ধিরে খেয়ে যেতে থাকবে!

৮।
কে কবে কি কারনে যুদ্ধাপরাধীদের ক্ষমা করেছিল তাতে আমাদের কোন আগ্রহ নেই!
কে কি নিয়তে এখন যুদ্ধাপরাধীদের শাস্তির হুকুম দিচ্ছে তাতেও আমাদের আগ্রহ নেই!

আমাদের দাবি ওরা ফাঁসির আসামি হোক ওরা যুদ্ধাপরাধীরা ফাঁসিতে ঝুলুক!

আজ আওয়ামী লীগ মুখ দেখে বাছাই করে বিচারের কথা বলছে আমরা চাই বিএনপিও ক্ষমতায় এসে মুখ দেখে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করুক!

এভাবে এপাস ওপাশ করে সব যুদ্ধাপরাধীরা খাক হোক,মাটিতে মিশে যাক!

জয় বাংলা! বাংলাদেশ জিন্দাবাদ!!