ক্যাটেগরিঃ খেলাধূলা

তোমাদের কাছে আমাদের অন্য কিছু চাওয়ার নেই।চাই শুধু একটি খেলার মাঠ।

যান্ত্রিক জীবনের কোলাহলের বাইরে ঢাকা শহরে নিশ্বাস ফেলার মত স্থান যদি থেকে থাকে তার মধ্যে অন্যতম একটি স্থান কাওলার সিভিল এভিয়েশন।যান্ত্রিক জীবনের বাইরে সত্যিকারের নিরিবিলি একটা স্থান এটি।এখানে দিনের ২০ ঘন্টা গ্যাস না থাকার বেদনা,ভাঙ্গাচুরা রাস্তার কষ্ট,নাগরিক হাজারো সুবিধাহীনতার আক্ষেপ পুষিয়ে দেয় আত্মিক ভালোলাগা।সারাদিনের কর্মক্লান্তিময় একজন চাকুরিজীবী যখন রিকশায় করে রেলগেটটা পার হয়ে এলাকায় প্রবেশ করেন তখন তার ক্লান্তি দূর করে দেয় মুক্ত বাতাস।

কিন্তু হায়!
এসুখ বেশিদিন সহ্য হল না ভাগ্যবিধাতার।তাই বিস্তৃর্ণ জালাভুমি ভরাট করে ফেলল ভূমিদস্যুরা নাকে তেল দিয়ে ঘুমানোর মন্ত্রে দিক্ষিত আশিয়ান সিটি। জীবিকা হারালো গরীব জেলেরা।টাটকা মাছের বদলে এখন ফরমালিন যুক্ত মাছ গিলতে হয় এলাকাবাসীকে।

নগরায়ণ কেড়ে নিল বাচ্চাদের খন্ড খন্ড খেলার মাঠগুলো।ইট-পাটকেলের বড় বড় দালান উঠল একে একে। বাদ ছিল সিভিল এভিয়েশনের দুইটি খেলার মাঠ যার একটি আবার স্থানীয় কয়েকটি ক্লাবের দখলে। আমতলা মসজিদ সংলগ্ন অন্য মাঠটি(পি টু মাঠ) ছিল বাচ্চাদের একমাত্র খেলার জায়গা।এখন সেটির অধিকারও তারা হারালো!!! সিভিল এভিয়েশন উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের লোকজন উন্নয়নের নামে পাঁচীল দিয়ে ঘেরার কাজ শুরু করছে।বলেছে আর তোমাদের খেলা হচ্ছেনা।

প্রিয় মাঠটি হারিয়ে বাচ্চারা প্রতিবাদে ফেটে পড়ে।প্রিয় মাঠের সামনে মিছিল এবং মানববন্ধন করে আজ(১০জানুয়ারি,২০১৩ইং) সকাল থেকে।মাইকে যখন ছোট ছোট বাচ্চাগুলো আর্তনাদ করে বলছে “আমরা তোমাদের কাছে কিচ্ছু নয় শুধু প্রিয় মাঠটি চাই।আমাদের অধিকার থেকে বঞ্চিত করনা।আমাদের মুখের হাসি কেড়ে নিও না ।”তখন মনে পড়ে গেল রবীন্দ্রনাথের সেই কবিতা “দাও ফিরিয়ে সে অরণ্য,লও এ নগর।”এই মাঠে আমিও খেলেছি ওদের সাথে।এখনও ডাকলে ছুটে যাই।তাই ওদের মত আমারও আবেগ জড়িত এই মাঠের প্রতি।

কারো কারো চোখেমুখে মিশে আছে ঘৃণার অগ্নিশিখা।ব্যানার এবং ফেস্টুনে তারা পুর্বের ন্যায় ভবিষ্যতেও P2 মাঠের পূর্ণাঙ্গ অধিকার ফিরে পাবার দাবি জানায়। বাচ্চারা বলেছে মাঠটি ফিরে পাওয়ার জন্য তারা দরকার হলে আমরণ অনশনে যাবে। জানিনা তাতেও ঘুম ভাঙ্গবে কিনা কর্তাব্যক্তিদের।তাতেও তারা সরে আসবে কিনা তাদের উন্নয়নের নামে মেধাহীন-চিত্তহীন ভবিষ্যত গড়ার পরিকল্পনা থেকে।

আসলে কাদের জন্য আমাদের এতকিছু?আমাদের ভবিষ্যত প্রজন্মের জন্যই তো?তাহলে কেন তাদেরকে দিনে দিনে পঙ্গুত্বের দিকে ঠেলে দিচ্ছি?

ওদের সাথে আমিও প্রতিবাদ জানাচ্ছি প্রিয় মাঠটি ফিরিয়ে দেবার দাবিতে।