ক্যাটেগরিঃ নাগরিক আলাপ

 

কথাটা শুনে নড়েচড়ে বসার কোন কারণ নেই। পুলকিত হওয়ারও কোন কারণ নেই।

১.বাংলাদেশে স্মরণকালের ইতিহাসে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা এবার শীতে।(গড় ৫.৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস গত তিন দিনে)।বিষয়টা একটু খেয়াল করুন ইউরোপে সারাবছর ঠিক এই ধরণের তাপমাত্রাই বিরাজ করে। সুতরাং আমরা শীতকালীন ইউরোপ হয়ে গেছি!!!

৫ দশকে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা, বৈশ্বিক উষ্ণতাই দায়ী

২.আবার ইদানিং বেশ লক্ষ করছি আমাদের দেশের মানুষের শ্যামবর্ণটাও ক্রমশ তামাটে হয়ে যাচ্ছে!মেয়েদের ভাগটাই একটু বেশ।দেশে এখন সুন্দরীদের হারটাই বেশি!তাই যোগ-বিয়োগ হিসাব করলে একই হিসাব দাঁড়ায় আমরা উন্নত হচ্ছি ইউরোপীয় ধারায়!

৩.কাপড়-চোপড়ের ক্ষেত্র আরও বিশাল পরিবর্তন।মেয়েদের কাপড়ের পরিমাণ দিন দিন কমছে।মডার্ণ ফ্যাশান আরকি!ভুলেও ভাববেননা অভাবের তাড়নায় এমন পরিবর্তন।এটাযে উন্নয়নের ছোঁয়া!

৪.আগে বিয়ের গায়ে হলুদে বাংলা নাচ (বড়জোর দুই একটা হিন্দি গায়ে হলুদের গান চলত)।আর এখন মশাই হিন্দিতো আছেই সাথে সাথে বিট ইট জাতীয় ইংলিশ গান ছাড়া জমেইনা!ভাবার কোন কারণ নেই দেশীয় কালচার আজ রসাতলে গেছে।আমরা যে সমগ্রক্ষেত্রে বিশ্বের সাথে পাল্লা দিয়ে চলেছি।আমরা আসলেই উন্নত হচ্ছি।

এভাবেই আমরা আমাদের সভ্যতা আর সংস্কৃতিকে বিকিয়ে দিচ্ছি ।

৫.আমরা ইংরেজিতে এখন যথেষ্ট দক্ষ।৬০% ইংরেজির সাথে ৪০% বাংলা (“আই অ্যাম সার্চিং গুন্ডা “জাতীয়)মিশিয়ে কথা বলতেই আমরা সাচ্ছন্দবোধ করি।এটা ছাড়া নাকি স্মার্ট ক্যারিয়ারও হয় না।এটা বৈশ্বিকীকরণে এক বিরাট অর্জন আমাদের।

আরও কতশত কাহিনী।ডিজটাল চুরি,ডিজিটাল হ্যাকিং সাথে ডিজিটাল ধর্ষণও! সুতরাং আমরা ইউরোপের মত উন্নত হচ্ছি বলাই যায়।

প্রশ্নঃ পাঠক আসলেই কি তাই? নইলে কি?
বিঃদ্রঃ উত্তর দেওয়ার আগে অবশ্যয়ই প্রকৃত মানব চেতনা,দেশপ্রেম,ভাষা-সংস্কৃতিবোধকে সামনে নিয়ে বসবেন।